ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৪ আগস্ট ২০২০, ১৩ জিলহজ ১৪৪১

রাজনীতি

সরকার খালেদার শারীরিক অবস্থা নিয়ে রসিকতা করছে: রিজভী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-০৮ ১১:৪৫:০২ পিএম
সরকার খালেদার শারীরিক অবস্থা নিয়ে রসিকতা করছে: রিজভী সংবাদ সম্মলনে বক্তব্য রাখছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: সরকার মিথ্যা মামলায় ৬৬৯ দিন যাবত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি করে রেখেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। 

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা চরম আকার ধারণ করেছে। তাকে  কারামুক্ত করে উন্নত চিকিৎসা না করালে জীবনহানির ঝুঁকি রয়েছে।

সরকার খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে রীতিমত রসিকতা করছে।

রোববার (০৮ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নিতে তার ভাই-বোন ও স্বজনরা সাক্ষাৎ করার আবেদন করলেও কারা কর্তৃপক্ষ অনুমতি দিচ্ছেন না। গত ২৫ দিন হলো দেশনেত্রীর সঙ্গে তার স্বজনদের সাক্ষাৎ বন্ধ করে দিয়েছে সরকার। গত ১৩ নভেম্বরের পর খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। ফলে দেশনেত্রীকে নিয়ে আমরা চরম শঙ্কায় আছি। পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে সাক্ষাতের জন্য বারবার আবেদন করার পরেও কারা কর্তৃপক্ষ তাতে কোনো কর্ণপাত করেনি। কারাবিধি অনুযায়ী সাত দিন পরপর বন্দিদের সঙ্গে সাক্ষাতের নিয়ম রয়েছে।

তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি মানুষ জানে, সরকারের কারসাজিতেই দেশনেত্রীর জামিন নিয়ে টালবাহানা করা হচ্ছে। দেশনেত্রীকে বাঁচাতে হলে এখনই জামিন ও সুচিকিৎসা দরকার। তাই আমরা জনগণের পক্ষ থেকে সরকারকে বলতে চাই-দেশনেত্রীর জামিন নিয়ে আর কোনো টালবাহানা করবে না। তার জামিনে কোনো বাধা দেবেন না।
দেশের রাষ্ট্রায়াত্ত পাটকল শ্রমিকরা দীর্ঘদিন ধরে মজুরি না পেয়ে অর্থসংকটে রয়েছেন উল্লেখ করে রিজভী বলেন, পরিবার-পরিজনদের মুখের আহার জোটাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে ওই শ্রমিকদের। একদিকে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি অন্যদিকে শ্রমিকদের দাবি বাস্তবায়নে সরকারের উদাসীনতা এক অসহনীয় পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। আগামী ১০ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে পাটকল শ্রমিক কর্মচারীরা স্ব স্ব মিলগেটে আমরণ অনশন কর্মসূচি করবে শ্রমিকরা। বিএনপি অবিলম্বে শ্রমিকদের সব দাবি মেনে নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছে। শ্রমিকদের এ দাবির প্রতি বিএনপির পূর্ণ সমর্থন থাকবে।

রিজভী অভিযোগ করে বলেন, রোববার দেশব্যাপী দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি চলাকালে বিভিন্ন স্থানে আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী হামলা ও নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করেছে। ঢাকা মহানগর দক্ষিণে বিক্ষোভ কর্মসূচি চলাকালে আওয়ামী লীগ ক্যাডারদের হামলায় কোতোয়ালি থানা বিএনপি নেতা লিমন, চকবাজার থানা বিএনপির নেতা আতিক, মঈন, হৃদয়সহ পাঁচ জন এবং শাহবাগ থানার আবদুর রশিদ, সুমন, শাকিল, সুজনসহ ১০ থেকে ১২ জন আহত ও শাহবাগ থানা বিএনপি নেতা মো. রফিক নামে একজনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।  

এছাড়া বিক্ষোভ কর্মসূচি চলাকালে সিরাজগঞ্জ শহর বিএনপির মিছিলে আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা হামলা করেন। এ হামলায় সিরাজগঞ্জ জেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শামীমসহ আট নেতাকর্মী গুরুতর আহত হয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন রিজভী।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৮৪৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯
এমএইচ/আরআইএস/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa