ঢাকা, শনিবার, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাতীয়

সীমান্তে মিয়ানমারের ‘হামলা’ প্রতিরোধের দাবি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৪৩ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
সীমান্তে মিয়ানমারের ‘হামলা’ প্রতিরোধের দাবি

ঢাকা: বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের সভাপতি ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু বলেন, মিয়ানমার ইস্যুতে জাতিসংঘের ভূমিকা সন্তোষজনক নয়। সুতরাং আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সর্বোচ্চ কূটনৈতিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে এ সমস্যার সমাধান করা উচিত।

 

একই সাথে বাংলাদেশ সীমান্তে মিয়ানমারের ‘হামলা’ প্রতিরোধের দাবি জানিয়েছেন শান্তি পরিষদের সভাপতি।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে (২৯ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের আয়োজিত ‘সীমান্তে মিয়ানমার সৃষ্ট উত্তেজনা, বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তা এবং রোহিঙ্গাদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন প্রসঙ্গ’ শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

শান্তি পরিষদের সভাপতি মোজাফফর হোসেন পল্টু বলেন, সারা বিশ্বের সাধারণ জনগণ যখন কোভিড অতিমারি মোকাবিলায় অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে তখন স্বাস্থ্য খাতে অর্থ ব্যয় করার পরিবর্তে মিয়ানমার বাহিনী নিজ দেশের মানুষকে হত্যা করার জন্য অস্ত্র কিনছে। মিয়ানমার বাহিনী নানা অজুহাতে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ সীমান্তকে অস্থির করে তুলছে। এর পেছনে কি কোনো বিদেশি শক্তির দুরভিসন্ধি রয়েছে? বাংলাদেশের শান্তিকামী জনগণের পক্ষ থেকে এসব প্রশ্ন নানাভাবে উঠে আসছে। তাই দেশপ্রেমিক অবস্থান থেকে বাংলাদেশ সীমান্তে মিয়ানমারের সৃষ্ট এই উত্তেজনার প্রকৃত উদ্দেশ্য খুঁজে বের করা দরকার এবং এর একটি নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক তদন্ত হওয়া দরকার।  

সভায় বক্তারা বলেন, একদিকে ইউক্রেন যুদ্ধ বর্তমান বিশ্বকে এক ভয়াবহ জায়গায় নিয়ে গেছে। অন্যদিকে বাংলাদেশের সীমান্তে মিয়ানমারের অব্যাহত উস্কানি এবং অস্থিরতা পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলেছে। বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে উত্তেজনা আচমকা সৃষ্ট কোনো ঘটনা নয়। এরকম ঘটনা এর আগেও ঘটেছে। ২০২০, ২০১৮ এবং ২০১৪ সালেও সীমান্তে মিয়ানমার বাহিনী উত্তেজনা সৃষ্টি করেছিল। সম্প্রতি গত ১৬ সেপ্টেম্বর মিয়ানমার বাহিনী বাংলাদেশের ভূখণ্ডে মর্টার শেল নিক্ষেপ করে এবং এতে রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে থাকা ইকবাল নামে এক তরুণ নিহত হন এবং ছয় জন গুরুতর আহত হয়।

বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের সভাপতি মোজাফফর হোসেন পল্টুর সভাপতিত্বে সেমিনারে বক্তব্য দেন সুপ্রিমকোর্টের বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট হাসান তারিক চৌধুরী, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান নিজামুল হক নাসিম, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পশ্চিম) শাব্বির আহমদ চৌধুরী, অধ্যাপিকা মাহফুজা খানম, সিপিবি সভাপতি মোহাম্মদ শাহ আলম, বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন-অর-রশীদ।

আরও উপস্থিত ছিলেন জাসদ সাধারণ সম্পাদক শিরীন আক্তার, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন, সাবেক রাষ্ট্রদূত মমতাজ হোসেন, শান্তি পরিষদের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য ও ন্যাপের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন, শান্তি পরিষদের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য ও ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা মোস্তফা আলমগীর রতন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৪০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
এনবি/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa