ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ আষাঢ় ১৪২৯, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৫ জিলহজ ১৪৪৩

আওয়ামী লীগ

যানজট, জলাবদ্ধতামুক্ত ঢাকা গড়তে চাই

শাহজাহান মোল্লা, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১০২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৭
যানজট, জলাবদ্ধতামুক্ত ঢাকা গড়তে চাই দক্ষিণখান ইউনিয়নে গণসংযোগকালে আতিকুল ইসলাম

ঢাকা: অল্প কিছু দিন বাদেই ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের উপ-নির্বাচন। এরই মধ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীদের নাম শোনা যাচ্ছে। প্রকাশ্যে এখনও কেউ মাঠে না নামলেও ক্ষমতাসীন দলের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে গণসংযোগ শুরু করে দিয়েছেন সাবেক বিজিএমইএ সভাপতি মো. আতিকুল ইসলাম।

আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হলে কেমন ঢাকা গড়তে চান, নির্বাচনী ইশতেহারে কী থাকবে- এসব বিষয়ে বাংলানিউজের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় অনেক কিছু বলেছেন আতিকুল ইসলাম।  

মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) সিটি কর্পোরেশনভুক্ত দক্ষিণখান ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় গণসংযোগকালে দক্ষিণখান ইউপি চেয়ারম্যান এসএম তোফাজ্জল হোসেনের বাসায় সুন্দর ঢাকা গড়ার কথা বলেন তিনি।

তফসিল ঘোষণা করার আগেই আপনি নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছেন- এমন প্রশ্নে বিশিষ্ট এই ব্যবসায়ী বলেন, আমি তো নির্বাচনী প্রচারণা করছি না। আমি আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করছি। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী আমাকে বলেছেন, তুমি গণসংযোগ কর। আমি শুরু করেছি। আমি ডিএনসিসি এলাকার প্রতিটি ওয়ার্ডের মানুসের সঙ্গে কথা বলবো। সব শ্রেণী-পেশার মানুষের সঙ্গে কথা বলে কাজ করতে চাই।

ডিএনসিসি’র মেয়র নির্বাচিত হলে কেমন ঢাকা গড়তে চান? জবাবে তিনি বলেন, দায়িত্ব পেলে আমার প্রথম কাজ হবে প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করা। সেটা করতে পারলে আনিসুল হকের আত্মা যেমন শান্তি পাবে, তেমনি ঢাকাবাসীও শান্তি পাবে। আমি নিজে একটি সুন্দর পরিচ্ছন্ন ঢাকা গড়ার স্বপ্ন দেখি।

নির্বাচনী ইশতেহারের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আতিকুল ইসলাম বলেন, প্রার্থী হিসেবে নাম চূড়ান্ত হলে অবশ্যই নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করবো। আমার কাজটা সহজ হবে কারণ, আমি বিজিএমইএ সভাপতি থাকাকালীন সময় প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক নির্বাচন করেছেন। তখন মেয়র আনিসুল হক ইশতেহার ঘোষণার পর অনেক বিষয়ে আমার সঙ্গে কথা হয়েছে। তাছাড়া তার ইশতেহারগুলো অনলাইনে আছে, আমাদের কাছেও আছে। আগে প্রার্থী চূড়ান্ত হোক তারপর ইশতেহার।

নির্বাচিত হলে ঢাকা নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসন করাই প্রথম প্রায়োরিটি হবে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, আমি দায়িত্ব পেলে ঢাকাকে অবশ্যই জলাবদ্ধতামুক্ত করতে চাই। এরইমধ্যে খোঁজ নিয়েছি ডিএনসিসিতে ২১টি কালভার্ট রয়েছে। এগুলো পরিষ্কার করতে পারলে জলাবদ্ধতা নিরসন করা সম্ভব।

মেয়র আনিসুল হকের স্বপ্ন ছিল রাজধানীতে নতুন বাস নামানো ও যানজটমুক্ত করতে ইউলুপ করা। আপনি নির্বাচিত হলে কী করতে চান? ‘রাজধানীতে নতুন বাস নামানো এবং ইউলুপ করা অনেক চ্যালেঞ্জের ব্যাপার। তবে নির্বাচিত হলে অবশ্যই মেয়র আনিসুল হকের এই অসমাপ্ত কাজগুলো অগ্রাধিকার দিয়ে করবো’, বলেন আতিকুল ইসলাম।

আপনার শক্তি কী? উত্তরে ব্যবসায়ী নেতা বলেন, মেয়র আনিসুল হক যেসব কাজ করেছেন তাতে সরকারের তথা আওয়ামী লীগের সার্পোট ছিল। আমি মনে করি আমার পাশে যদি দেশনেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থাকেন তাহলে আর কোনো শক্তিই লাগে না। প্রধানমন্ত্রীর সার্পোট থাকলে সকল অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারবো। আর আমি একা নই সবাইকে নিয়েই কাজ করবো। আমরা সবাই মিলে সুন্দর ঢাকা গড়বো।

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী আপনাকে কী বলেছেন- জানতে চাইলে আতিকুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে একটা মেসেজ দিয়েছেন, তুমি গণসংযোগ শুরু কর। আমাকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করলে অবশ্যই আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবো।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র আনিসুল হক গত ৩০ নভেম্বর মারা গেলে ডিএনসিসিতে উপ-নির্বাচন করার ঘোষণা দেয় নির্বাচন কমিশন। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিকে ওই নির্বাচন হতে পারে বলে জানিয়েছে কমিশন।  

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৯ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৭
এসএম/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa