bangla news

দেশে ফেরার দাবিতে রামপালে ভারতীয় শ্রমিকদের বিক্ষোভ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৫-০৪ ৩:৫৫:২৯ পিএম
ছবি: বাংলানিউজ

ছবি: বাংলানিউজ

বাগেরহাট: করোনার কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে নিজ দেশে ফেরাসহ বিভিন্ন দাবিতে বিক্ষোভ করছেন বাগেরহাটের রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে কর্মরত ভারতীয় শ্রমিকরা। অনেকে হেঁটে রওনা হয়েছেন এমন খবরও পাওয়া গেছে। 

সোমবার (০৪ মে) দুপুরের দিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বাধা উপেক্ষা করে ওই কেন্দ্রের সীমানা অতিক্রম করে সামনে রাস্তায় অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছেন কয়েকশ’ ভারতীয় শ্রমিক।

এদের মধ্যে অনেকে হেঁটে কয়েক কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে খুলনা-মোংলা মহাসড়কের বাবুরবাড়ীর মোড়ে এসে পৌঁছান। শ্রমিকদের বিষয়টি সমাধানের জন্য তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র কর্তৃপক্ষ, বাগেরহাট জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন। 

শ্রমিকরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে তারা (শ্রমিকরা) এই তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে কাজ করছেন। করোনার প্রভাবে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে তারা ঠিক মতো পরিবার ও স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না। লকডাউনের দোহাই দিয়ে তাদের বাড়িতে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। আবার ঠিক মতো খাবারও পাচ্ছেন না। তাই যেকোনো মূল্যে তারা বাড়ি ফিরে (ভারতে) যেতে চান।

রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের আনসার কমান্ডার লিয়াকত হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, কিছু শ্রমিক বাইরে বের হয়েছিলেন। এখন সবকিছু স্বাভাবিক রয়েছে। খবর পেয়ে রামপাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ (ইউএনও) প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আমাদের এখানে এসেছেন। আশাকরি একটা সুষ্ঠু সমাধান হবে। 

রামপাল তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উপ-প্রকল্প পরিচালক মো. রেজাউল করিম বাংলানিউজকে বলেন, দীর্ঘদিন পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পারায় শ্রমিকদের মধ্যে এক ধরনের হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। তাই বাড়িতে যাওয়ার দাবিতে কিছু শ্রমিক বাইরে বের হয়ে অবস্থান নিয়েছেন। আমরা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টির সমাধানের চেষ্টা করছি।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫৫ ঘণ্টা, মে ০৪, ২০২০
এসআরএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   বাগেরহাট
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2020-05-04 15:55:29