bangla news

আ’লীগে কোনো দূষিত রক্ত থাকবে না: কাদের

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১০-১৩ ৬:১৮:০৩ পিএম
বক্তব্য রাখছেন ওবায়দুল কাদের

বক্তব্য রাখছেন ওবায়দুল কাদের

রাজশাহী: আওয়ামী লীগের ভেতরে কোনো দূষিত রক্ত আর থাকবে না বলে মন্তব্য করেছেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রোববার (১৩ অক্টোবর) বিকেলে রাজশাহী জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে আওয়ামী লীগের রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিনিধিসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলের অপকর্মকারী সতর্ক করে দিয়ে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অ্যাকশন শুরু হয়ে গেছে। তার নির্দেশে কেবল ঢাকা নয়, সারাদেশেই এ অভিযান চলবে। সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজরাও এ অভিযান থেকে রেহাই পাবে না। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু আইন করে নিষিদ্ধ করলেও জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখলের পর ক্যাসিনো, মদ, জুয়ার বৈধতা দিয়েছিলেন। 

‘স্বাধীন বাংলাদেশে এই প্রথম নিজের দলের ভেতর থেকেই শুদ্ধি অভিযানের মতো দুঃসাহস দেখিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নিজের দলের অপরাধীকে শাস্তি দেওয়ার মতো সৎ সাহস আর কোনো শাসক দেখাতে পারেননি। আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলেও এবার বিশুদ্ধ নেতা নির্বাচন করা হবে।’

আওয়ামী লীগের নেতায় নেতায় দ্বন্দ্ব নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ঘরের মধ্যে ঘর করবেন না। মশারির মধ্যে মশারি খাটাবেন না। দুঃসময়ের ত্যাগী নেতাকর্মীদের কোণঠাসা করে আওয়ামী লীগ টিকে থাকতে পারে না। আজ বসন্তের কোকিলরা যদি দলের নেতৃত্ব নেয়, তারা যদি প্রাধান্য পায়, আবারও দুঃসময় আসতে পারে। আবারও দুর্যোগ আসতে পারে, অমানিশা আসতে পারে। সে সময় হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়েও এই সুবিধাবাদী অপকর্মকারীদের খুঁজে পাওয়া যাবে না।

ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল সামনে রেখে দলের তৃণমূল নেতাদের চাঙা করতেই বিভাগীয় পর্যায়ের এ প্রতিনিধিসভা। 

সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর সরকার দ্রুত ব্যবস্থা নিলেও বিএনপি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উসকানি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম। 

সভায় দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক তৃণমূলকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা আত্মীয়-স্বজন সেজে দলে অনুপ্রবেশ করছে। তাদের ভিড়ে এখন কোণঠাসা দলের ত্যাগী নেতারাই। তাই এদের রুখে দিতে হবে।   

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানান, দলে অনুপ্রবেশের পর বিত্তবৈভবের মালিক হওয়া ব্যক্তিরাও চলমান শুদ্ধি অভিযান থেকে ছাড় পাবে না। সময়মতো সব দুর্নীতিবাজ এর আওতায় আসবে।

আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী ও রাজশাহী মহানগর সভাপতি এবং সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। 

সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য প্রফেসর ড. সাইদুর রহমান খান, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা এবং সদস্য মেরিনা জাহান।

সভায় পরারাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু এমপি, পাবনার এমপি গোলাম ফারুক প্রিন্স, রাজশাহীর এমপি এনামুল হক, আয়েন উদ্দিনসহ বিভাগের অন্য আসনের সংসদ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও প্রতিনিধি সভায় রাজশাহী বিভাগের সব জেলা, উপজেলা ও পৌর শাখার নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৩ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৩, ২০১৯
এসএস/এএ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-10-13 18:18:03