ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২৩ শাবান ১৪৪৫

রাজনীতি

ভোটাধিকারের সংগ্রামে শেষ পর্যন্ত আমরাই জিতবো: মান্না

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬১৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১, ২০২৩
ভোটাধিকারের সংগ্রামে শেষ পর্যন্ত আমরাই জিতবো: মান্না ছবি: শাকিল আহমেদ

ঢাকা: মজুরি বাড়ানোর পাশাপাশি ভোটাধিকারের যে সংগ্রাম চলছে, সেই সংগ্রাম অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়ে নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, এ সংগ্রামে শেষ পর্যন্ত আমরাই জিতবো।

শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে শ্রমিক হত্যার বিচার ও ক্ষতিপূরণ, আহতদের চিকিৎসা ও ক্ষতিপূরণ, কর্মচ্যুতদের পুনর্বহাল, গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তি, গার্মেন্টস শিল্প ঘোষিত মজুরি প্রস্তাব প্রত্যাহার এবং ন্যূনতম মজুরি ২৫ হাজার টাকা পুনঃনির্ধারণের দাবিতে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে সংহতি জানিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

 

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ সমাবেশের আয়োজন করে সম্মিলিত শ্রমিক পরিষদ (এসএসপি)।

মান্না বলেন, চারদিক দিক থাকে শোনা যাচ্ছে গার্মেন্টস সেক্টরের ওপর নিষেধাজ্ঞা আসবে, বাণিজ্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা আসবে। কিন্তু সে কথা তারা (সরকার) ভাবছে না। তারা বলছে, সবকিছু আমরা দেখবো, পরে কী হয়। আমি আপনাদের (শ্রমিকদের) অনুরোধ করবো, আপনারা আপনাদের ন্যায্য সংগ্রামের সঙ্গে ভোটাধিকারের যে সংগ্রাম চলছে, সে লড়াই অব্যাহত রাখুন। শেষ পর্যন্ত আমরাই জিতবো।

তিনি আরও বলেন, আমরা জানি মানুষ এ নির্বাচনে ভোট দিতে যাবে না। কিন্তু ওরা (আওয়ামী লীগ) সন্ধ্যার পরে নাটকের মতো সেন্টার তৈরি করে বলবে আমরা জিতেছি।  

মান্না বলেন, গত ২৮ অক্টোবর একজন পুলিশ মারা গেছে, এর জন্য আমরা দুঃখিত। এ পুলিশরা ডিউটি করে, আমাদের ওপর লাঠির বাড়িও দেয়। জানি নিম্ন-মধ্যবিত্তদের চাকরি রক্ষার জন্য করতে হয়। কিন্তু একইদিনে এবং তার আগে এদেশে শ্রমিকরা আন্দোলন করতে গিয়ে চারজন মারা গেল। ওই চারজনের কথা কেউ বলে না। সরকার টিভিতে লাগাতারভাবে একটা (বিএনপির) ঘটনা বলে। কিন্তু যারা শ্রমিক তারা ন্যায্য অধিকারের জন্য লড়াই করেছে, বাঁচার জন্য লড়াই করেছে, তাদের কথা তারা বলছে না। বরং বলছে আন্দোলন যদি করো, শেষ পর্যন্ত আমও যাবে ছালাও যাবে। হুমকি দিয়ে আন্দোলন বন্ধ করতে চায়।

রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম বলেন, বাংলাদেশে যত আন্দোলন হয়, সে আন্দোলনগুলো যত ন্যায্যই হোক, সে আন্দোলনগুলো যদি জয় লাভও করে, তাহলেও আপনারা দেখবেন যারা সেসব আন্দোলনে শহীদ হয়েছেন, ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তারা আসলে কোনো ধরনের বিচার পায় না।  

বিক্ষোভ সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন- সম্মিলিত শ্রমিক পরিষদের প্রধান সমন্বয়ক এ এ এম ফয়েজ হোসেন, নির্বাহী সমন্বয়ক আব্দুর রহমান, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও শ্রমিকনেতা নজরুল ইসলাম খান, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুরুল হক নুর, ভাসানী অনুসারী পরিষদের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবলু প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৬১৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০১, ২০২৩
এসসি/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।