ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২১ মে ২০১৯
bangla news

মজুদ শেষ বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির উৎপাদন বন্ধ

উপজেলা করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০১-২৯ ৯:৫৭:০৪ পিএম
বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি

পার্বতীপুর (দিনাজপুর): দিনাজপুরের পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া খনির উৎপাদনশীল ১৩১৪ নম্বর কোল ফেইসে মজুদ শেষ হয়ে যাওয়ায় নয়দিন ধরে কয়লা উৎপাদন বন্ধ রয়েছে।

এরপর ১৩০৮ নম্বর ফেইস থেকে কয়লার উত্তোলন করা হবে। ১৩১৪ নম্বর ফেইসে ব্যবহৃত উৎপাদন যন্ত্রপাতি সরিয়ে ১৩০৮ নম্বর ফেইসে স্থাপন করে পুনরায় উৎপাদনে যেতে অন্তত দেড় মাস সময় লাগবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়।

খনির ১৩১৪ নম্বর কোল ফেইস থেকে কয়লা উৎপাদন শুরু হয় ২০১৮ সালের ৯ সেপ্টেম্বর। এ ফেইস থেকে কয়লা উৎপাদন হয়েছে দুই লাখ ৮০ হাজার টন। ১৩১৪ নম্বর ফেইসে ব্যবহৃত উৎপাদন যন্ত্রপাতি সরিয়ে ১৩০৮ নম্বর ফেইসে স্থাপনের কাজ শুরু করা হয়েছে।

বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিএমসিএল) মহাব্যবস্থাপক (জিএম- সারফেজ ও মাইন অপারেশন) সাইফুল ইসলাম ও জনসংযোগ কর্মকর্তা (পিআরও) একেএম বদরুল আলম মঙ্গলবার (২৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বাংলানিউজকে বলেন, খনির কয়লা উৎপাদন বন্ধের বিষয়টি একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। উৎপাদনশীল ১৩১৪ নম্বর কোল ফেইসে উত্তোলনযোগ্য মজুদ কয়লা শেষ হয়ে যাওয়ায় ২১ জানুয়ারি থেকে খনির উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। 

তিনি বলেন, একটি ফেইসের কয়লা উত্তোলন শেষ হলে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি সরিয়ে নিয়ে নতুন ফেইসে স্থাপনের জন্য ৪০ থেকে ৪৫ দিন সময় লাগে। এছাড়া এসময়ে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ক্রটিবিচ্যুতি ধরা পড়লে মেরামতের জন্য বাড়তি সময়ের প্রয়োজন হয়। এজন্য কয়লার উৎপাদন সাময়িক বন্ধ থাকে।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৯, ২০১৯
জিপি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14