ঢাকা, মঙ্গলবার, ১০ বৈশাখ ১৪৩১, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫

অর্থনীতি-ব্যবসা

ব্যবসাবান্ধব ভ্যাট কাঠামো চান উদ্যোক্তারা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
ব্যবসাবান্ধব ভ্যাট কাঠামো চান উদ্যোক্তারা

ঢাকা: ভ্যাট কাঠামোয় প্রয়োজনীয় সংস্কার আনার আহ্বান জানিয়েছেন ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তারা। ব্যবসার পরিবেশ সহজীকরণ, প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বৃদ্ধি ও ব্যবসায়ীদের অহেতুক হয়রানি বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) কাস্টমস ও ভ্যাট বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সভায় এ আহ্বান জানান ব্যবসায়ীরা। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন এফবিসিসিআই–এর সভাপতি মাহবুবুল আলম।

ব্যবসায়ীরা জানান, শিল্পের জন্য কাঁচামাল কিংবা যন্ত্রপাতি আমদানির ক্ষেত্রে অতিরিক্ত শুল্ক আরোপ, অযৌক্তিক জরিমানা, এইচএস কোড সংক্রান্ত জটিলতা এবং মিথ্যা ঘোষণার নামে নানাবিধ হয়রানির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বহুবার আলোচনার পরও সুফল মিলছে না। যা ‘ইজ অব ডুয়িং বিজনেস’ বাস্তবায়নে অন্তরায় বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা।

এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ব্যবসায়ীদের জন্য ভ্যাট, আয়কর এবং কাস্টমস খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এসব বিষয়ে ব্যবসায়ী মহলকে প্রতি মুহূর্তে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। পণ্যের এইচএস কোড ইস্যুতে রাজস্ব কর্তৃপক্ষের সাথে একাধিকবার আলোচনা হলেও ফলাফল মিলছে না। আমরা সরকারকে অগ্রিম আয়কর দিচ্ছি। কিন্তু সেটি আর রিফান্ড হচ্ছে না। এসব বিষয় ব্যবসা-বাণিজ্যকে বাধাগ্রস্ত করছে, ব্যবসায়ীদের ওপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করছে।

ব্যবসায়ীরা ভ্যাট-ট্যাক্স দেওয়ার বিপক্ষে নয় উল্লেখ করে মাহবুবুল আলম বলেন, আমরা ভ্যাট-ট্যাক্স দিতে চাই। তবে সেটি যেন অযৌক্তিক না হয়। এ সময় কাস্টমস এবং ভ্যাট কাঠামো সহজীকরণ বিষয়ে ব্যবসায়ীদের যৌক্তিক ও সুনির্দিষ্ট পরামর্শ চান এফবিসিসিআই সভাপতি।

এফবিসিসিআই-এর সিনিয়র সহ-সভাপতি আমিন হেলালীর মতে, ব্যবসাবান্ধব কাস্টমস, ভ্যাট এবং কর কাঠামো বাস্তবায়ন করা গেলে সরকারের রাজস্ব আহরণ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাবে।

তিনি বলেন, গত ১৫ বছরে দেশের অর্থনীতির আকার কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু রাজস্ব প্রশাসন পূর্বের  মতোই রয়ে গেছে। ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারে উদ্ভাবনী ও সৃজনশীল নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে।

প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে কুটির, ক্ষুদ্র এবং স্টার্ট-আপ প্রতিষ্ঠানের জন্য পৃথক নীতিমালা প্রণয়নসহ মাঝারি এবং বৃহৎ শিল্পের জন্য ভিন্ন ভিন্ন নীতিমালা প্রণয়নের পরামর্শ দেন আমিন হেলালী।

কমিটির ডিরেক্টর ইন-চার্জ এবং এফবিসিসিআই–এর পরিচালক ড. মুনাল মাহবুব বলেন, সত্যিকারের ব্যবসা বান্ধব নীতিমালা বাস্তবায়নের জন্য কাস্টমস এবং ভ্যাট কর্তৃপক্ষকে বেসরকারি খাতের অসুবিধার কথা আন্তরিকতার সাথে শুনতে হবে। গবেষণালব্ধ ফলাফলের ভিত্তিতে বাস্তবসম্মত নীতি প্রণয়ন করতে হবে।

কমিটির চেয়ারম্যান একেএম আক্তার হোসেন বলেন, ব্যবসায়ী সম্প্রদায় দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধির পথে আরও এগিয়ে নিতে চায়। কিন্তু আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে তারা পিছিয়ে পড়েছে। আগামীর স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে অটোমেশন, ডিজিটালাইজেশন ও ইন্টিগ্রেশনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে এফবিসিসিআই-এর সহ-সভাপতি মো. মুনির হোসেনসহ পরিচালক, কমিটির কো-চেয়ারম্যান, সদস্য ও ব্যবসায়ী নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০৫১ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৪
জেডএ/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।