ঢাকা, বুধবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

আওয়ামী লীগ

জনগণের ওপর নয়, বিএনপির ভরসা ষড়যন্ত্রে

পলিটিক্যাল ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৫০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৫, ২০১৮
জনগণের ওপর নয়, বিএনপির ভরসা ষড়যন্ত্রে বক্তব্য রাখছেন ড. হাছান মাহমুদ

ঢাকা: জনগণের ওপর নয়, বিএনপি ষড়যন্ত্রের ওপর ভরসা করে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

শুক্রবার (৫ জানুয়ারি) রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টি আয়োজিত সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদবিরোধী ও গণতন্ত্র রক্ষা বিষয়ক এক সমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির এখন জনগণের ওপর ভরসা নাই।

তাদের ভরসা ষড়যন্ত্রে। তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে দেশে একটি বিশেষ পরিস্থিতি তৈরি করে এমন একটা সরকার কায়েম করা, যেন গণতন্ত্র আবার হুমকির মুখে পড়ে, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া নস্যাৎ হয়।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দেশে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের বর্ষপূর্তিতে শুক্রবার বিএনপি-জামায়াত বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা চালিয়েছিল দাবি করে আওয়ামী লীগের এ অন্যতম মুখপাত্র বলেন, আজ এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি না পেয়েও তারা এখানে সমাবেশের ডাক দিয়েছিল। আমরা যখন আমাদের নেতাকর্মীদের সতর্ক দৃষ্টি রাখার অাহবান জানিয়েছি, তখন তারা পিছু হটে নয়াপল্টনে সমাবেশ করার চেষ্টা করছে। নয়াপল্টনে অতীতে আমরা দেখেছি, সমাবেশের সময় তারা গাড়ি ভাঙচুর করেছিল, সমাবেশ থেকে মিছিল নিয়ে ফেরার সময় গাড়িতে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করেছিল, মানুষের ওপর পেট্রোল বোমা মেরেছিল।

তিনি বলেন, যারা ইসলামকে পুঁজি করে ক্ষমতায় যেতে চায়, যারা নির্বাচনের সময় মুসলমান বনে যায়, তাদের ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে। আমাদের সরকার ইসলামের জন্য যতো কাজ করেছে, দেশের ইতিহাসে এতো কাজ হয় নাই। দেশে আজকে ৩৫ হাজার মসজিদভিত্তিক মক্তব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। প্রতিটি মক্তবের আলেম ৪৫০০ টাকা ভাতা পান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিটি জেলা-উপজেলায় একটি করে সরকারি অর্থায়নে মসজিদ নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করেছেন এবং সেই প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে।

হাছান মাহমুদ বলেন, দেশের আলেম-উলামাদের শতবর্ষের দাবি ছিল ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়, সেই দাবি পূরণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিএনপি এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আলেম-উলামাদের নিয়ে কোনো সমাবেশ করেনি। আমরা এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমগ্র দেশের আলেম-উলামাদের এনে সমাবেশ করেছি। সেই সমাবেশে বক্তৃতা করেছেন পবিত্র মক্কা শরিফের ইমাম, মসজিদে নববীর ইমাম পর্যন্ত।

অালেম-উলামাদের অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ইসলামের নামে যে জঙ্গি তৎপরতা দেখা গিয়েছিল, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এবং আপনাদের সমর্থনে আমরা সেটিকে অবদমিত করতে সক্ষম হয়েছি। এটির মূলোৎপাটন ছাড়া, দেশ এখন যে অদম্য গতিতে উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলছে, সেটি অব্যাহত রাখা সম্ভব হবে না। তাই আলেম-উলামাদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে এবং ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, যারা বিভিন্ন সময় ধর্মের কথা বলে বিভ্রান্ত করে ক্ষমতায় গিয়েছিল। ক্ষমতায় যাওয়ার পর ধর্মের কোনো কাজ করেনি। আজ দুর্নীতির দায়ে (বিএনপি চেয়ারপারসন) খালেদা জিয়া আদালতের কাঠগড়ায়। একজন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এতিমের টাকা মেরে খেয়েছেন, সেই এতিমের টাকা অাত্মসাতের দায়ে আজ খালেদা জিয়া আদালতের কাঠগড়ায়। এখন নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে না পারায় নানা ধরনের টালবাহানা করে নয় বছর পার করে দিয়েছেন। লক্ষ্য হচ্ছে, যদি এভাবেই সরকার পরিবর্তন হয়ে যায়, তাহলে খালাস হয়ে যাবে।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মৌলানা ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন- সংসদ সদস্য সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, আওয়ামী লীগ নেতা এম এ করিমসহ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির নেতাকর্মীরা।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৫, ২০১৭
এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।