bangla news

‘নিরপেক্ষ’ থাকতে সরকারি কর্মকর্তাদের ‘বার্তা’ দিলেন অলি

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-১১-২২ ৩:১১:৫৮ পিএম
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন এলডিপি সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ। ছবি: বাংলানিউজ

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন এলডিপি সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সরকারি কর্মকর্তাদের ‘নিরপেক্ষ’ ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন ২০ দলীয় জোটের প্রধান সমন্বয়ক ও লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) সভাপতি ড. কর্নেল (অব.) অলি আহমদ।

তিনি বলেছেন, যে সরকারি কর্মকর্তারা ১০ বছর এ সরকারকে টিকিয়ে রেখেছেন, তারা আসন্ন নির্বাচনে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করলে পরবর্তীতে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না। সবার প্রতি সমান আচরণ করা হবে।

বৃহস্পতিবার (২২ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর বনানীর ফিউশন হান্টে এলডিপি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অলি আহমদ এ কথা বলেন।

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের এ সমন্বয়ক বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে আগামী দিনে আমরা নির্বাচিত হলে কিছু বিষয় গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করবো। যে সরকারি কর্মকর্তারা ১০ বছর এ সরকারকে টিকিয়ে রেখেছেন, তারা আসন্ন নির্বাচনে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করলে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না। সবার প্রতি সমান আচরণ করা হবে। যেসব সরকারি কর্মকর্তা ২৪ ঘণ্টা দায়িত্ব পালন করেন বা পালনের জন্য প্রস্তত থাকতে হয়, তাদের জন্য বেতনের ক্ষেত্রে বিশেষ সুবিধা দেওয়া হবে। পুলিশ বাহিনীর জন্য বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে পৃথক হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ নির্মাণ করা হবে। এতে তাদের সুচিকিৎসা নিশ্চিত হবে এবং তাদের মেধাবী ছেলে-মেয়েদের স্বল্প বেতনে ডাক্তারি পড়ার সুযোগ হবে।

অলি আহমদ বলেন, আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় সর্বস্তরের সরকারি, আধা-সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দলীয় প্রভাবমুক্ত হয়ে নিজের বিবেকের তাড়নায় জনগণের ভোটের অধিকার নিশ্চিত করবেন। কোনো রাজনৈতিক দলের সেবাদাস হিসেবে দায়িত্ব পালন করা মুনষ্যত্বের কাজ হবে না।

আসন্ন নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ২০ দলীয় জোট সমন্বয়ক বলেন, মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে আসন ভাগাভাগির নামে বানরের পিঠা ভাগ হবে না। বরং যোগ্য ও জনগণের মনের মানুষদেরই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য মনোনয়ন দেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। জনগণের দ্বারা নির্বাচিত প্রতিনিধির মাধ্যমে সরকার গঠন করতে হবে। এজন্য প্রয়োজন জনগণের সৎ সাহস এবং সচেতনতা। নতুন নতুন ব্যাংক অনুমোদনের ফলে অর্থনীতিতে যে কোনো সময় ব্যাপক ধস নামতে পারে। এখন জনগণের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য জাতি, ধর্ম, দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন এলডিপির মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুল করিম আব্বাসী, আবদুল গনি, প্রফেসর আব্দুল্লাহ, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম প্রমুখ।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৫০৮ ঘণ্টা, নভেম্বর ২২, ২০১৮
এমএইচ/এইচএ/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2018-11-22 15:11:58