bangla news

আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ অভিযানে গতি নেই

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১০-০৬-১৭ ১২:৩২:২৯ পিএম

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচি গতি পায় নি বলে মনে করছেন খোদ দলীয় নেতা-কর্মীরাই। সদস্য সংখ্যা সোয়া ২ কোটিতে উন্নীত করার লক্ষ্য নিয়ে প্রায় ৬ মাস আগে নেওয়া এই কার্যক্রম এখনো সারাদেশে ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব হয়নি। ৭২টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে ঢাকা মহানগরসহ বেশ কিছু জেলায় এখনো এ কার্যক্রম শুরুই হয়নি।

ঢাকা : ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসূচি গতি পায় নি বলে মনে করছেন খোদ দলীয় নেতা-কর্মীরাই। সদস্য সংখ্যা সোয়া ২ কোটিতে উন্নীত করার লক্ষ্য নিয়ে প্রায় ৬ মাস আগে নেওয়া এই কার্যক্রম এখনো সারাদেশে ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব হয়নি। ৭২টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে ঢাকা মহানগরসহ বেশ কিছু জেলায় এখনো এ কার্যক্রম শুরুই হয়নি।

গত ৩০ জানুয়ারি দলটির বর্ধিত সভায় দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সদস্যপদ নবায়ন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এ কার্যক্রমকে গতিশীল করতে দলের কেন্দ্রীয় নেতারা গত ১৮ মার্চ সারাদেশে সাংগঠনিক জেলা সফর শুরু করেন। এক মাসের টার্গেট নিয়ে সফর কর্মসূচি শুরু হলেও ৫২টি সাংগঠনিক জেলা সফর শেষে কর্মসূচি স্থগিত হয়ে গেছে।

ফলে অন্তত ২০টি জেলায় এপর্যন্ত সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচির আওতায় কেন্দ্রীয় নেতাদের কোনো সফর কার্যক্রমেরই বাস্তবায়ন হয়নি।  

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সাংগঠনিক জেলার নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, স্থানীয়ভাবে মন্ত্রী, এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যান, কেন্দ্রীয়, জেলা ও উপজেলা নেতাদের পারস্পরিক দ্বন্দ্ব, দীর্ঘদিন ধরে মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটির সম্মেলন না হওয়া, কমিটির দায়িত্বে থাকা নেতারা সাংগঠনিক কার্যক্রমকে গুরুত্ব না দেওয়াই এর কারণ।

এছাড়াও দল ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে এক দল নেতাকর্মী বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রভাব প্রতিষ্ঠার চেষ্টা ও ব্যক্তিস্বার্থের দিকে ঝুঁকে পড়ায় দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে বলে মনে করছেন জেলা পর্যায়ের নেতারা।

এর পাশাপাশি কেন্দ্র থেকে সঠিক তদারকির অভাবে সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রমে গতি আসছে না বলে জানান তারা।

এ প্রসঙ্গে চট্রগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তবে সকল ওয়ার্ড পর্যায়ে কার্যক্রম শুরু হয়েছে কিনা সে ব্যাপারে বলতে পারছি না।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কেন্দ্রীয় নেতা বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, যেই গতি ও আগ্রহ নিয়ে কার্যক্রমটি শুরু হয়েছিলো তা ক্রমেই ভাটা পড়ে গেছে। নেতাদের মধ্যে গা-ছাড়া ভাব থাকাতেই এমনটা হচ্ছে।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম হানিফ বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন, ‘সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ণ কর্মসূচি সফল এবং দ্রুত শেষ করার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা থাকলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমাদের টার্গেট রয়েছে এক কোটি নতুন সদস্য করার।’

বিগত নির্বাচনের আগে নতুন প্রজন্মের যারা ভোটার রয়েছেন তাদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগের সমর্থক এবং দলকে ভোট দিয়েছেন। দেশের মোট ভোটারের একটি বড় অংশ এই তরুণদের সরাসরি দলে আনার জন্য তাদেরকে সদস্য করার উপর গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে বলেও মাহবুব-উল-আলম হানিফ জানান।

বর্তমানে আওয়ামী লীগের সদস্য সংখ্যা ১ কোটি ২৫ লাখ বলে দলের প্রচার সম্পাদক নূহ-উল-আলম লেনিন

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে জানান। ২০০২ সালে আওয়ামী লীগের ১৯ তম জাতীয় কাউন্সিলের আগে দলের সর্বশেষ সদস্য সংগ্রহ অভিযান চালানো হয়।

এদিকে, কিছু কিছু সাংগঠনিক জেলা কেন্দ্রীয় নেতাদের সাংগঠনিক সফরের সময় বর্ধিত সভা করে সদস্য সংগ্রহ অভিযান শুরু করার অপেক্ষায় রয়েছে। এই অপেক্ষায় রয়েছে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগও। কিন্তু কেন্দ্রীয় নেতাদের সফর কর্মসূচি স্থগিত হয়ে পড়ায় এসব জেলার সদস্য সংগ্রহ অভিযানও ঝুলে আছে।

বাংলাদেশের স্থানীয় সময় : ১৯০০ ঘন্টা, জুন ১৭, ২০১০
এসকে/এমএমকে/জেএম

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2010-06-17 12:32:29