ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, ১১ আগস্ট ২০২০, ২০ জিলহজ ১৪৪১

আওয়ামী লীগ

নির্বাচনী সরকারের বিষয় শেখ হাসিনা ছাড়া কেউ জানেন না 

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৭ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৮
নির্বাচনী সরকারের বিষয় শেখ হাসিনা ছাড়া কেউ জানেন না 

ঢাকা: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচনকালীন সরকার কখন হবে সেটা জানেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর নির্বাচন কোন তারিখে হবে সেটা ঘোষণা দেবে নির্বাচন কমিশন। এ নিয়ে কারও কোনো কথা বলা উচিত হবে না বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। 

বৃহস্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) আওয়ামী লীগের রাজশাহী জেলা ও মহানগর নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভার শুরুতে দেওয়া বক্তব্যের সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ মনোভাব ব্যক্ত করেন। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

 

বুধবার (৫ সেপ্টেম্বর) ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, আগামী ২০ দিনের মধ্যে স্বল্প পরিসরে অন্তর্বর্তী সরকার গঠন করা হবে। আর আগামী ২৭ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাচন হতে পারে।

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার কখন হবে, এই সরকারের আকার কী হবে, আকারে কতোটা ছোট হবে, মন্ত্রিসভার সদস্য কতোজন হবেন, সব বিষয়ের এখতিয়ার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া কেউ এ বিষয়ে কিছু জানেন না। আর ২৭ ডিসেম্বর নির্বাচনের তারিখ নিশ্চিত হলেও এটা বলার দায়িত্ব আমাদের নয়, বলার দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের। নির্বাচন কমিশন বিব্রত হয়, এমন কোনো কথা বলা উচিত নয়। নির্বাচন কমিশন বলবে কবে নির্বাচন হবে। এটা বলার দায়িত্ব সরকারের নয়, কোনো মন্ত্রীরও নয়। যার যে দায়িত্ব, তার সে দায়িত্বের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলে ভালো।

অপর এক প্রশ্নের উত্তরে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হয় না। এটা জাতীয় ঐক্য নয়, এটা সাম্প্রদায়িক ঐক্য। এদেশের সবচেয়ে বড় দল আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের সমর্থক কতো? ভোটার কতো? আওয়ামী লীগের সেই সমর্থকদের বাদ দিয়ে, আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হাস্যকর। এটা জাতীয় ঐক্যের নামে সাম্প্রদায়িক মেরুকরণ হচ্ছে। দেশের সব চেয়ে বড় দলকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হয় না-কি? জাতীয় ঐক্য, এই শব্দ ব্যবহার না করাই ভালো।  

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, শতকরা ৯০ ভাগ ইউনিয়ন পরিষদে, উপজেলা পরিষদে আওয়ামী লীগ জিতেছে। কুমিল্লা ও সিলেট ছাড়া সবগুলো সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হয়েছে। সেই আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হয় না। জাতীয় ঐক্য প্রয়োজন হলে আমরা ডাক দেবো। এখন আমরা জনগণের ঐক্য চাই।  

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে কাদের বলেন, প্রতিযোগিতা থাকা ভালো। প্রতিযোগিতা আছে, কিন্তু সেই প্রতিযোগিতা অসুস্থতা ও অস্থিরতার দিকে যাচ্ছে। এটা ভালো নয়। নির্বাচন করার জন্য দলের মনোনয়ন পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা থাকতেই পারে, কিন্তু চায়ের দোকানে বসে গ্রুপিং-মিটিং করে একজনের বিরুদ্ধে আরেকজনের বক্তব্য দেওয়া আত্মঘাতী। এই আত্মঘাতী প্রচার বন্ধ করতে হবে। নির্বাচনের এই মুহূর্তে দলের কোনো কমিটি ভাঙা যাবে না। সেই সঙ্গে কোনো নতুন কমিটিও গঠন করা যাবে না। এটা কেন্দ্রীয়ভাবে গ্রহণযোগ্য হবে না।  

মতবিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী বিভাগের দয়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন প্রমুখ।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৩২১ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ০৬, ২০১৮ 
এসকে/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa