ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ কার্তিক ১৪২৮, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

প্রবাসে বাংলাদেশ

সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবি প্রবাসী সাংবাদিকদের

শাহ মো: তানভীর  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৩৭ ঘণ্টা, মে ১৯, ২০২১
সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবি প্রবাসী সাংবাদিকদের

পর্তুগাল থেকে: পেশাগত দায়িত্বে গিয়ে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা-মামলা-কারাগারে পাঠানোর ঘটনায় দেশের মতো প্রবাসেও বেশ তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

ইউরোপে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি সাংবাদিকরা এ ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

একই সঙ্গে তারা সাংবাদিক সমাজকে অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন। তাদের মতে, আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাওয়া একজন অনুসন্ধানী ও উদ্যমী সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও সাজানো মামলায় জড়ানো গণতন্ত্র ও স্বাধীন গণমাধ্যমের জন্য হুমকি, সরকারকে সাংবাদিক সমাজের মুখোমুখি দাঁড় করোনোর গভীর যড়যন্ত্র।

ইতালি থেকে মনিরুজ্জামান মনির বলেন, রোজিনা এখন শুধুমাত্র সাংবাদিক বা নাম নয়, রোজিনা এখন একটি প্রতিবাদ। রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায়  আনীত অভিযোগ নিঃশর্তভাবে প্রত্যাহার করতে হবে। তার ওপর নির্যাতনকারী সব সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেফতার উদ্বেগজনক বলে উল্লেখ করেছে জাতিসংঘ, যা আমাদের জন্য দুঃখ এবং লজ্জাজনক।

পর্তুগাল  অবস্থানরত সিনিয়র  সাংবাদিক  বেলাল আহমদ বলেন, আজ গণমাধ্যম বন্দিশালায়। এটা আমাদের জন্য এক লজ্জাজনক অধ্যায়। আমরা আমাদের বাক স্বাধীনতার পাশাপাশি গণমাধ্যমের স্বাধীনতাও হারিয়েছি। যা আমাদের দেশের জন্য মোটেও শুভকর নয়। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে নয়, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিলে দেশ, জাতি ও সমাজ উপকৃত হবে।
স্পেন থেকে বকুল খান বলেন, দুর্নীতি এবং অনিয়মের বিরুদ্ধে সরকার সব সময় জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করছে। সে অনুযায়ী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে আটক, নির্যাতনের শিকার হন রোজিনা ইসলাম। এ ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। শুধু স্বাধীন সাংবাদিকতার ওপর আঘাত হানা হয়েছে, তাই নয়, পক্ষান্তরে আশ্রয়, প্রশ্রয় দেওয়া হয়েছে দুর্নীতি, লুটপাটের বরপুত্রদের। অনতিবিলম্বে রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি দিয়ে অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।

পর্তুগাল থেকে লেখক এবং সাংবাদিক মনির হোসেন বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর অতিক্রম করার পর আমরা কিছু সফলতার সঙ্গে ব্যর্থতাও পেয়েছি। কিছুদিন আগে প্রকাশ পাওয়া বিশ্ব গণমাধ্যম সূচকে আমরা তলানিতে অবস্থান করছি। এটা আমাদের গণমাধ্যমগুলোর জন্য মোটেও শুভকর নয়।

ফিনল্যান্ড থেকে লেখক মজিবুর দফতরি বলেন, সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে গৃহীত সহিংস ও দমনমূলক ব্যবস্থা বাংলাদেশের স্বাধীন সাংবাদিকতার ওপর সরাসরি আক্রমণ। একজন সাংবাদিকের ভূমিকা হলো জনসাধারণের কাছে স্বচ্ছতা আনার জন্য জনগণের কাছে গোপন রহস্য উদঘাটন করে সত্য প্রকাশ করা। এটি যারা দুর্নীতি এবং জনসম্পদের অব্যবস্থাপনায় লিপ্ত, সে শক্তিশালী মহলগুলোকে ক্ষুব্ধ করতে পারে।  সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম কেবল তার পেশাগত দায়িত্ব পালন করেছেন।  সাংবাদিকতা কোনো অপরাধ নয়। সরকারের উচিত তাকে মুক্ত করা এবং তার বিরুদ্ধে সমস্ত অভিযোগ প্রত্যাহার করা।

বাংলাদেশ সময়: ২১৩৩ ঘণ্টা, মে ১৯, ২০২১
এসআই


 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa