ঢাকা, বুধবার, ৪ কার্তিক ১৪২৮, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

রাজনীতি

বিবাহিত-আসামিরাই ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী!

সাভার করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭০৩ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১
বিবাহিত-আসামিরাই ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী!

সাভার (ঢাকা): আশুলিয়া থানা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণার জন্য প্রার্থীদের জীবনবৃত্তান্ত আহ্বান করেছে ঢাকা জেলা কমিটি। দীর্ঘ সাত মাস আগে এই কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।

 

ইতোমধ্যে বিভিন্ন পদসহ সভাপতি পদে প্রার্থীতার জন্য জীবনবৃত্তান্ত জমা দিচ্ছেন কর্মীরা।  

অভিযোগ উঠেছে, যারা জীবনবৃত্তান্ত জমা দিচ্ছেন, তাদের মধ্যে বিবাহিত ও হত্যা মামলার আসামিরাও আছেন।  

যেমন প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যার ঘটনায় চার্জশিটভুক্ত প্রধান আসামি নাদিম এবং পড়াশোনা বাদ দেওয়া বিবাহিত শাহারিয়ার আল মামুন জিতু এবার আশুলিয়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী। দুই একদিনের মধ্যেই তারা জীবনবৃত্তান্ত জমা দেবেন বলে জানা গেছে।

গত ১২ সেপ্টেম্বর নতুন কমিটি ঘোষণার জন্য পদ প্রার্থীদের জীবনবৃত্তান্ত দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়। সেই থেকেই সাবেক ছাত্রলীগও উড়ে এসে জুড়ে বসা এসব নেতারা নতুন করে পদ নেওয়ার জন্য নিজেদের প্রার্থী দাবি করছেন।

ইতোমধ্যে ডজন খানেক সভাপতি প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে। এর মধ্যে আসামি নাদিম, বিবাহিত শাহারিয়ার আল মামুন জিতু, পাপ্পু, আরিফ, জিহাদ, মোবারক, মাসুদ, তানভীর, রবিন, লখিল ও রনি। তবে তানভীর ও রবিনের ছাত্রলীগে ক্লিন ইমেজ রয়েছে বলে জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আশুলিয়ার সুবন্দি এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে নাদিম ২০১৫ সালে থানা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পান। এরপরের বছরই পূর্ব শত্রুতার জেরে শাহিন নামে এক যুবককে ২০১৬ সালের ২৫ আগস্ট গুলি ও কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের মা বাদী হয়ে পরের দিন মামলা (নম্বর-১২৬) দায়ের করেন। পরে গ্রেফতার হয়ে কয়েক বছর জেলও খাটেন এই নেতা। অবশেষ সিআইডি তদন্ত করে চলিত বছরের ২৫ জুলাই ছাত্রলীগ নেতা নাদিমকে সেই মামলার প্রধান আসামিসহ চিহ্নিত সন্ত্রাসী উল্লেখ করে তদন্ত প্রতিবেদনও জমা দেন। এদিকে কয়েক বছর জেল খাটার পর সম্প্রতি জামিনে বের হলেও বাদ দিয়ে দেন নিজের পড়ালেখা। কয়েক বছর ধরে নেই ছাত্রত্ব। নতুন কমিটি হওয়ার খবর পেয়েই চার্জশিটভুক্ত প্রধান আসামি থানা ছাত্রলীগের সভাপতি পদপ্রার্থী।

অন্যদিকে, শিমুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিলেন জিতু। উচ্চ মাধ্যমিকের গণ্ডি পার করে বিবিএতে ভর্তি হলেও পড়ালেখা বন্ধ করে দিয়েছেন কয়েক বছর আগে। আবার সম্প্রতি এক বছর আগে গোপনে বিয়েও করেছেন তিনি। তার শ্বশুর বাড়ি আশুলিয়ার নলাম এলাকায়। তবে থানা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি করার খবর পাওয়ার পর থেকে তিনিও ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী।

ছাত্রলীগের একাধিক সাবেক নেতাকর্মীরা অভিযোগ করে বলেন, বিবাহিত, ছাত্রত্ব নেই, কখনো ছাত্রলীগের সঙ্গে জড়িত না ও চার্জশিটভুক্ত আসামিরা যদি ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসে তাহলে কমিটি বিতর্কের মধ্যে পড়ে যাবে। এছাড়াও গঠনতন্ত্রে স্পষ্ট করেই বলা আছে, বিবাহিত বা ছাত্রত্ব নেই এমন কেউ পদে তো দূরের কথা সদস্য হতে পারবে না। আর চার্জশিটভুক্ত হত্যা মামলার প্রধান আসামির সভাপতি পদে আসা সম্ভব নয়। ছাত্রলীগে ত্যাগী ও যোগ্য লোকদের নিয়ে আসার আহ্বান জানান তারা।

এ ব্যাপারে চার্জশিটভুক্ত হত্যা মামলার প্রধান আসামি নাদিম বাংলানিউজকে জানান, ছয় মাস আগে তিনি জামিন পেয়েছেন। সাবেক কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। থানা ছাত্রলীগের সভাপতি পদের জন্য এখনও জীবনবৃত্তান্ত জমা দেননি। তবে জমা দেবেন।

হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে তিনি বলেন, রাজনৈতিক কারণেই সেই ঘটনা ঘটেছে। তবে নতুন করে রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার কথাও জানান তিনি।

তবে শাহারিয়ার আল মামুন জিতুর নিজের প্রার্থীতার কথা স্বীকার করে বলেন, দু-একদিনের মধ্যেই জীবনবৃত্তান্ত জমা দেবেন। তবে পড়ালেখা বন্ধ থাকলেও নতুন করে ভর্তি হবেন বলেও জানান ওই নেতা।

ঢাকা জেলা উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, ছাত্রলীগের কমিটিতে যোগ্য লোকদের নিয়ে আসা হবে। বিবাহিত বা ছাত্রত্ব নেই এমন কেউ এই কমিটিতে জায়গা পাবে না। আর কোনো হত্যা মামলার আসামির পদ বা সদস্য হওয়ার সুযোগও নেই বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১
এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa