[x]
[x]
ঢাকা, রবিবার, ৬ কার্তিক ১৪২৫, ২১ অক্টোবর ২০১৮
bangla news
কুয়েত থেকে জাহিদুর রহমান

কুয়েতে ‘অ, আ, ক, খ’

|
আপডেট: ২০১৫-১২-২২ ১১:২৭:০০ পিএম
ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

আবদুল্লাহ মোবারক (কুয়েত) থেকে: সাত সমুদ্র তেরো নদী পেরিয়ে মরুভূমির বুকে যেন এক টুকরো বাংলাদেশ। তার মাঝে আবার লাল-সবুজের পতাকা, জাতীয় সংগীত। আছে ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি...

আবদুল্লাহ মোবারক (কুয়েত) থেকে: সাত সমুদ্র তেরো নদী পেরিয়ে মরুভূমির বুকে যেন এক টুকরো বাংলাদেশ। তার মাঝে আবার লাল-সবুজের পতাকা, জাতীয় সংগীত। আছে ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি...’।

এখানে নেই কোনো আরবি, হিন্দি, উর্দু কিংবা ইংরেজির দাপট। আছে রক্ত দিয়ে কেনা মায়ের ভাষা। সবাই মাতৃভাষা বাংলাতেই সেখানে কথা বলে সবাই। একই ভাষাতেই চলে লেখাপড়া। বাংলায় লিখে ‘অ, আ, ক, খ’। কচি-কাচাদের মুখে জাতীয় সংগীতের সুরে সুরে শুভ সূচনা হয় দিনের।

এ দৃশ্য কুয়েতের মর্নিং গ্লোরী বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের। বাংলাদেশিদের একমাত্র স্কুল। দীর্ঘ ৪০বছরের প্রবাসীদের আশা আর আকাঙ্ক্ষার প্রতীক এই স্কুল। যেখানে মিশে আছে বাংলাদেশিদের আবেগ, অনুভূতি আর অর্জন সবকিছু।

সে নিবিড় প্রচেষ্টা আর উদ্যোগের প্রাণ পুরুষ হিসেবে কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) আসহাব উদ্দিনকে শ্রদ্ধা করেন প্রবাসীরা।
মূলত তার প্রচেষ্টায় কমিউনিটির সবাইকে নিয়ে এ স্কুলটি বাস্তবে রূপ দেওয়া হয়।

বাংলানিউজকে মেজর জেনারেল (অব.) আসহাব উদ্দিন জানান, প্রায় দুই লাখের বেশি বাংলাদেশির বসবাস রয়েছে কুয়েতে। কিন্তু এখানে কোনো বাংলাদেশি স্কুল ছিল না। প্রবাসীদের মধ্যে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়িরা তাদের সন্তানদের লেখাপড়ার জন্যে নির্ভর করতেন ব্যয়বহুল আমেরিকান কিংবা বৃটিশ স্কুলের ওপর। আর অন্যরা কেউ ভারতীয় কেউবা বাধ্য হয়ে সন্তানদের পাঠাতেন পাকিস্তানি স্কুলে। ফলে শৈশব থেকেই প্রবাসীদের ছেলে-মেয়েরা বাংলাদেশের সংস্কৃতি, ইতিহাস আর ঐতিহ্য থেকে বঞ্চিত হতো।

‘বাধ্য হয়েই বি-জাতীয় সংস্কৃতিকে লালন করতে হতো তাদের। মায়ের ভাষা বাংলা হয়ে যেত উপেক্ষিত। শিশুদের মুখেই ফুটতো হিন্দি না হয় উর্দু কিংবা  ইংরেজি,’ বলেন তিনি।

আলাপকালে আসহাব উদ্দীন জানালেন, কুয়েতে বাংলাদেশিরা বিভিন্ন ধরনের ব্যবসাসহ নানা পেশায় আছেন। কিন্তু তাদের ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনা করতে হতো ভারতীয় ও পাকিস্তানীদের প্রতিষ্ঠিত ৫০টির মতো স্কুলে।

‘রাষ্ট্রদূত হিসেবে কুয়েত যোগ দিয়েই জানলাম, সবাই স্কুলের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন মনেপ্রাণে। তবে অদৃশ্য কারণে সেই বহু কাঙ্ক্ষিত স্কুল আর হয় না।সব উদ্যোগ আর আয়োজন কেবল সীমাবদ্ধ থাকতো কেবলই আলোচনায়। বাস্তবে শূন্য,’ যোগ করেন তিনি।
 
রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আমাদের দূতাবাসের ডিফেন্স অ্যাটাচে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসিমুল গনিও বহুবার নানা স্তরের প্রবাসীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন। আমি যোগ দেবার পর প্রবাসীদের নিয়ে শুরু করলাম স্কুল গড়ার মিশন। প্রবাসীদের সঙ্গে চলতে থাকলো একের পর এক সভা। প্রথমেই এলো তহবিল গঠনের প্রশ্ন, কেননা স্কুল করতে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন।’

