ঢাকা, রবিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৬ মে ২০২৪, ১৭ জিলকদ ১৪৪৫

রাজনীতি

বিএনপি দেশের অগ্রগতি থামাতে চায়: ড. সেলিম মাহমুদ

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৩৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০২২
বিএনপি দেশের অগ্রগতি থামাতে চায়: ড. সেলিম মাহমুদ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি জামায়াতের মূল লক্ষ্য শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নসহ সার্বিক উন্নয়নকে নস্যাৎ করা। তারা বাংলাদেশের অগ্রগতিকে থামিয়ে দিতে চায়।

 
শেখ হাসিনার করা উন্নয়নগুলো আওয়ামী লীগ সরকার কিংবা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের জন্য নয়, বঙ্গবন্ধু কন্যার এই উন্নয়ন এদেশের সকল মানুষের জন্য। বিএনপি বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা নস্যাৎ করে দিয়ে এদেশের মানুষের সব অর্জনকে নষ্ট করে দিতে চায়।  

বিএনপি জামায়াতের নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে রাজধানীর ফার্মগেটে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে দলের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ এ কথা বলেন।  

ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, বিএনপির দশ দফা এবং পরে প্রকাশিত তাদের তথাকথিত রাষ্ট্র মেরামতের প্রস্তাবগুলো হাস্যকর। বিএনপি বলছে, পার্লামেন্ট বাতিল করে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন করতে হবে। বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে পদত্যাগ করতে হবে।  আওয়ামীলীগ ঠুনকো কোনো বিষয় নয়। আওয়ামী লীগকে উৎখাত করা মোটেও সহজ কাজ নয়।  

ড. সেলিম মাহমুদ বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা নিয়ে মায়া কান্না করে লাভ নেই। এই ব্যবস্থা এখন একটি পাস্ট অ্যান্ড ক্লোজড চ্যাপ্টার। আওয়ামী লীগ এই ব্যবস্থা বাতিল করেনি। দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থাকে অবৈধ ও অসংবিধানিক ঘোষণা করে এই ব্যবস্থাকে বাতিল করে দেন। সংবিধানের ১১১ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সকল নির্দেশ রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতিসহ সংসদ, সরকার ও সকল আদালতের ওপর বাইন্ডিং। একটি মৃত প্রাণীর যেমন কোনো কার্যকারিতা থাকে না, তেমনি বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা একটি মৃত ব্যবস্থা যা ফিরিয়ে আনার সাংবিধানিক, আইনি ও প্রশাসনিক কোনো সুযোগ নেই।  

তিনি বলেন, পশ্চিমা বিশ্বের দেশগুলো নিজেদেরকে সিভিলাইজড নেশনস বা সভ্য জাতি হিসেবে প্রচার করে। এই সকল সভ্য রাষ্ট্রে যে প্রক্রিয়ায় বা যে ব্যবস্থায় নির্বাচন হয়, একই পদ্ধতিতে বাংলাদেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে, ভবিষ্যতেও হবে। কোনো ষড়যন্ত্র আর নৈরাজ্যে আওয়ামী লীগ বিচলিত নয়। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিটি কর্মীকে রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের নানা ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সজাগ থাকার আহ্বান জানান। যেকোনো পরিস্থিতিতে তাদের ষড়যন্ত্রের দাঁতভাঙা জবাব দেওয়ার জন্য আহ্বানও জানান তিনি।  

সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা ১২ আসনের সংসদ সদস্য ও সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন, আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ এমপি, দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল।  

এ সময় আওয়ামী লীগের স্থানীয় পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।  

বাংলাদেশ সময়: ১২৩১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০২২
এসআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।