ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ ভাদ্র ১৪২৬, ২০ আগস্ট ২০১৯
bangla news

ক্লাসে হাজির ‘লক্ষ্মী’ ছাত্রী!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৮-০৩ ৪:০৯:০৩ পিএম
সহপাঠীর লেখা দেখছে লক্ষ্মী! ছবি: সংগৃহীত

সহপাঠীর লেখা দেখছে লক্ষ্মী! ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: বানর বাঁদরামি করবে, এটাই স্বাভাবিক! কিন্তু, কখনো শুনেছেন সে স্কুলে যায়, সহপাঠীদের সঙ্গে খেলে, আবার সময়মতো টিফিনও খায়? বানর এতটা লক্ষ্মী হতে পারে? উত্তর- হ্যা!

অবাক হলেও ঘটনা সত্য! ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের একটি স্কুলে নিয়মিত ক্লাস করছে লেঙ্গুর প্রজাতির একটি বানর। স্কুলের ছেলে-মেয়েরাও তাকে সানন্দে সহপাঠী বলে মেনে নিয়েছে। তারা এখন একসঙ্গে বসে শিক্ষকের লেকচার শোনে, খাবার খায়, টিফিন পিরিয়ডে খেলাধুলা করে, আবার ক্লাস শেষে যার যার বাড়ি ফিরে যায়। গত ১২ দিন ধরে এভাবেই চলছে ভেঙ্গালামপল্লি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল লতিফ জানান, এত ভদ্র লেঙ্গুর সচরাচর দেখা যায় না। এ কারণে শিক্ষার্থীরা আদর করে তার নাম দিয়েছে ‘লক্ষ্মী’। 

সে স্কুলে আসতে কখনোই দেরি করে না, ঘণ্টা বাজার সঙ্গে সঙ্গেই ক্লাসে হাজির। আর সেখানেও সে কোনো দুষ্টামি নয়, মন দিয়ে শিক্ষকের কথা শোনে, স্কুলের নিয়ম-কানুন মেনে চলে। এমনকি সকালের অ্যাসেম্বলিতেও যোগ দেয় লক্ষ্মী। 

তবে, পড়াশোনার(!) পথে তার সামনে যে কোনো বাধা আসেনি, তা কিন্তু নয়। ছেলে—মেয়েদের মনযোগ সারাক্ষণ তার দিকে থাকছে দেখে লক্ষ্মীর ক্লাসে ঢোকা বন্ধ করে দিয়েছিল স্কুল কর্তৃপক্ষ। তাতেও দমে যায়নি সে। দরজা বন্ধ করে রাখলেও ক্লাস চলাকালে জানালা দিয়ে উঁকি দিয়ে শিক্ষকের কথা শুনতো এ ভদ্র লেঙ্গুর।   

এভাবে কয়েকদিন যেতে না যেতেই একদিন হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে লক্ষ্মী। পশু চিকিৎসক ডাকা হলে তিনি জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের দেওয়া জাঙ্কফুড খেয়ে খেয়ে পেটে সমস্যা দেখা দিয়েছে তার। এরপর থেকেই লক্ষ্মীর জন্য কড়া ‘ডায়েট কন্ট্রোলের’ ব্যবস্থা করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। তেল জাতীয় সব খাবার বাদ, এখন টিফিন পিরিয়ডে তাকে শুধু ফলমূলই খেতে দেওয়া হয়। সবার সেবাযত্নে দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠার পর ফের তাকে ক্লাসে বসার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। অন্যদের মতো পড়তে না পারলেও, বাধ্য ছাত্রীর মতো ঠিকই শিক্ষকের কথা শোনে লক্ষ্মী। 

উন্নত বিশ্বের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থীদের মানসিক অবসাদ ঘোঁচাতে পশুপাখি পোষার পরামর্শ দেওয়া হয়। ভেঙ্গালামপল্লি স্কুলে লক্ষ্মী এ কাজটিই করছে। প্রধান শিক্ষক জানান, সে আসার পর থেকেই স্কুলের শিক্ষার্থীদের হাজিরা প্রতিদিনই প্রায় শতভাগ পূরণ হচ্ছে। 

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৫ ঘণ্টা, আগস্ট ০৩, ২০১৯
একে

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

অফবিট বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2019-08-03 16:09:03