ঢাকা, মঙ্গলবার, ১০ কার্তিক ১৪২৮, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

রাজনীতি

ঈদের পর মহাজোটের বিভাগীয় মহাসমাবেশ: শরিকরা জানে না

শামীম খান, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৫২ ঘণ্টা, আগস্ট ৩১, ২০১০
ঈদের পর মহাজোটের বিভাগীয় মহাসমাবেশ: শরিকরা জানে না

ঢাকা : যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে জনমত সংগঠিত করতে এবং বিএনপি-জামায়াত জোটের সরকারবিরোধী আন্দোলন রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে ঈদের পরপরই কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামবে ক্ষমতাসীন মহাজোট। এরই মধ্যে বিভাগীয় পর্যায়ে জোটগতভাবে মহাসমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে জোটের প্রধান শরিক আওয়ামী লীগ।

তবে শরিক দলগুলোর দাবি এ কর্মসূচির ব্যাপারে এখনো কিছুই জানেনা তারা।    

উল্লেখ্য, গত ১৬ জুলাই আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় মহাজোটকে আরো শক্তিশালী করার ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা হয়। এরই অংশ হিসেবে বিভাগীয় শহরে মহাজোটের মহাসমাবেশ করার সিদ্ধান্ত হয় ওই সভায়।

বিগত নির্বাচনের পর এ পর্যন্ত মহাজোটগতভাবে বৃহদাকারে এটাই প্রথম কর্মসূচি হলেও এ সমাবেশ নিয়ে শরিকদের মধ্যে দুই ধরণের মত রয়েছে।

সূত্র জানায়, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ইস্যুতে জাতীয় পার্টি জোরেসোরে কিছু করতে চায় না। শুরু থেকেই দলটি এ বিষয়টি কৌশলে এড়িয়ে চলছে। প্রকাশ্যে কিছু বলছে না। এদিকে, মহাজোটের অংশ ১৪ দলের শরিকদের কেউ কেউ জাতীয় পার্টির সঙ্গে জোটগত কর্মসূচিতে যেতে রাজি নয়।
   
১৬ জুলাইয়ের সভার সিদ্ধান্তে বলা হয়, ‘যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে জনমত সংগঠিত করা এবং তাদের ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় মহাজোটকে আরো শক্তিশালী করা হবে। এছাড়া­ মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের সকল রাজনৈতিক দল, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে সুদৃঢ় ঐক্য গড়ে তোলা হবে। ঈদের পর পরই মহাজোটের পক্ষ থেকে সাত বিভাগে মহাসমাবেশ করা হবে। এই মহাসমাবেশে প্রধানমন্ত্রী ও মহাজোট নেত্রী শেখ হাসিনাসহ জোটের শীর্ষ নেতরা বক্তব্য রাখবেন। ’

সভার পর দিন ১৭ জুলাই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকারমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সংবাদ সম্মেলনে এসব সিদ্ধান্তের কথা জানান।

তবে সিদ্ধান্তের পর প্রায় দেড় মাস পার হলেও এ পর্যন্ত বিষয়টি নিয়ে কোনো ধরণের তৎপরতা লক্ষ করা যায়নি। এমনি কি আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শরিকদলগুলোকেও কিছু জানানো হয়নি। বিষয়গুলো নিয়ে দ্রুতই শরিকদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে কি না সে ব্যাপারেও দলের কেউ কিছু বলতে পারছেন না।
 
মহাজোটের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘মহাসমাবেশের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সঙ্গে আমাদের কোনো আলোচনা হয়নি, আমাদের কিছু জানানো হয়নি। মহাসমাবেশের কথা পত্রিকায় দেখেছি। ’ তবে এ ধরণের কর্মসূচি ও জোটগত তৎপরতা থাকা উচিত।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন ‘এ ব্যাপারে কোনো আলোচনা হয়নি আমাদের কিছু জানানোও হয়নি। ’

অপর সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুও একই মন্তব্য করেন। তবে এ ধরনের কর্মসূচিতে জাতীয় পার্টি থাকবে কিনা জানতে চাওয়া হলে জাতীয় পার্টির অপর প্রেসিডিয়াম সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, ‘প্রস্তুাব এলে তখন সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আমরা চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেবো। ’

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ এর সাধারণ সম্পাদক শরিফ নুরুল আম্বিয়া বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে জানান, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মহাসমাবেশের ব্যাপারে তাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগই করা হয়নি। ’

তবে এই ইস্যুতে অবশ্যই কর্মসূচি দিয়ে মাঠে থাকা উচিত বলে মত দেন তিনি।  

ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) এর সাধারণ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এনামুল হক বলেন, ‘এ বিষয়ে কিছু জানি না। আওয়ামী লীগই বলেছিলো ঈদের পর মহাসমাবেশ করবে। এটা পত্রিকার মাধ্যমে জেনেছি। তারা আমাদের দলকে বা ১৪ দলীয় জোটকে কিছু জানায়নি। ’

তিনি বলেন, ‘আমরা কর্মসূচির ভিত্তিতে ১৪ দল করেছিলাম। আওয়ামী লীগ পরে জাতীয় পার্টিকে নিয়ে মহাজোট করেছে। মহাজোটের কর্মসূচিতে ন্যাপ থাকবে কিনা ভেবে চিন্তে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। ’

একই বিষয়ে কথা হয় গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক নুরুর রহমান সেলিমের সঙ্গে। বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে তিনি বলেন, ‘আমাদেরকে বিষয়টি জানানো হয়নি। তাছাড়া এমন মহাসমাবেশ করতে মহাজোটগতভাবে যাবো কিনা যখন বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে তখন সিদ্ধান্ত নেবো। ’

কমিউনিস্ট কেন্দ্রের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অসিত বরণ রায় বলেন, ‘আমরা ১৪ দল নিয়ে আছি। মহাজোটগতভাবে কর্মসূচিতে যাবো কিনা প্রস্তাব এলে সিদ্ধান্ত নেবো। ’

অন্যান্য দলের প্রতিক্রিয়ার বিষয়টি বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডির পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম হানিফের কাছে তুলে ধরলে তিনি বলেন, ‘এটা সত্য যে বিষয়টি নিয়ে এখনো জোটের শরিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা হয়নি। আশা করি,  ঈদের পর এ বিষয়ে জোটোরের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। ’

কবে নাগাদ মহাসমাবেশগুলো শুরু হতে পাবে এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলতে না পারলেও সেপ্টেম্বরে হচ্ছে না বলে মাহবুব-উল-আলম হানিফ মন্তব্য করেন।

বাংলাদেশ সময় ১০০০ ঘণ্টা, আগস্ট ৩১, ২০১০

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa