ঢাকা, শনিবার, ৬ আশ্বিন ১৪২৬, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
bangla news

জিয়ার ভূমিকাকে উল্টোভাবে দেখানো হচ্ছে: ফখরুল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-০২ ৩:৫৮:৪৮ পিএম
‘আঁধারের সাথে দ্বন্দ্ব’ শীর্ষক স্মৃতিস্মারক ও দেয়ালিকা প্রদর্শনীর উদ্বোধনকালে বক্তৃতা করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: বাংলানিউজ

‘আঁধারের সাথে দ্বন্দ্ব’ শীর্ষক স্মৃতিস্মারক ও দেয়ালিকা প্রদর্শনীর উদ্বোধনকালে বক্তৃতা করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেছেন, তার দলের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে ভিলেন হিসেবে খলনায়ক হিসেবে পরিচিত করানো হচ্ছে। এটা সুপরিকল্পিত।

রোববার (২ জুন) দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের ন্যাশনাল রিসার্চ সেন্টার (এনআরসি) আয়োজিত ‘আঁধারের সাথে দ্বন্দ্ব’ শীর্ষক স্মৃতিস্মারক ও দেয়ালিকা প্রদর্শনীর উদ্বোধনকালে তিনি এ অভিযোগ করেন।

ফখরুল বলেন, আজকের প্রজন্ম জিয়াউর রহমান সম্পর্কে কিছুই জানে না। তাদের সামনে জিয়াউর রহমানকে উল্টোভাবে চিত্রায়িত করা হয়। যে বাচ্চারা ইংলিশ মিডিয়ামে পড়াশোনা করে, তাদের কাছ থেকে আমি শুনেছি সেখানে জিয়াউর রহমানকে ভিলেন হিসেবে, খলনায়ক হিসেবে দেখানো হয়। এটা অত্যন্ত সুপরিকল্পিত। তার (জিয়াউর রহমানের) মূল অবদানটি হচ্ছে (জাতিকে) আইডেন্টিটি (আত্মপরিচয়) দেওয়া এবং এতেই বাংলাদেশ টিকে আছে।
 
বিএনপির প্রতিষ্ঠাতাকে কটাক্ষকারীদের সমালোচনা করে ফখরুল বলেন, জিয়াউর রহমানের সত্তা নিয়ে তারা কটাক্ষ করে। সততা নিয়েও কটাক্ষ করে। অথচ আমরা শুনি বিদেশে সম্পদের পাহাড়ের স্তুপ জমা হয়েছে, অর্থবৃত্তের, সম্পদের। বাড়িঘর হচ্ছে ৫-৬টা করে। এটা কোনো আলোচনার মধ্যে নেই।

জাতি সংকটকাল পার করছে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এখন অত্যন্ত দুঃসময় যাচ্ছে, একটা সংকটকাল। এই সংকটকালকে অনেকে বলে বিএনপির সংকট। আসলে বিএনপির কোনো সংকট নয়, এ সংকট জাতির। বাংলাদেশের জাতি তার সমস্ত অর্জনগুলোকে হারিয়ে ফেলছে।
 
তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা অর্জন করেছিলাম। এখন কি আমরা বাংলাদেশকে স্বাধীন বলতে পারবো? পারি না, কারণ বাংলাদেশ এখন নতজানু হয়ে গেছে। গণতন্ত্র অর্জন করেছিলাম ১৯৭৫ সালে, নতুন করে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। মূল্যবোধগুলো একেবারে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। স্বাধীন বিচার বিভাগ কোথায়? কিচ্ছু নেই।
 
ফখরুল আরও বলেন, বিএনপিকে টিকিয়ে রাখা, জাতিকে টিকিয়ে রাখার মূলমন্ত্রটিই হলো জাতীয়তাবাদ। সুতরাং বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদের বাইরে অন্য কিছু চিন্তা করাটা আমাদের জন্য ভুল হবে। আজকে যিনি গণতন্ত্রের সংগ্রামের জন্য কারাগারে আছেন তাকে মুক্ত করতে হবে। যারা জিয়াউর রহমানকে ভালোবাসি, রাজনীতিকে  ভালোবাসি, জাতীয়তাবাদকে বিশ্বাস করি, আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে জনগণকে সম্পৃক্ত করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা।

সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমরা খুব স্পষ্ট করে এই সরকারকে বলতে চাই, অবিলম্বে এই নির্বাচন বাতিল করুন। নতুন নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটা সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় জনগণ তাদের যে ন্যায্য দাবি, সে দাবি আদায় করে নেবে।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি বাবুল তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য টিএস আইয়ুব প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫১ ঘণ্টা, জুন ০২, ২০১৯
এমএইচ/এইচএ/

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-06-02 15:58:48