ঢাকা, বুধবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

আওয়ামী লীগ

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয়

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৪৯ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮
মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয় রাজশাহীতে বিজয় মিছিল, ছবি: বাংলানিউজ

রাজশাহী: মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয়ে রাজশাহীতে বিজয় মিছিল করেছে মহানগর আওয়ামী লীগ ও তার বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন।

রোববার (১৬ ডিসেম্বর) দুপুরে কুমারপাড়া মোড় থেকে মিছিলটি বের করা হয়। জাতীয় ও দলীয় পতাকা নিয়ে মিছিলটি শহরের সাহেব বাজার জিরোপয়েন্ট, সোনাদীঘির মোড়সহ বিভিন্ন প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

এ সময় স্লোগানে স্লোগানে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এ বিজয় মিছিলে নেতৃত্ব দেন মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন ও সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।

মিছিলের সামনে ছিল আওয়ামী লীগের দলীয় পতাকা। তার পেছনে ছিল ব্যান্ড দল। বাদ্যের তালে-তালে এগোতে থাকে বিজয় মিছিলটি। জাতীয় পতাকা হাতে অনেকে মিছিলে অংশ নেন। নারীদের পরনে ছিল লাল-সবুজের শাড়ি ও পোশাক।

স্লোগানে স্লোগানে মুখর ছিল পুরো মিছিলটি। ‘তোমার আমার ঠিকানা, পদ্মা-মেঘনা-যমুনা; ‘তুমি কে আমি কে, বাঙালি বাঙালি, ‘শেখ হাসিনার মার্কা, নৌকা মার্কা, শেখ হাসিনার সালাম নিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন, লিটন ভাইয়ের সালাম নিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন, ৩০ তারিখ সারাদিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন-ইত্যাদি স্লোগানে মুখর ছিল বিজয় মিছিলটি।

বিজয় মিছিলে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেনী, মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী, মাহফুজুল আলম লোটন, নিঘাত পারভীন, সৈয়দ শাহাদত হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, রেজাউল ইসলাম বাবুল, নাইমুল হুদা রানা, সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, মহানগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী, সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন বাচ্চু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি ও ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মোমিন, সাধারণ সম্পাদক জেডু সরকারসহ মহানগর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগসহ অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এদিকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সহ-সভাপতি ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্নার নেতৃত্বে বিজয় মিছিলে যুক্ত হয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এতে মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রকি কুমার ঘোষ ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুর হাসান রাজিবসহ অন্যান্য নেতারা। মিছিল শেষে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সংক্ষিপ্ত সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আজকের এ দিনে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী পরাজিত হয়ে আত্মসমর্পণ করেছিল, অস্ত্র জমা দিয়েছিল। আজকের দিনে দেশ স্বাধীন হয়েছিল, আমরা বিজয় অর্জন করেছিলাম। আজকে সেই আনন্দের দিন।

মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, সোনার বাংলা গড়ার যে স্বপ্ন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু দেখেছিলেন, তারই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি দেশকে উন্নয়নের শিখড়ে নিয়ে যাচ্ছেন। সেই মুহুূর্তে নানান চক্রান্ত চলছে। সেই চক্রান্ত বানচাল করে আগামী ৩০ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারও ক্ষমতায় আসবেন ইনশাল্লাহ।

দিবসটি উপলক্ষে মিছিল শুরুর আগে দলীয় কার্যালয়ের পাশে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এসময় রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনীসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৬, ২০১৮
এসএস/ওএইচ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।