ঢাকা, সোমবার, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৩ আগস্ট ২০২০, ১২ জিলহজ ১৪৪১

প্রবাসে বাংলাদেশ

ভ্যানকুভারে বসন্ত উৎসবে বহুজাতিকতার নতুন মাত্রা

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৫-২৩ ০৪:২৬:১৫ এএম
ভ্যানকুভারে বসন্ত উৎসবে বহুজাতিকতার নতুন মাত্রা ভ্যানকুভারে বসন্ত উৎসব

বসন্তের রঙ প্রকৃতি থেকে ছড়িয়ে পড়ে মানুষের মনে। হৃদয়ে জেগে ওঠা নতুনের সেই আনন্দে মেতে বসন্তকে বরণ করে নেওয়া বাঙালির শত বছরের ঐতিহ্য। কিন্তু বসন্ত যে কেবল বাঙালির মনেই দোলা দেয় না, এর আবেদন যে বিশ্বজনীন, তারই স্বাক্ষর রাখল ভ্যানকুভার রবীন্দ্র পরিষদের আয়োজনে উদযাপিত বসন্ত উৎসব, ‘ট্যাগোর স্প্রিং ফেস্টিভাল ২০১৭’।

গত শনিবার (২০ মে) সারি সিটি হলে অনুষ্ঠিত এ উৎসবে বাঙালির বসন্ত উদযাপন বহুজাতিকতার নতুন মাত্রা লাভ করেছে। দর্শকের হৃদয় জয় করে নেয়া এ অনুষ্ঠানে বাংলা নাচ-গানের সাথে ছিল ইংরেজি কবিতা, কর্ণাটিক সঙ্গীত এবং হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের ধারায় সেতারের মূর্ছনা।

নানা বর্ণ, জাতি ও পেশার দর্শকের সামনে সঙ্গীত পরিবেশন করেন গুণী শিল্পী পিনু সাত্তার। তার ভরাট গলার রবীন্দ্রসঙ্গীত, নজরুলগীতি, লালনের গান কিংবা কীর্তন দর্শকদের হৃদয় স্পর্শ করে। পিনুর সাথে তবলায় ছিলেন শুভময় দাসগুপ্ত।

মৃদঙ্গম, ঘতম এবং মোরসিং এর মতো নানা রকম বাদ্যযন্ত্রের সমন্বয়ে কর্ণাটিক সঙ্গীত পরিবেশন করেন লাক্সমী মেনন। সেতারের সুরে দর্শকদের মুগ্ধ করেন মোহামেদ আসানী। তাকে তবলায় সঙ্গত করেন অমরজিত সিং।

ইংরেজি কবিতা পাঠ করেন কানাডীয় কবি বার্নিস লিভার, কোরিয়ান কবি বং জা আহন এবং আমেরিকান কবি কারলা শেফার।

অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ ছিল সবার শেষে। বাংলার পল্লী প্রকৃতিতে বসন্তের আগমন এবং ঋতুর পরিবর্তন নিয়ে নজরুলগীতি পরিবেশন করেন শঙ্খনাদ মল্লিক, অভীক দে এবং কেকা সেনগুপ্ত।

শিল্পীদের গানের তালে তালে নৃত্য পরিবেশন করেন একঝাঁক নবীন-প্রবীণ শিল্পী, যার মধ্যে অবাঙালি আলেক্স পারাপ্পিল্লি দর্শকদের মাঝে তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। যন্ত্রানুসঙ্গে ছিলেন সবুজ মজুমদার, তাপস বিশ্বাস এবং টম হান্টার। ছায়ানটের প্রাক্তন শিক্ষিকা অর্ণ কমলিকা এতে নেতৃত্ব দেন।

বাংলাদেশ সময়: ১০১৮ ঘণ্টা, মে ২৩, ২০১৭
এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa