ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

রাজনীতি

আবার বেকায়দায় এরশাদ!

মান্নান মারুফ, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৪৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১০
আবার বেকায়দায় এরশাদ!

ঢাকা: আবারও বেকায়দায় পড়েছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। আদালত সপ্তম সংশোধনী বাতিলের রায় দেওয়ার পর সামরিক শাসক হিসেবে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের অভিযোগে তার বিচারের মুখোমুখি হওয়ার প্রেক্ষাপট প্রায় তৈরি।

তাই মহাজোটে থেকেও মহাবিপদে পড়েছেন এককালের দোর্দ- প্রতাপশালী এই রাজনীতিক ও সাবেক প্রেসিডেন্ট।

১৯৯০ সালে গণঅভ্যূত্থানের মুখে ক্ষমতা ছাড়ার পর গত দুই দশক বেশ ঝামেলাতেই পার করেছেন তিনি। সর্বশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঠিক আগে আগে মহাজোটে শরিক হয়ে ভেবেছিলেন মিটে যাচ্ছে সব ঝামেলা। উপরন্তু সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব নিয়ে শেষ জীবনটা সুখে পার করবেন।

কিন্তু সে আশার গুড়ে বালি পড়ে নষ্ট হয়েছে এরশাদের স্বপ্ন। হওয়া হয়নি মহাজোট সরকারের রাষ্ট্রপতি। এরপর মধ্যপ্রাচ্যে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হওয়ার সম্ভাবনা জেগে উঠেও আবার হুট করে তা হারিয়ে গেছে।

এখন কিছু পাওয়া তো দূরের কথা, প্রশ্ন উঠছে তার রাজনীতিতে টিকে থাকার সম্ভাবনা নিয়েই।

সপ্তম সংশোধনী বাতিলের আদেশ দিয়েছেন আদালত। অবৈধ ঘোষণা করেছে ওই সংশোধনীর সবকিছু। তাই নতুন করে গ্যাঁড়াকলে পড়েছেন এরশাদ।

অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের অভিযোগে যে কোনো সময়ই মামলার পাঁকে আটকা পড়তে পারেন তিনি। আর মামলা হলে আবারও তার কপালে কারাবাস রয়েছে বলে মনে করছেন আইনজ্ঞরা।

এ পরিস্থিতিতে মহাজোট নেতা আওয়ামী লীগের ওপর নির্ভর করছে স্বৈরশাসকের তকমা পাওয়া এরশাদের ভাগ্য। সেক্ষেত্রে সরকারের কোনো দায়িত্ব পাওয়া তো দূরের কথা, আওয়ামী লীগের তল্পীবাহক হিসেবেই তাকে মহাজোটে থাকতে হবে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

তাই জাতীয় পার্টির একক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশের পরিকল্পনা আপাতত শিকেয় তুলে রাখার বিকল্প নেই এরশাদের । আগামীতে জাতীয় পার্টি একক দল হিসেবে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে বলে গত কিছুতদন ধরে  যে আওয়াজ এরশাদ ও তার অনুসারিরা দেওয়া শুরু করেছিলেন এখন আর তা শোনা যাচ্ছে না। সব মিলিয়ে এখন দল ও নিজেকে সামলাতেই ব্যস্ত এরশাদ।

এ প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য গোলাম হাবিব দুলাল বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘ক্ষমতায় থাকলে অনেক কিছু করা সম্ভব। যারা ক্ষমতায় থাকে তারা আবারও ক্ষমতায় আসার জন্য আধিপত্য বিস্তার  করতে চাইবে এটাই স্বাভাবিক। তবে এর মধ্যে থেকেই রাজনীতি করতে হবে। ’

তিনি আরও বলেন, ‘হাইকোর্ট সপ্তম সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করার ফলে আমাদের চেয়ারম্যান একা নয়, স্বাভাবিকভাবেই আমাদের মধ্যেও কিছুটা সন্দেহ সংশয় জেগেছে। তবে বিষয়টি নিয়ে আমরা খুব বেশি চিন্তিত নই। জনগণ ঠিক করবে কে ভাল আর কে খারাপ। তবে আমাদের সঙ্গে কারও কোনো দ্বন্দ্ব নেই। আমরা মহাজোটে আছি। মহাজোটেই থাকবো। ’

রাজনীতি বিশ্লেষকরা মনে করছেন, রাজনৈতিক গ্যাঁড়াকলে পড়ে এরশাদকে যেমন বিএনপির ধমক খেয়েও চুপ থাকতে হয়েছে, তেমনি এবার আওয়ামী লীগের ধমক খেয়ে হজম করার সময় এসেছে। বাকি জীবন হওতো এভাবেই পার করতে হবে তার।
 
জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাহমুদ হাসান (অব.) বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘পরিস্থিতি প্রতিকুল হলেও তাতে আমাদের চেয়ারম্যান মোটেও ভীত নন। যা হবার আইনের মাধ্যমেই হবে। তাছাড়া সরকারের সঙ্গে আমাদের সম্পর্কের কোনো অবনতি তো ঘটেইনি, আরও ভাল হয়েছে। ক’দিন আগে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের চেয়ারম্যানের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়েছে। ’

জাতীয় পার্টির অপর প্রেসিডিয়াম সদস্য হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর .কম.বিডিকে বলেন, ‘দুর্বল হলে সবাই একটু চাপ দেয়। আর সব মানুষই তার কর্তৃত্ব রাখতে চায়। আওয়ামী লীগ তাদের ক্ষমতা স্থায়ী করতে তাদের ‘পলিসি’ কাজে লাগাবে এটাই স্বাভাবিক। ’

সপ্তম সংশোধনী বাতিল হওয়ায় জাতীয় পার্টি তথা দলের চেয়ারম্যানের জন্য একটা খারাপ সময় যাচ্ছে বলে স্বীকার করেন তিনি।

তবে সরকারের সঙ্গে জাতীয় পার্টির সর্ম্পক ভালো বলে এতে দল ক্ষতিগ্রস্ত হবে না বলেই মত দেন হাফিজ উদ্দিন।

বাংলাদেশ সময়: ১২৪০ ঘণ্ট সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১০

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa