ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৩০ মে ২০২৪, ২১ জিলকদ ১৪৪৫

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

সুন্দরবনমুখী জনযাত্রা ১০ মার্চ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬২৯ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৬
সুন্দরবনমুখী জনযাত্রা ১০ মার্চ ছবি : শাকিল/বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা: সুন্দরবনের জন্য হুমকি রামপাল ও ওরিয়ন বিদ্যুৎ প্রকল্প বন্ধের দাবিতে ১০ মার্চ সুন্দরবনমুখী জনযাত্রা করবে তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি।

একই সঙ্গে সুন্দরবন বিধ্বংসী সব ধরনের অপতৎপরতা বন্ধের দাবি জানানো হয়েছে।



শনিবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির (ডিআরইউ) এক সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ এ ঘোষণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, পরিবেশ ধ্বংসকারী এ ধরনের প্রকল্প বন্ধের দাবিতে ১৫ ফেব্রুয়ারি (সোমবার) ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে এবং ২৭ ফেব্রুয়ারি শনিবার সারা দেশে প্রতিবাদ ও দাবি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে ৫ মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় হবে।   এরমধ্যে অবস্থার পরিবর্তন না হলে আগামী ১০ থেকে ১৫ মার্চ ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সুন্দরবনমুখী জনযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে।

অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন, প্রাণ-বৈচিত্রের অসাধারণ আধার এই সুন্দরবন। প্রাকৃতিক দুর্যোগের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মানুষের জন্য সবচাইতে শক্তিশালী প্রাকৃতিক রক্ষা বর্ম সুন্দরবন; এটা আছে বলেই প্রতিটি প্রাকৃতিক দুর্যোগে দেশের লাখ লাখ মানুষের জীবন রক্ষা পায়।

‘সুন্দরবন বিনষ্ট হওয়া মানে লাখ লাখ মানুষের জীবিকা হারানো, উপক‍ূলীয় অঞ্চলের কয়েক কোটি মানুষকে মৃত্যু ও ধ্বংসের হুমকির মুখে ঠেলে দেওয়া। একদিকে রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র করে এই অনবায়নযোগ্য বিশাল আশ্রয় সুন্দরবন হত্যার আয়োজন চলছে, অন্যদিকে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র সামনে রেখে দেশের ভূমিদস্যুদের নানারকম প্রকল্প তৈরি করা হচ্ছে,’ অভিযোগ করেন তিনি।

আনু মুহাম্মদ বলেন, রামপাল প্রকল্প সামনে রেখে ওরিয়নের কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, শিপইয়ার্ড, সাইলো, সিমেন্ট কারখানাসহ নানা বাণিজ্যিক ও দখলদারী অপতৎপরতা বাড়ছে।   তাই এ ধরনের পরিবেশ বিধ্বংসী প্রকল্প বন্ধের জন্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

সংবাদ সম্মেলনে রাজনীতিক রুহিন হোসেন প্রিন্স, বজলুর রশীদ ফিরোজ, জোনায়েদ সাকী, প্রকৌশলী কল্লোল মোস্তফা, আজিজুর রহমান, জাহাঙ্গীর আলম ফজলু, বহ্নী শিখা জামালী, ফখরুদ্দিন কবির আতিক, মহিন উদ্দিন চৌধুরী লিটন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০৬, ২০১৬
এসএম/এমআইএইচ/এমএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।