bangla news

উন্নয়নের গণতন্ত্রের নাম অন্য কোথাও শুনিনি: রব

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১০-১৮ ৩:৩৮:২৭ পিএম
সভায় ড. কামাল হোসেন, আ স ম আব্দুর রবসহ অতিথিরা, ছবি: শাকিল আহমেদ

সভায় ড. কামাল হোসেন, আ স ম আব্দুর রবসহ অতিথিরা, ছবি: শাকিল আহমেদ

ঢাকা: জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আব্দুর রব বলেছেন, দেশে আইনের শাসন নেই। কোনো সরকার নেই। প্রশ্ন হতে পারে, সরকার নেই তাহলে দেশে চলছে কীভাবে। জবাব হচ্ছে, আমাদের নির্বাচন কমিশন তো নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেছিল ৩০ ডিসেম্বর। কিন্তু সেদিন তো ভোট হয়নি। ভোট হয়েছে ২৯ ডিসেম্বর রাতে। তাহলে এটা কোন সরকার, এটা কার সরকার, জনগণের নির্বাচিত সরকার? এটা কোনো সরকারই না। এটা হলো ডাকাতের সরকার।

শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) দুপুর ১২টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন হলে মুক্তিজোট আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য  করেন।

আব্দুর রব বলেন, দেশে উন্নয়নের গণতন্ত্রও শুনতে হচ্ছে। অথচ আজ পর্যন্ত এ নামে কোনো গণন্ত্রের নাম অন্য কোথাও শুনিনি। এখন উন্নয়নের জুয়াতন্ত্র চলছে। উন্নয়নের সন্ত্রাসতন্ত্র চলছে। রাষ্ট্রের সব প্রতিষ্ঠান আজ ধ্বংসের পর্যায়ে। এই স্বৈরাচারী সরকার এক ব্যক্তির ইচ্ছায় যা খুশি তাই  করছে। এটা চলতে পারে না।

যুবলীগের সম্রাট কাকে কাকে ক্যাসিনোর টাকার ভাগ দিয়েছেন, তা মানুষ শুনতে চায় উল্লেখ করে আসম রব বলেন, কেন তাকে গ্রেফতার করতে দেরি হলো? বাজারে অনেক গুজব আছে। অকে মন্ত্রী, শত শত এমপির  নাম আছে। আপনারা দেশের মানুষকে সন্দেহের মধ্যে থাকতে দেবেন না। জিনিসটা পরিষ্কার করেন। সম্রাটকে বলতে দিন কাদের কাদের তিনি টাকা দিয়েছেন। এটা আমরা জানতে চাই।

সভায় গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, বর্তমান সরকার মানুষের কাছে ঘৃণিত। সবাই বলতে পারেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে মানুষ কেন রাস্তায় নামছে না। গাদ্দাফি ও সাদ্দাম হোসেনের  সময় মানুষ কতবার নেমেছে খোঁজ করেন। বাংলাদেশের সরকারও একটা অত্যাচারিত সরকার। তারা যে রাজনৈতিক সহিংসতা নিয়ে এসেছে, তা ভাঙতে কষ্ট হবে, কিন্তু ভাঙা যাবে।

তিনি বলেন, দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়াকে আজ কারাবন্দি করে রাখা হয়েছে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে। তাকে নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানাচ্ছি। একইসঙ্গে এটাও বলছি, আবরারের বাবা তার ছেলে হত্যার বিচার পাবেন কি-না জানি না। কিন্তু আওয়ামী লীগের ১১ বছরে আমি আমার বাবা হত্যার বিচার পাইনি।

ড. রেজা বলেন, ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে আমরা গণস্বাক্ষর কর্মসূচি ঘোষণা করব। যার নাম দেওয়া হবে ‘রক্তের অক্ষরে শপথের স্বাক্ষর’। একদিন এদেশে গণতন্ত্র ফেরত আসবে- এই ওয়াদা আমি করছি।

‘নির্বাচন কেন্দ্রীক সংকট সমাধানে জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজন ও প্রাসঙ্গিকতা’ শীর্ষক এ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মুক্তিজোটের জাতীয় সমন্বয়ক এ আর শিকদার।

প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্যোক্তা ড. কামাল হোসেন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জেএসডির সহ সভাপতি তানিয়া রব, মুক্তিজোটের জাতীয় স্টিয়ারিং কমিটির প্রধান মো. সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩৫ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৮, ২০১৯
এমএইচ/টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-10-18 15:38:27