জানালেন, চলতি বছরের ১০ জানুয়ারি তার সরকারি বাসভবনে কুয়েতে কমিউনিটির নেত‍া এবং প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীদের অংশগ্রহণে সভাত্তোর সান্ধ্য ভোজের আয়োজন করা হয়।

ওই সভাতে রাষ্ট্রদূতকে প্রধান পৃষ্ঠপোষক করে ১০ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।

স্কুল প্রতিষ্ঠার এই উদ্যোগকে সফল করতে সবার সম্মতিতে নিযুক্ত করা হয় একজন চেয়ারম্যান ও তিনজন কো-চেয়ারমান। এরমধ্যে প্রবাসীরাও নিজ নিজ সামর্থ্য অনুযায়ী অনুদান দিয়ে তহবিল গঠনে সহযোগিতা করেছেন এবং করছেন।

স্কুল স্থাপনের বিষয়ে রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) আসহাব উদ্দীন জানান, চলতি বছরের ২২মে আবদুল্লাহ আল মোবারক (গর্ব জিলিব) এলাকার ১৪ নম্বর সড়কের ৯ নম্বর ব্লকের ৩৭ নম্বর বাড়িতে উদ্বোধন করা হয় মর্নিং গ্লোরী বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের।

এরপর থেকে এ ভবনটি ঘিরেই নিত্যদিন সকাল থেকে গোটা এলাকা কচি-কাচাদের আনাগোনায় মুখরিত হয়ে ওঠে। ছুটির দিন বাদে প্রতিদিনই বসে অভিভাবকদেরও মিলন মেলা। আলাপ-আলোচনায় প্রবাসে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন তারা।


চারতলা ভবনের বর্নিল ওই ভবনের বাইরে এক চিলতে জায়গায় শিশুদের খেলার জায়গাও রাখা হয়েছে। অবশিষ্ট জায়গায় গাড়ি পার্কিং করা হয়।
ভাড়া নেওয়া এই ভবনের ক্লাসরুমগুলোও বেশ সাজানো গোছানো, বলা যায় শিশু স্বর্গ। এখানেই স্বদেশ প্রেমে উজ্জীবিত হয়ে বাংলাদেশের ভবিষ্যত কাণ্ডান্ডারীরা শুরু করে তাদের শিক্ষা জীবন।

এদিকে প্রবাসীদের কাছে কুয়েতের আবদুল্লাহ মোবারক জায়গাটি এখন নতুন ইতিহাসের জন্ম দিয়েছে। যে ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে আছে প্রবাসীদের আবেগ, অনুভূতি আর ভালোবাসা।

জানা যায়, প্রাথমিক পর্যায়ে স্কুলে প্লে, এল কেজি, ইউ কেজি এবং প্রথম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষ‍া কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। রয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষা বোর্ডের ইংরেজি কারিক্যুলাম অনুযায়ী শিক্ষা লাভের সুযোগ।


রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল আসহাব উদ্দিন বাংলানিউজকে  বলেন, সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে পথ চলা শুরু করেছে স্কুলটি। চলতি বছরের মধ্যেই  প্রি-স্কুল, ২০১৬ সালের মধ্যে প্রাথমিক স্কুল, ২০১৮ সাল থেকে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে এর ওপরের ক্লাসে পাঠদান চালুর পরিকল্পনা আছে।
আর ২০২১ সালের মধ্যে মাধ্যমিক স্কুলে রূপান্তরের পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান তিনি।

‘প্রবাসীদের স্বার্থে বাংলাদেশ সরকারকে স্কুলটির ব্যাপারে অবহিত করা হয়েছে। আমরা প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় থেকে স্কুলের জন্যে অনুদান চেয়েছি। দুই কোটি টাকার মতো অনুদান পাওয়া গেলে দ্রুত স্কুলটি আরও অগ্রসর হবে,’ যোগ করেন রাষ্ট্রদূত।

‘স্কুলটি এখানে প্রবাসীদের দেশপ্রেমের অনন্য নির্দশন।প্রবাসী, অভিভাবক, স্কুল পরিচলনা কমিটি এবং বিশেষ করে স্কুল প্রতিষ্ঠাকারী দাতা ব্যক্তিদের সহায়তায় গড়ে উঠেছে এই স্কুল।

স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি ব্যবসায়ী শহিদ ইসলাম পাপুল বাংলানিউজকে বলেন, কুয়েতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন ছিল একটি স্কুল স্থাপন করা। আর তা বাস্তবে রূপ দিতে বর্তমান রাষ্ট্রদূত বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। কূটনৈতিক তৎপরতায় সীমাবদ্ধ না থেকে প্রবাসীদের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করেছেন।

