bangla news

সরকারের কাছে মানুষের আশা নিঃশেষ হয়ে এসেছে : সেলিম

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১০-১২-২৮ ৭:৫৭:৪২ এএম

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের কাছে মুনুষের যে আশা ছিলো তা ক্রমেই নিঃশেষ হয়ে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সাধারণ সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম।

ঢাকা : আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের কাছে মুনুষের যে আশা ছিলো তা ক্রমেই নিঃশেষ হয়ে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সাধারণ সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম।

সরকারের দুই বছরের কার্যক্রমের সফলতা-ব্যর্থতার সংক্ষিপ্ত মুল্যায়ন করতে গিয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তবে সাধারণভাবে সরকারের ব্যর্থতা থাকলেও কতগুলো ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ সফলতা রয়েছে বলে সেলিম উল্লেখ করেন।

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বাংলানিউজকে বলেন, ‘ক্ষমতায় আসার সময় এই সরকারের কাছে মানুষের যে বিপুল আশাবাদ সৃষ্টি হয়েছিলো, তা ক্রমান্বয়ে কমতে কমতে দুই বছরের মাথায় এসে প্রায় নিঃশেষ হয়ে এসেছে।’

দ্রব্যমুল্য, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস সংকট, যানজট, ঘুষ-দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, অভ্যন্তরীণ সংঘাত, ক্রসফায়ার, দখলদারিত্ব, দলবাজি, তদবিরবাজীসহ বিভিন্ন নেতিবাচক বিষয় অব্যাহত আছে। শুধু তাই নয়, কিছু কিছু ক্ষেত্রে তা বৃদ্ধিও পেয়েছে।’

সাধারণ মানুষের প্রাথমিক আশাবাদ ছিল, এই সমস্যাগুলো দূর হবে। আর এ সমস্যাগুলো এই সময়ের মধ্যে সম্পূর্ণ দূর না হলেও দূর হওয়ার একটা প্রক্রিয়া স্পষ্ট দৃশ্যমান হবে। এই ক্ষেত্রে মানুষের আশাভঙ্গ হয়েছে।’

ক্রমেই মানুষ বলতে শুরু করেছে, ‘সব সাপেরই দাঁতে বিষ, তফাত কেবল উনিশ-বিশ।’

তিনি বলেন, ‘অবশ্য কতগুলো ক্ষেত্রে সরকারের সফলতা আছে। সেগুলো গুরুত্বপূর্ণও বটে। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের রায় আংশিকভাবে হলেও কার্যকর হয়েছে। হোঁচাট খেতে খেতে হলেও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রক্রিয়া সরকার শুরু করেছে।’

সেলিম বলেন, সুম্পষ্ট কিছু পিছুটান থাকা সত্বেও ৭২ এর সংবিধানে দেশকে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য উচ্চ আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে সরকার কোনো ভূমিকা নেয়নি।’

সিপিবি সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘শিক্ষা, কৃষি প্রভৃতি ক্ষেত্রে সরকারের কিছু কিছু সাফল্য প্রশংসাযোগ্য। যদিও এসব ক্ষেত্রে মৌলিক সংস্কারের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। ফলে সাফল্যের পাশাপাশি নতুন কিছু সমস্যারও জন্ম নিয়েছে। দ্রব্যমূল্যের বিষয়টি বাজার শক্তির ওপর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। যেহেতু বাজার নিয়ন্ত্রিত হয় টাকা দ্বারা, সুতরাং যাদের টাকা আছে একছত্রভাবে তাদের ইচ্ছা অনিচ্ছার ওপর বাজার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রিত হয়।’

‘সমাজতন্ত্র বাদ দিয়ে মুক্তবাজার অর্থনীতি অনুসরণ করার এটাই স্বাভাবিক পরিণতি। আগেও এটাই ঘটেছে, এখনও ঘটছে।’

সেলিম বলেন, ‘সামাজিক ও রাজনৈতিক অপরাধমুলক শক্তির বিরুদ্ধে সরকার কিছু শক্ত ব্যবস্থা নিয়েছে। কিন্তু সাধারণভাবে অপরাধমুলক কাজ কমেনি। খলনায়কদের পরিচয়ের পরিবর্তন হয়েছে, অপরাধের প্রকৃতিতে কিছু বদল এসেছে।’

‘ওপর তলায় দৃশ্যমান অপরাধমূলক কাজ কম। এখনো তা খুব প্রচারিত নয়। কিন্তু তৃণমুল থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্তরে নেতা-কর্মী, ক্যাডারদের মধ্যে আর্থিকসহ অপরাধমুলক কাজ বিস্তৃত হয়েছে।’
 
বাংলাদেশ সময় ১৭৫০ ঘন্টা, ডিসেম্বর ২৮, ২০১০

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2010-12-28 07:57:42