[x]
[x]
ঢাকা, শুক্রবার, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮
bangla news

স্বাস্থ্যখাতে ভূলুণ্ঠিত ‘চিকিৎসা দর্শন’

ড. মাহফুজ পারভেজ, অতিথি লেখক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৫-১৬ ৮:২৮:০৬ এএম
স্বাস্থ্যখাতে ভূলুণ্ঠিত ‘চিকিৎসা দর্শন’

স্বাস্থ্যখাতে ভূলুণ্ঠিত ‘চিকিৎসা দর্শন’

অসুখ নিয়ে নিরুপায় হয়ে মানুষ হাসপাতাল ও ডাক্তারের কাছে আসে। একজন সুচিকিৎসককে তখন তাদের প্রাথমিক পরীক্ষার পর যথাসম্ভব দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে নিজের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে নিজেকেই প্রশ্ন করতে হয়, চিকিৎসকের প্রধান লক্ষ্য কী? অর্থ উপার্জন? রোগ নির্ণয়? রোগীর উপশম?

একজন সুচিকিৎককে এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে হয় যথাযথ চিকিৎসা আর নিরাময়ের মাধ্যমে। পাশাপাশি এ অব্যক্ত সংকল্প পোষণ করতে হবে, রোগী যেন হাসতে হাসতে বাড়ি ফেরেন। এ সংকল্পের সঙ্গে যে নৈতিকতা জড়িত, তার নাম ‘চিকিৎসা দর্শন’। বাংলাদেশের সরকারি ও বেসরকারি স্বাস্থ্যখাত ও চিকিৎসা ব্যবস্থার যে ভয়ংকর অধঃপতিত চিত্র দেখা যাচ্ছে, তাতে চিকিৎসার মানবিকতা ও দর্শন সম্পর্কে সংশ্লিষ্টদের আদৌ কোনো ধারণা বা শ্রদ্ধা রয়েছে কিনা, সে প্রশ্নই সর্ব মহলে প্রশ্ন উচ্চারিত হচ্ছে। সব কিছু দেখে-শুনে মনে হচ্ছে, স্বাস্থ্য খাতে ভূলুণ্ঠিত ‘চিকিৎসা দর্শন’।   

চিকিৎসা বিজ্ঞান মনে করে, যে কোনো সহজ বা দুরারোগ্য ব্যাধি সারাতে না পারা মানেই চিকিৎসকের পরাজয়। একজন চিকিৎসক যখন চিকিৎসা করেন, তখন তিনি একইসঙ্গে যোদ্ধা ও শান্তির প্রবক্তা। তার যুদ্ধ রোগীর সঙ্গে বা অর্থ উপার্জনের সঙ্গে নয়। রোগের সঙ্গে। রোগ নিরাময় আয়ত্তে আনবার জন্য। চিকিৎসা একইসঙ্গে চিকিৎসক নিজের এবং রোগীর মুখে হাসি ফোটায়। ‘চিকিৎসা দর্শন’ রোগী ও চিকিৎসকের মুখে হাসি দেখতে চায়। সাফল্য, বিজয়, আনন্দের হাসি। লোভ, লাভ, নিপীড়ন, অবহেলা, অমনোযোগ, বেনিয়াবৃত্তি দেখতে চায় না। রোগীকে বিপদগ্রস্ত করে অর্থ উপার্জনের জঘন্য মানসিকতা দেখতে চায় না।

কিছুদিন আগে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে নতুন পরীক্ষা অনুষ্ঠানের দাবিতে আন্দোলনকারী করেছিল মেডিকেলের ভর্তিচ্ছুরা। প্রশ্নপত্র ফাঁসের তদন্তে কাউকে কাউকে আটকও করা হয়েছিল এবং আটকাবস্থায় ইউজিসির একজন অভিযুক্ত কর্মকর্তা মারা গিয়েছিলেন। এই মৃত্যু নিয়েও ছিল অভিযোগ আর পাল্টা-অভিযোগ। ফলে মেডিকেলের ভর্তি নিয়ে তলে তলে যে অনেক কিছুই হয়েছে বা হচ্ছে, সেটা বুঝতে অসুবিধা হয় না। তার মানে চিকিৎসক তৈরির শুরুটাই গলদে ভরা। এতে সবচেয়ে বড় যে সমস্যাটির সৃষ্টি হবে, তা হলো মানুষের জীবন ও স্বাস্থ্যের বারোটা বেজে যাবে। নকল করে ভর্তি হয়ে তারা যে কি করবে, সেটা সহজেই অনুমেয়। আর যারা ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা নব্য-মেডিকেলে মোটা টাকা দিয়ে ভর্তি হচ্ছে, তারা পেশাগত জীবনে কসাইয়ের মতো আচরণ করে টাকাই কামাবে, এটাই স্বাভাবিক।

ক্লিনিক ও হাসপাতালগুলোও পরিণত হবে কসাইখানায়। ফলে মানুষের জীবন ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থা অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা, দুর্নীতি ইত্যাদি কারণে বিপন্ন ও বিপদগ্রস্ত হচ্ছে। এমন লোকদের দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, যারা জীবন বাঁচানোর শিক্ষা নিয়ে জীবনের বারোটা বাজাচ্ছে। বস্তুতপক্ষে, বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা, বিশেষত স্বাস্থ্য শিক্ষা ব্যবস্থার এমন শোচনীয় হাল অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে।  

হবেই না কেন? যেখানে বেতন ও পদমর্যাদার দিক থেকে শিক্ষকদের অবমূল্যায়িত করা হয়, সেখানে শিক্ষা ক্ষতিগ্রস্ত হতে বাধ্য। এমন কি, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাইমারি পর্যন্ত শিক্ষকদের মান-মর্যাদা বাঁচাতে যখন রাজপথে নামতে হয়, তখন শিক্ষাব্যবস্থার চিত্রটি সহজেই অনুমানযোগ্য। এতে স্বাস্থ্য শিক্ষা, বিজ্ঞান শিক্ষা, সাধারণ শিক্ষাসহ সব ধরনের শিক্ষাই ব্যাহত হবে বা হচ্ছে। এবং পরিকল্পিতভাবে এটাই যেন করা হচ্ছে।

চোখের সামনে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ জরুরি, গুরুত্বপূর্ণ ও অতিপ্রয়োজনীয় ক্ষেত্র ও খাতগুলো ধসে যাচ্ছে; অবক্ষয়ের শিকার হচ্ছে। যোগ্য ও মেধাবীরা বঞ্চিত হচ্ছে এবং বঞ্চিতরা প্রতিকার পাচ্ছে না। তাতে যেন কারোই কোনো চিন্তা নেই। বরং সংশ্লিষ্টরা প্রশ্নপত্র ফাঁস করে ও বেসরকারি মেডিকেলে লাখ লাখ টাকায় ভর্তির বাণিজ্য চালিয়েই চলেছেন। নকল করে ও টাকার বিনিময়ে সার্টিফিকেটধারীরা কতটুকু সুচিকিৎসা দিতে সক্ষম হবে, সেটা সবাই জানে। কর্তা ব্যক্তিরা জানলেও লেনদেনের কারণে চুপ। ফলে ভবিষ্যতে অন্ধকার ও বিপদ নেমে আসারই জন্য কেবল অপেক্ষা করতে হচ্ছে; যে অন্ধকার ও বিপদের প্রধান শিকার হবে সাধারণ মানুষ, বিশেষত গরিব-দুঃখী জনতা। যাদের পক্ষে বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা করানো সম্ভব নয়, তারা।  

বিদ্যমান বাস্তব অবস্থায় চিকিৎসা ব্যবস্থার অন্তর্নিহিত দর্শন আর স্বাস্থ্যসেবার কাঙ্ক্ষিত সূচক ও মানদণ্ড বাংলাদেশের নিরিখে প্রচণ্ডভাবে নিম্নগামী হয়ে গেছে। চিকিৎসার মূলমন্ত্র ও প্রতিষ্ঠিত তত্ত্বকথার সঙ্গে দেশের সরকারি-বেসরকারি  চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যখাতের বিদ্যমান ক্ষয়িষ্ণু অবস্থাচিত্রের বিস্তর ফারাক তৈরি হয়েছে। বাস্তবে মিলছে না চিকিৎসাসেবা ও স্বাস্থ্য চাহিদার প্রচলিত স্লোগানের সঙ্গে মানুষের প্রকৃত প্রত্যাশা। দুর্নীতি, রাজনীতি, অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতায় স্বাস্থ্যখাত ও চিকিৎসাব্যবস্থা এখন সাধারণ মানুষের কাছে বিভীষিকায় পরিণত হয়েছে। অর্থের লোভ আর বিত্তের চাহিদার সঙ্গে এই খাতে এসে মিশেছে সেবাহীন মনোবৃত্তি।

অথচ শিক্ষাজীবনে মেডিকেলের ছাত্রদের গ্রিক দার্শনিক হিপোক্রেটিস নির্দেশিত শপথবাক্য পাঠ করতে হয়, ‘রোগীকে ভালোবেসে চিকিৎসা করবো, অবহেলা বা অবজ্ঞা করবো না। চিকিৎসার বিনিময়ে মুনাফা অর্জনের চেষ্টা থেকে বিরত থাকব।’ এইরূপ শপথ বাংলাদেশের চিকিৎসকদের উচ্চারণ করেই সনদ পেতে হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত শপথের কথাগুলো কতজন চিকিৎসক মনে রাখেন বা বিশ্বাস করেন বা পালন করেন?

অথচ হিপোক্রেটিস বিশ্বাস করতেন, সব ধরনের চিকিৎসাই নিঃস্বার্থ ও মানবসেবার অন্তর্গত। তার এ দার্শনিকতা বোধ সারা বিশ্ব মর্যাদা দিয়েছে। এবং চিকিৎসকদের মধ্যে গভীর মূল্যবোধ গড়ে তুলতে চেয়েছে। চিকিৎসাশাস্ত্রের পড়ুয়া ও পেশাদার চিকিৎসকেরা এ দর্শন, এ নৈতিকতাকে বিশেষ গুরুত্ব দেবেন, এটাই একান্ত কাম্য। কিন্তু আমাদের দেশের মহান চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের সামান্য অংশ আদর্শ দৃষ্টান্ত স্থাপনে সক্ষম হয়েছেন। বরং এ রকম চিকিৎসক ও চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান আকছার দেখা যাচ্ছে, যারা আর্থিক মুনাফাকে বিশেষ প্রাধান্য দিয়ে পরিষেবা আর সেবাধর্মকে অবমাননা করছেন।

 এ প্রবণতা বিপজ্জনক। এতে রোগী, চিকিৎসক, চিকিৎসা ব্যবস্থার আন্তঃসম্পর্কের চরম অবনতি ঘটে। ডাক্তারদের ব্যাপারে অপবাদ, অভিযোগ ও গুজবের রাস্তাও প্রশস্ত হচ্ছে বাস্তব প্রমাণের ভিত্তিতে। আর বাস্তবে যদি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও চিকিৎকের কাছ থেকে অনৈতিক, অমানবিক, লোভী আচরণ পাওয়া যায় এবং কাঙ্ক্ষিত সেবার বদলে অবজ্ঞা ও অবহেলা পাওয়া যায়, তখন অভিযোগ বিশ্বাসযোগ্যতা ও সত্যতা লাভ করে।

এক-দু’জনের অবিমিশ্যকামিতার জন্য একটি আস্ত পেশাগোষ্ঠীতে সামাজিকভাবে নিন্দিত ও আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা বিরল নয়। চিকিৎসকদের ক্ষেত্রে যেন এমনটি না ঘটে, সেটা খোদ চিকিৎসকদেরই স্বকর্মের সাফল্যের মাধ্যমে নিশ্চিত করতে হবে। বাইরের লোকের বাহবায় কোনো পেশার মান যত না বাড়ে, তারচেয়ে বেশি বাড়ে সেই পেশায় নিয়োজিত পেশাজীবীদের আত্মসম্মান, মর্যাদা, পরহিত, ত্যাগ ও আদর্শবাদিতার দ্বারা।

আজ ডাক্তার, শিক্ষক, আইনজীবী, সাংবাদিক, চাকরিজীবী প্রভৃতি পেশা সম্পর্কে সমাজে ও মানুষের মধ্যে যে ধারণা ও মনোভাব রয়েছে, সেটা কিন্তু আকাশ থেকে আসেনি বা একদিনে তৈরি হয়নি। পেশাজীবীদের কর্ম ও আচরণের মাধ্যমেই রচিত হয় ভালো বা খারাপ ধারণা। একজন ঘুষখোর অফিসার বলতে আমরা যে বিকৃত প্রতিচ্ছবি দেখি, এটাও কিন্তু সেই নিন্দিত ব্যক্তির সম্পর্কে ঘৃণা ও নেতিবাচকতার মাধ্যমে সৃষ্ট একটি ইমেজ।

এটা ঠিক, অর্থ ছাড়া কারও সংসার চলে না। সে পেশাজীবী হোক বা ব্যবসাজীবীই হোক। ভব্যস্থ জীবনযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ পরিহার্য। চিকিৎসকেরও টাকার প্রয়োজন। তাই বলে প্রয়োজনের সঙ্গে প্রলোভনকে, মোহকে, আত্মসর্বস্বতাকে, অহঙ্কারকে জড়িয়ে ফেলা উচিত নয়।

চিকিৎসা ক্ষেত্রে আরেকটি কথা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। ভালোবাসা। চিকিৎসকের প্রধান দায়িত্ব রোগীকে, মানুষকে ভালোবাসা। গভীর ও নিঃস্বার্থ ভালোবাসা। এটা শুধু চিকিৎসার নয়, যে কোনো পরিষেবার প্রথম ও প্রাথমিক শর্ত। যদি কাউকে ভালোবেসে চিকিৎসা শুরু করা হয়, তাহলে অনতিবিলম্বে ডাক্তার ও রোগীর মধ্যে সুন্দর ও আস্থার সম্পর্ক গড়ে উঠবে। যে রোগী ডাক্তারকে আপনজন ভাবার সুযোগ পায়, তার রোগের উপশম অপেক্ষাকৃত সহজ। কেননা আস্থা আর ভরসা রোগীর আত্মবিশ্বাসকে বাড়িয়ে দেয়। ওষুধ প্রয়োগে তার প্রাণশক্তি দ্রুত বেগে আরও বেড়ে যায়। মানসিক চিকিৎসায়, হতাশা ও মাদকাসক্তি নিরাময়ে চিকিৎসকদের এসব ব্যাপার মমতার সঙ্গে লক্ষ্য রাখতে হয়।

বাংলাদেশের চিকিৎসা-ব্যবস্থার সঙ্গে তুলনা করলে উপরের কথাগুলোকে মেলানো যায় না। তত্ত্বকথা আর বাস্তব মিলতে চায় না। নারী ও প্রসূতি স্বাস্থ্য, মানসিক ও মাদকাসক্তির চিকিৎসা, শিশু ও প্রতিবন্ধীদের জন্য চিকিৎসায় মায়া-মমতা কতটুকু দেখানো হচ্ছে, সে প্রশ্ন উঠছে। সামগ্রিক স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ব্যবস্থার আদার্শক ও মানবিক দিকটিও উপেক্ষিত হচ্ছে।

ঢাকা থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত সরকারি বা বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা খাতের দিকে তাকাতে শিউরে উঠতে হয়। অনলাইন ও পত্রিকার পাতায় প্রতিদিন ছাপা হয় চিকিৎসাহীনতা ও অমানবিকতার শত ঘটনা। রাজধানী শীর্ষস্থানীয় ও অতি ব্যয়-সাপেক্ষ বেসরকারি হাসপাতালগুলোতেও অবহেলা, অমানবিকতা, অর্থলোভী মানসিকতার যে উৎকট চিত্র দেখা যাচ্ছে, তাতে আস্থা ও ভরসার বিন্দুমাত্র জায়গা থাকে না।

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ব্যবস্থায় বিরাজমান বিরূপ পরিস্থিতির অবসান হওয়া দরকার বলে সবাই মনে করলেও তা সহসা হচ্ছে না। পত্রিকান্তরে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, গত তিনবছরে দুর্নীতি ও অনিয়মের জন্য ৪৮৬জন চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। শাস্তির কারণ হিসাবে যেসব অভিযোগ নথিভুক্ত হয়েছে, সেগুলো হলো: ওষুধ পাচার, নিয়োগ-বাণিজ্য, টেন্ডারবাজি, সরকারি জিনিসপত্র ক্রয়ে অর্থের বিনিময়ে নিম্নমানের দ্রব্য গছিয়ে দেওয়ার মতো অনৈতিক ব্যবস্থা। বিশেষ যে কারণে শাস্তি দেওয়া হয়েছে, সেটা হলো কর্মস্থলে অনুপস্থিতি। শাস্তি প্রাপ্তদের মধ্যে সিভিল সার্জন থেকে মেডিকেল অফিসার পর্যন্ত পদের চিকিৎসকরা রয়েছেন।

যদিও বাংলাদেশের ৭৫ শতাংশ মানুষ গ্রামে বাস করে আর তাদের ৮০ শতাংশের ক্ষেত্রে চিকিৎসাসেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এতো ব্যাপক চিকিৎসাবঞ্চিত মানুষ আধুনিক বিশ্বের আর কোথাও আছে বলে মনে হয় না। বাংলাদেশে গ্রাম ও শহরের মধ্যে সামাজিক-অর্থনৈতিক ফারাকের মতো চিকিৎসা বঞ্চনাও তীব্রতর স্থরে উন্নীত হয়েছে। বাংলাদেশের নিবন্ধিত ৩৩ হাজার ৩২৬ জন চিকিৎসকের বলতে গেলে কেউই গ্রামে যেতে চায় না। গেলেও সেখানে থাকতে ইচ্ছুক হয় না। পরিসংখ্যান জানাচ্ছে, দেশের শহরগুলোতে চিকিৎসক ও জনসংখ্যার অনুপাত ১:১৫০০ হলেও গ্রামাঞ্চলে সেই অনুপাতই ১:১৫০০০।

চিকিৎসকের সংকট, সংখ্যাল্পতা একদিকে যেমন বিপুল মানুষকে স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাসেবার বাইরে রেখে দিয়েছে; তেমনি সেই মুষ্টিমেয় চিকিৎসকের মধ্যে দার্শনিক জ্ঞানের অভাব, সেবা না করার  মনোভাব ও অর্থ উপার্যনের তীব্র নেশা ইত্যাদি কারণে মানুষ চিকিৎসার মানবিক রূপটির দেখা পাচ্ছে না। প্রায়ই যে দেশের বাইরে চিকিৎসার জন্য মানুষের চলে যাওয়ার ঘটনা ঘটছে, সেটাও কিন্তু এমনিতেই হচ্ছে না। যথার্থ কার্যকারণের জন্যই হচ্ছে। এই কারণের অবসান ঘটাতে না পারলে বহু মুদ্রা যেমন বিদেশে চলে যাবে, তেমনি চিকিৎসাব্যবস্থা ও স্বাস্থ্যসেবাখাতের ব্যাপারে আস্থাহীনতার তৈরি হবে। এটা দেশের জন্য মঙ্গলজনক নয়, চিকিৎসক সমাজের জন্য তো নয়ই।

বিশ্বায়নের এই যুগে, একবিংশ শতাব্দীর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির জ্ঞানভিত্তিক সমাজে স্বাস্থ্যসেবাহীনতায় প্রসূতির মৃত্যু, গর্ভাবস্থায় শিশুর মৃত্যু, নবজাতকের মৃত্যু, বিভিন্ন ব্যাধিতে মানবমৃত্যুর হার অনেকাংশে কমে গেছে। উন্নত স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাসেবা পৌঁছে গেছে বিরাণ মরুভূমিতে, আফ্রিকার শ্বাপদসংকুল জনপদে, মহাসাগরের বিভিন্ন বিচ্ছিন্ন-বিপন্ন দ্বীপে। স্বাস্থ্যমান, জীবনমান ও গড়আয়ু বৃদ্ধির কারণে এখন দেশে দেশে স্বাস্থ্যেজ্জ্বল-নিরোগ মানুষের সংখ্যা বাড়ছে।

তুলনায় বাংলাদেশে ভেজাল ও নানা ফেরেববাজিতে বাড়ছে রোগ-ব্যাধি। নেশা ও যৌনাত্মক ওষুধের অতি-প্রয়োগে ক্ষয়ে যাচ্ছে তরুণ সমাজ। ধর্ম ও নৈতিকতার অভাবে শহুরে ও শিক্ষিত তরুণ-তরুণীরা আক্রান্ত হচ্ছে নানা সংক্রামক ব্যাধিতে। অশিক্ষার কারণে গ্রামীণ তরুণ-তরুণীরাও আক্রান্ত হচ্ছে নানা স্বাস্থ্যগত সমস্যায়। এসব থেকে মানুষকে, বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মকে বাঁচাতে প্রয়োজন মানবিক চিকিৎসা ব্যবস্থা ও স্বাস্থ্যসেবার। এই কাজে নেতৃত্ব দিতে হবে চিকিৎসক সমাজকে। কিন্তু তারা নিজেরাই যদি দুর্নীতিগ্রস্ত, লোভী, অমানবিক, প্রশ্ন দেখে পাশ করা বা প্রচুর অর্থে সার্টিফিকেট কেনা চিকিৎসক হন, তাহলে তারা দেশের মানুষের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাগত বিপদ দূর করতে পারবে কি? নাকি তারাই নতুন নতুন বিপদ ডেকে আনবে?

এসব বিষয় খতিয়ে দেখার জন্য মন্ত্রী, মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর আছে। কিন্তু তারপরও ভালো-মন্দ খতিয়ে দেখে ভবিষ্যতকে ভয়মুক্ত করা হচ্ছে না কেন? খাদ্য, বস্ত্র, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ইত্যাদি মৌলিক মানবিক ক্ষেত্রগুলোকে নিরাপদ রাখার জন্য কঠোর পদক্ষেপের বিকল্প নেই। এসব গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে দলবাজি বা তেলবাজির ধ্বজা তুলে  গোপনে ব্যক্তিগত আর্থিক ফায়দা হাসিলকারীদের লাভ হলেও যে জাতির বিরাট ক্ষতি হচ্ছে, তা অনুধাবন করতে হবে। স্বাস্থ্য, শিক্ষা ইত্যাদিকে দুর্নীতি ও অনিয়মের বাইরে সার্বজনীন গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে স্থান দিতে না পারলে পরিস্থিতির অবনতিই হবে, উন্নতি হবে না।     

বাংলাদেশ সময়: ১৮০৩ ঘণ্টা, মে ১৬, ২০১৭
এএ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

মুক্তমত বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa