ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

আওয়ামী লীগ

ডুমুরিয়া উপজেলায় প্রার্থী বাছাইয়ে অনিয়মের অভিযোগ

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১৯
ডুমুরিয়া উপজেলায় প্রার্থী বাছাইয়ে অনিয়মের অভিযোগ কেন্দ্রে পাঠানো আওয়ামী লীগ নেতার অভিযোগপত্র

খুলনা: খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাছাইয়ে অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন দলটির নেতা নূরউদ্দীন আল মাসুদ নেতা। তিনি ডুমুরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

এ বিষয়ে মাসুদ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে লিখিত অভিযোগও জমা দিয়েছেন।

৫ ফেব্রুয়ারি জমা দেওয়া লিখিত অভিযোগে তিনি বলেছেন, আসন্ন উপজেলা নির্বাচন উপলক্ষে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের নির্দেশ অমান্য ও গঠনতন্ত্রের সুনির্দিষ্ট ধারা লঙ্ঘন করে অনৈতিক উপায়ে প্রার্থী তালিকা করা হয়েছে।

এছাড়া তালিকা করতে গিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের কোনো বর্ধিত সভা পর্যন্ত ডাকা হয়নি। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে কোনো রকমের পরামর্শও করা হয়নি। এমনকি আমরা অজান্তেই তালিকাটি করা হয়েছে। তালিকায় আওয়ামী লীগের সদস্য নয় এমন লোককেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আর এই তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হয়।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে বা কোনো আন্দোলনে কখনই সম্পৃক্ত ছিলেন না অন্তর্ভুক্তরা। তালিকাটি আমার স্বাক্ষর পর্যন্ত নেওয়া হয়নি। ডুমুরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের হাজারো নেতাকর্মী এমন গঠনতন্ত্র বিরোধী কার্মকাণ্ডে বিক্ষুব্ধ হয়ে পড়েছেন।

তাই এ তালিকাটি বাতিল করে দলের ত্যাগী, বিশ্বস্ত ও পরীক্ষিত জনপ্রিয় নেতাদের মধ্য থেকে যে কাউকে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন দিলে আমাদের ভাবমূর্তি রক্ষা হবে।

এ বিষয়ে শুক্রবার (০৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টার দিকে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ বাংলানিউজকে বলেন, নূরউদ্দীন আল মাসুদ দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ। তার দু’টি কিডনি নষ্ট। তিনি হাসপাতালে ছিলেন। সেজন্য তার উপজেলা সভাপতি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি আমাকে বলেছেন তিনি তালিকা তৈরি করার সময় আসতে পারবেন না। আমি তার সঙ্গে কথা বলবো।

হারুনুর রশীদ বলেন, মাসুদের দেওয়া অভিযোগপত্র বিবেচনা করে কেন্দ্র যদি মনে করে আমাদের তালিকা ভুল, তাতে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে, আমরা তা মেনে নেবো।

যে তালিকা পাঠানো হয়েছে, তাতে আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যও নন এমন ব্যক্তি রয়েছেন- এ অভিযোগটি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা উপজেলা সভাপতি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ জানেন।

ডুমুরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে, তার মোবাইল নাম্বার বন্ধ পাওয়া যায়।

এদিকে, আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাছাইয়ের অনিয়মের পর মনোনয়ন প্রত্যাশী ও তাদের সমর্থকদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

প্রার্থী তালিকায় বাদ পড়া মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বাংলানিউজকে বলেন, কেন্দ্র থেকে পাঠানো নির্দেশনাপত্রে উল্লেখ রয়েছে, উপজেলার সব ইউনিয়ন সভাপতি-সম্পাদক ও উপজেলা কমিটির নেতাদের সমন্বয়ে একটি বর্ধিত সভা আহ্বান করতে হবে। ওই সভায় সকলের ঐক্যমতের ভিত্তিতে তিনটি নাম জেলা কমিটি বরাবর পাঠানো হবে। কিন্তু এখানে আমাদের এর কিছুই করা হয়নি। বরং যাদের নাম পাঠানো হয়েছে, তারা দলের একেবারেই নতুন মুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১৯
এমআরএম/টিএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa