ঢাকা, বুধবার, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

বিদ্যুৎ অপচয় রোধে সরকার গুরুত্ব দিচ্ছে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬২৭ ঘণ্টা, জুলাই ১৩, ২০১৭
বিদ্যুৎ অপচয় রোধে সরকার গুরুত্ব দিচ্ছে নির্মাণ ও গৃহসজ্জা শিল্প সংশ্লিষ্ট পণ্যের চারটি আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী উদ্বোধনে বক্তব্য রাখেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল ইসলাম হামিদ- ছবি: দীপু মালাকার

ঢাকা: সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদনের পাশাপাশি বিদ্যুৎ অপচয় রোধে গুরুত্ব দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) সকালে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায়  (আইসিসিবি) আয়োজিত নির্মাণ ও গৃহসজ্জা শিল্প সংশ্লিষ্ট পণ্যের চারটি আন্তর্জাতিক প্রদর্শনীর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

ফিউচারেক্স ট্রেড ফেয়ার অ্যান্ড ইভেন্টস প্রাইভেট লিমিটেড ও এফ টাচ ইভেন্টস লিমিটের সঙ্গে চারটি প্রদর্শনী আয়োজন করে এএসকে ট্রেড অ্যান্ড এক্সিবিশনস প্রাইভেট লিমিটেড।


নির্মাণ ও গৃহসজ্জা শিল্প সংশ্লিষ্ট পণ্যের চারটি আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী- ছবি: দীপু মালাকার
প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার যখন ক্ষমতাগ্রহণ করে তখন সারা দেশে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হতো মাত্র সাড়ে তিন হাজার মেগাওয়াট। কিন্তু গত ৭-৮ বছরে আমরা তা ১৪-১৫ হাজারে মেগাওয়াটে পরিণত করেছি। এছাড়া আমরা আরও আশা করছি আগামী ২০ বছরের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন চলে যাবে ৪০ হাজার মেগাওয়াটে। তবে আমরা এখন বিদ্যুৎ উৎপাদনের পাশাপাশি বিদ্যুৎ অপচয় রোধেও গুরুত্ব আরোপ করছি।

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী জিনিসপত্র বানানোর জন্য বৈদ্যুতিক জিনিসপত্র উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলোকে আহ্ববান জানিয়ে তিনি বলেন, আপনারা বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী বৈদ্যুতিক জিনিসপত্র বানানোর দিকে আরও জোর দিন। যাতে করে সর্বোচ্চ পরিমাণে আমরা বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী হতে পারি। তবে পণ্যের মান অবশ্যই বেস্ট কোয়ালেটির হতে হবে, না হলে বাজারে তা টিকবে না।

এ সময় আয়োজিত চারটি আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী সম্পর্কে নসরুল হামিদ বলেন, দেশের বাজারের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে বরাবরই স্বাগত জানাই। আমি আশা করবো এই প্রদর্শনীগুলো বিভিন্ন ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানকে চমৎকার এবং ফলপ্রসূ অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে এক জায়গায় একত্রিত করবে।
নির্মাণ ও গৃহসজ্জা শিল্প সংশ্লিষ্ট পণ্যের চারটি আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী- ছবি: দীপু মালাকার
প্রদর্শনীতে রয়েছে নির্মাণ অবকাঠামো, কাঠ, লাইটিং এবং ইন্টেরিয়র এক্সটেরিয়র সংশ্লিষ্ট শিল্পের সর্বাধুনিক উদ্ভাবন, প্রযুক্তি ও পণ্য প্রদর্শন। ১৩ জুলাই থেকে শুরু হওয়া তিনদিন ব্যাপী এই চারটি আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী শেষ হবে আগামী ১৫ জুলাই। দেশি-বিদেশি কোম্পানিসহ সর্বমোট ২০০টি কোম্পানি এই প্রদর্শনীগুলোতে অংশগ্রহণ করেছে।

প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য এই চারটি আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী খোলা থাকবে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ২০০টি কোম্পানির প্রতিনিধিসহ প্রদর্শনী সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গরা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১২২৭ ঘণ্টা, জুলাই ১৩, ২০১৭
এমএ/জিপি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa