bangla news

মালয়েশিয়ায় শিক্ষাতীর্থ আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়

2161 |
আপডেট: ২০১৪-০৫-২০ ১২:০০:০০ পিএম
আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় , মালয়েশিয়ার [IIUM]

আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় , মালয়েশিয়ার [IIUM]

পর্যটনের পাশাপাশি মালয়েশিয়া এখন শিক্ষার তীর্থও হয়ে উঠেছে যেন। প্রতি বছরই এখানে বিভিন্ন দেশ থেকে আসছেন উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিক্ষার্থী। বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরাও পিছিয়ে নেই মালয়েশিয়ায় এসে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের দৌড়ে।

কুয়ালালামপুর: পর্যটনের পাশাপাশি মালয়েশিয়া এখন শিক্ষার তীর্থও হয়ে উঠেছে যেন। প্রতি বছরই এখানে বিভিন্ন দেশ থেকে আসছেন উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিক্ষার্থী। বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরাও পিছিয়ে নেই মালয়েশিয়ায় এসে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের দৌড়ে।

কিন্তু পর্যাপ্ত তথ্য না থাকায় প্রতিনিয়তই নানামুখী বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। বিষয়টি বুঝেই মালয়েশিয়ায় পড়াশুনার খুটিনাটি তুলে ধরার এই উদ্যোগ নিয়েছে বাংলানিউজ। এর আগে এ নিয়ে সমন্বিত লেখাও প্রকাশ করেছে।

এবার শুরু হলো আরো বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরার প্রয়াস। প্রথম পর্বে আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিসহ একাডেমিক বিষয় যেমন জানা যাবে, তেমনি জানা যাবে শিক্ষার ব্যয় নির্বাহের জন্য খণ্ডকালীন কাজের টুকিটাকিও।

আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় , মালয়েশিয়ার [IIUM]

অবস্থান
আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় , মালয়েশিয়ার [IIUM] অবস্থান কুয়ালালামপুর সিটি সেন্টার থেকে ২৫ কি.মি. দূরে। গোম্বাক নামক স্থানে। রেলের রাস্তায় এ দূরত্ব ১৫ মিনিটের।

ক্যাম্পাস
ছিমছাম পরিবেশে এ ক্যাম্পাস প্রায় ৭০০ একর জায়গা নিয়ে অবস্থিত। বিশাল এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণকেন্দ্রে রয়েছে মসজিদ, যেখানে প্রায় কয়েক হাজার ছাত্রছাত্রী নামাজ পড়তে পারেন। পাশেই বিশাল গ্রন্থাগার।

বেশিরভাগ ছাত্রছাত্রীর মিলনমেলা ঘটে এখানে। নিরিবিলি পরিবেশ, মালয়েশিয়ার আর সব বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এর পড়াশুনার পরিবেশ অন্যতম। এছাড়াও আছে- অলিম্পিক আকারের সুইমিংপুল, স্পোর্টস কমপ্লেক্স, ২৪ ঘণ্টা মেডিকাল কমপ্লেক্স, ব্যাংক, পোস্ট অফিস, রেস্টুরেন্ট, বই এর দোকান, বাজার ইত্যাদি।

ধরনঃ আধা-সরকারি
বর্তমানে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৩৫০-৪০০ জন। প্রতি সেমিস্টারে বাংলাদেশির সংখ্যা ৬০-৭০ জন।

উল্লেখযোগ্য বিষয়
অর্থনীতি বিভাগঃ Economics, Marketing, BBA, Accounting

আইন বিভাগঃ Shariah Law

প্রকৌশল বিভাগঃ  Biotechnology Engineering, Computer & Information Engineering, Communications Engineering,Mechatronics Engineering, Aerospace Engineering, Automotive Engineering, Manufacturing Engineering, Materials Engineering.

ভর্তি
বছরে তিনটি সেমিস্টার। ফেব্রুয়ারি, সেপ্টেম্বর ও জুন মাসে এসব সেমিস্টার শুরু হয়। আবেদন করতে হবে  দুই থেকে তিন মাস আগে।

যা যা থাকতে হবে
ব্যাচেলরঃ জিপিএঃ ন্যূনতম ৩.৫ – এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি
IELTS: ৬.০, [যদি IELTS না থাকে, তাহলে প্লেসমেন্ট টেস্ট দিতে হবে, প্লেসমেন্ট টেস্টে পাশ না করলে ১-২ সেমিস্টার ইংরেজি কোর্স নিতে হবে।]

মাস্টার্স
ন্যূনতম জিপিএ ৩.০ থাকতে হবে ব্যাচেলর এ।

ভর্তি খরচ
ব্যাচেলর কোর্সে প্রতি বছরে ২ লক্ষ টাকা। প্রকৌশল ও আর্কিটেকচারঃ বছরে ৪ লক্ষ টাকা।
এছাড়াও রয়েছে ভর্তি ফিস, ভিসা ফিস ও অন্যান্য।

খাবার খরচ
বিশ্ববিদ্যালয়ে পাওয়া যাবে বাংলাদেশি, পাকিস্তানি, ভারতীয়, আরব, মালয়ী, ইন্দোনেশিয়ান খাবার। মাসে খাবার খরচ পড়বে গড়ে ৮ হাজার টাকা।

হোস্টেল খরচ
প্রতি ছাত্র-ছাত্রীর জন্য রুম বরাদ্দ রাখা হয়। ব্যাচেলরদের জন্য মাসে জনপ্রতি খরচ ৩ হাজার টাকা ও
মাস্টার্সদের জন্য জনপ্রতি ৬ হাজার টাকা খরচ হবে।

এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের জন্য রাখা হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। ছাত্রীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়েরে এলাকার মধ্যেই আলাদা মহল্লা আছে, যেখানে তারা নিরাপদে লেখাপড়া করতে পারে। বিভিন্ন দেশের ছাত্রীদের তাই অনেকটা প্রথম পছন্দ এই বিশ্ববিদ্যালয়টি।

সবদিক মিলিয়ে, উচ্চশিক্ষারর জন্য অসাধারণ একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এটি।

মালয়েশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাপারে যে কোন প্রশ্ন থাকলে লিখতে পারেন, khairulbn24@gmail.com

** মালয়েশিয়ায় পড়াশুনার খুঁটিনাটি

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৬ ঘণ্টা, মে ২০, ২০১৪

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

প্রবাসে বাংলাদেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2014-05-20 12:00:00