bangla news

ইনঅ্যাকটিভ রওশন, ফ্রন্টলাইনে শেরিফা

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১০-১০-১৭ ২:০০:৩০ এএম

দলীয় কর্মকাণ্ডে দিন দিন নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের স্ত্রী রওশন। আর এরশাদের ছোট ভাই জিএম কাদেরের স্ত্রী শেরিফা চলে আসছেন ফ্রন্টলাইনে।

ঢাকা: দলীয় কর্মকাণ্ডে দিন দিন নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের স্ত্রী রওশন। আর এরশাদের ছোট ভাই জিএম কাদেরের স্ত্রী শেরিফা চলে আসছেন ফ্রন্টলাইনে।

দলীয় সূত্রমতে, গত জুলাইতে এরশাদই জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে জড়িয়ে নেন শেরিফাকে। শুরুতেই তাকে বসিয়ে দেন ভাইসচেয়ারম্যান পদে।

পদ পেয়ে শেরিফাও কোমর বেঁধে মাঠে নামেন। এরশাদের আস্থা অর্জনে রাতদিন সমানে কাজ শুরু করেন তিনি। চলমান দুর্গাপুজা উৎসবেও রাজধানীর বিভিন্ন পুজামণ্ডপে জনসংযোগে ব্যস্ত দেখা যাচ্ছে তাকে।

অপরদিকে সাবেক ফার্স্ট লেডি রওশনের দিন কাটছে নিজের বাসা আর পারিবারিক পরিমণ্ডলে।

দলীয় সূত্রমতে, রাজনীতির মাঠে গত তিন মাসে শেরিফা কাদেরের সরব উপস্থিতি দেখা গেলেও  রওশন এরশাদের অনুপস্থিতি ছিলো চোখে পড়ার মতো।

গত জুলাইয়ে অনুষ্ঠিত প্রেসিডিয়াম সভায় পার্টির দুই নম্বর প্রেসিডিয়াম সদস্য (পদাধিকার বলে এক নম্বর প্রেসিডিয়াম সদস্য এরশাদ) রওশন এরশাদ উপস্থিত ছিলেন না। এর পর ২২ আগস্ট রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে তৃণমূল নেতাদের নিয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় পার্টির যৌথ সভায় দলের বেশির ভাগ প্রেসিডিয়াম সদস্য উপস্থিত থাকলেও রওশন ছিলেন অনুপস্থিত। এছাড়া পুরো রমজান জুড়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় পার্টি ও এর অঙ্গ সংগঠনগুলোর কোনো ইফতার মাহফিলেও শরিক হতে দেখা যায়নি রওশনকে। সর্বশেষ তৃণমূলে জাতীয় পার্টিকে সংগঠিত করার লক্ষ্যে ৯ অক্টোবর বনানীতে পার্টি চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জেলা কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, আহ্বায়ক ও সদস্য সচিবদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায়ও দেখা মেলেনি রওশনের।  

রওশন এরশাদ যখন এভাবে নিজেকে দলীয় কর্মকাণ্ড থেকে গুটিয়ে রেখেছেন তখন দিন দিন নিজেকে মেলে ধরতে শুরু করেছেন শেরিফা কাদের।

২৫ আগস্ট জাতীয় পার্টির ঢাকা উত্তর শাখা আয়োজিত ইফতার মাহফিলে শেরিফা কাদেরকে মূল মঞ্চে জায়গা দিতে একজন প্রেসিডিয়াম সদস্যকে উঠে যেতে হয়। ২২ আগস্টের তৃণমুল নেতাদের নিয়ে অনুষ্ঠিত যৌথ সভায়ও শেরিফা কাদের পালন করেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। ২৬ আগস্ট ঢাকা দক্ষিণের ইফতার মাহফিলে শেরিফা ছিলেন মূল মঞ্চে। সর্বশেষ ৯ অক্টোবর জেলা কমিটির সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে তাকে বক্তৃতার সুযোগ দিতে খোদ এরশাদই অবতীর্ণ হন ঘোষকের ভূমিকায়।
 
এছাড়া রংপুর, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জসহ সম্প্রতি অনুষ্ঠিত জেলা জাতীয় পার্টির কাউন্সিলেও বিশেষ অতিথির মর্যাদায় স্বামী জিএম কাদেরের সঙ্গে রাজনৈতিক সফর করেন শেরিফা।

শেরিফার এই আকস্মিক উত্থানেই রওশন নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন বলে মনে করছেন কেউ কেউ। আবার অসুস্থতা ও ব্যক্তিগত ব্যস্ততার কারণে দলীয় কর্মকাণ্ড থেকে রওশন দূরে রয়েছেন বলেও দাবি আছে অনেকের।

তবে এরশাদের প্রেস সচিব সুনীল শুভ রায় বাংলানিউজকে বেশ জোরের সঙ্গেই বলেন, ‘রওশন এরশাদ মোটেই ইনঅ্যাকটিভ নন। তিনি খুবই অ্যাকটিভ। অসুস্থতার কারণেই দলীয়  কর্মসূচি থেকে কিছুটা দূরে আছেন।’

অপর এক সূত্র বাংলানিউজকে জানান, ‘১৯৯৬, ২০০১ ও ২০০৮ সালে টানা তিনবার রংপুর-৩ আসন থেকে নির্বাচিত সাংসদ রওশন এরশাদ তার নির্বাচনী এলাকাতেও যাননি দীর্ঘদিন। অথচ ওই এলাকায়ও মাঝেমধ্যেই শেরিফাকে ঢুঁ দিতে দেখা যাচ্ছে।

রওশন-শেরিফা প্রসঙ্গে কথা হয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য নুর-ই হাসনা লিলি চৌধুরীর সঙ্গে।

বাংলানিউজকে তিনি বলেন, ‘রওশন এরশাদ দীর্ঘ দিন ধরে অসুস্থ। সম্প্রতি সিঙ্গাপুরে তার অপারেশন হয়েছে। চিকিৎসকের পরামর্শে এখন তিনি বিশ্রামে আছেন। অচিরেই দলীয় কর্মসূচিতে তাকে দেখা যাবে।’

শেরিফা প্রসঙ্গে হাসনা লিলি বলেন, ‘উনি এসেই চট করে রাজনীতিটাকে রপ্ত করতে পেরেছেন। এ জন্য আমরা সবাই খুশি। তাছাড়া ভাবি হিসেবেও তিনি আমাদের কাছ থেকে আলাদা সম্মান পাবেন।’

বাংলাদেশ সময়: ১১০০ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৭, ২০১০

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2010-10-17 02:00:30