কুয়েত প্রবাসী আরেক ব্যবসায়ী মোখাই আলী লুৎফর রহমান বলেন, অতীতে বহুবার উদ্যোগ নিলেও সফল হতে পারিনি। কিন্তু রাষ্ট্রদূত আমাদের একত্র করে সেস্বপ্ন বাস্তবায়নে এগিয়ে এসেছেন।

তার সঙ্গে সহমত পোষণ করে আরেক প্রতিষ্ঠিত তরুণ মনিরুল ইসলাম মারুফ।

প্রবাসী জাহাঙ্গীর হোসেন পাটোয়ারী বাংলানিউজকে জানান, স্কুলের শিক্ষা কার্যক্রম থেকে শুরু করে সিলেবাস প্রণয়ন, শিক্ষক নির্বাচনসহ বিভিন্ন ধরনের  উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড রাষ্ট্রদূত নিজে তদারকি করছেন। তার প্রচেষ্টায় স্কুলের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছেন প্রবাসী দুই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, প্রকৌশলী আর চিকিৎসক।

বাংলাদেশ সময়: ১০৩৩  ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৫
এমএ

** ‘ডাখা মাত্রই ফাওয়া যায়’
** ‘পচা’ শব্দটাই নিষিদ্ধ যেখানে
** ভালো নেই মরু জাহাজের নাবিকরা
** গৃহশ্রমের বাজারের হর্তাকর্তা দুই মোল্লা
** মরুর বুকে ধূসর জীবন
** ত্যাগে শীর্ষে ইমেজে পেছনে
** মরেও শান্তি নেই কুয়েতে!
** কুয়েতের রক্তচোষা মানুষ
** কুয়েতে রচনার বাংলাদেশ রচনা
** গাড়ি নতুন, ফোন পুরনো!
** ‘আঁততে আর বাংলাদেশত যাইতাম মনে ন হ’
** ব্যাডা মাছ, বেডি মাছ!
** ‘ধরা পড়লে রক্ষা নেই, কুয়েত থাকার সুযোগ নেই’
** কুয়েতে একখণ্ড ‘বাংলাদেশ’ বাংলা মার্কেট
** কুয়েতের রাজধানী
** সবার উপর দেশ
** কুয়েতে সবাই এমপি!
** সেই ‘ছোট মানুষটিই’ কুয়েতের বড় ব্যবসায়ী
** কুয়েতের বাতাসে ধ্বনিত হয় বাংলা
** কুয়েতের ডাক্তার আপা
** ‘জীবন যুদ্ধ কইত্যে কইত্যে একটা জায়গায় পৌঁছাইছি’
** কুয়েতে তথ্য প্রযুক্তি খাতে সেনা পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ
** আইনে নেই, তবুও বেআইনি চর্চা
** পরিবেশ পেলে বিনিয়োগ যাবে কুয়েত থেকে
** কুয়েতের জন্যে বাংলাদেশের আত্মত্যাগ
** কুয়েত পুনর্গঠনে বাংলাদেশ
**  কুয়েতে বাংলাদেশের ‘প্রিন্স’ সহিদ
** হয়রানি ও নাজেহালের শিকার হচ্ছেন প্রবাসীর
** অলিদের বঞ্চনা দেখার কেউ নেই
** শিল্প-সাহিত্যেও পিছিয়ে নেই প্রবাসীরা
** বাংলাদেশিদের কাজের ঠিকানা সুলাইবিয়ার ফল-সবজির বাজারও
** পরিবর্তনের দূত মেজর জেনারেল আসহাব উদ্দিন
** কুয়েতে মানবতার ফেরিওয়ালারা!
** সততা আর নিষ্ঠা থাকলে ঠেকায় কে?
** মরুর বুকে বুকভরা নিঃশ্বাস
** শ্রমিকদের মাথার মুকুট আব্দুর রাজ্জাক
** আরব সাগর থেকে হিমেল বাতাসে ভর করে এলো ছন্দ
** মরুর কুয়েত সবুজ চাদরে ঢাকছেন নাফিস জাহান
** ফেব্রুয়ারিতেই খুলনার মারুফের জীবনে আসছে পূর্ণতা!
** কুয়েতে গুলশান!
** কুয়েতের অ্যাম্বাসেডর!
** জন্ম কুয়েতে, হৃদয় বাংলাদেশের
** সূর্য ওঠার আগেই ঘুম ভাঙে চট্টগ্রামের শাহজাহানের
** ধূসর মরুভূমিতে সবুজ স্বপ্ন!

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

প্রবাসে বাংলাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache