ঢাকা, সোমবার, ১১ আশ্বিন ১৪২৯, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৮ সফর ১৪৪৪

জাতীয়

শ্রমিক লাঞ্ছনার প্রতিবাদে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়ক অবরোধ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮২৯ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০২২
শ্রমিক লাঞ্ছনার প্রতিবাদে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়ক অবরোধ

বরিশাল: বাস মালিক সমিতির কর্মচারীরা সিগনাল দিলে না দাঁড়ানোয় দুই ইজিবাইক শ্রমিককে মারধর ও লাঞ্ছনা করার অভিযোগ উঠেছে।

এর প্রতিবাদে শনিবার (১৩ আগস্ট) দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে স্থানীয় চালক-শ্রমিকরা বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়ক অবরোধ করে।

পরে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অনুরোধে ও পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে সড়ক অবরোধ তুলে নেয় আন্দোলনকারীরা।

শ্রমিকরা জানায়, সকাল ১০টায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়ক দিয়ে ইজিবাইক চালিয়ে যাচ্ছিল মিলন মীরা ও রাব্বি হাওলাদার। সে সময় বাস মালিক সমিতির কর্মচারীরা সিগনাল দিলেও না দাঁড়ানোয় মিলন মীরা ও রাব্বি হাওলাদারকে মারধর ও লাঞ্ছনা করা হয়। পরে স্থানীয় শ্রমিকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে হিরণ পয়েন্টে জড়ো হয় এবং দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত শ্রমিকরা বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। পরে সেখানে বিক্ষোভ সমাবেশ করে শ্রমিকরা।  

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা ও বাসদ বরিশাল জেলা শাখার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী, ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদ জিরো পয়েন্ট অঞ্চলের সভাপতি রুহুল আমিন, সহ-সভাপতি মানিক দেওয়ান, ২৫ নম্বর ওয়ার্ড সভাপতি শাহীন শরীফ।

ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা ও বাসদ বরিশাল জেলা শাখার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী বলেন, ঘটনার সময় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা চলছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিষয়টি আন্দোলনকারীদের জানালে পরীক্ষার্থীদের প্রতি সম্মান জানিয়ে সড়ক অবরোধ কর্মসূচি স্থগিত করা হয়।

যদিও এর আগে থেকে পুলিশ প্রশাসন বিষয়টি নিয়ে বসার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে। আমরা বলেছি শ্রমিকদের মারধর ও লাঞ্ছনাকারীদের ক্ষমা চাইতে হবে, সেইসঙ্গে এ ঘটনার বিচার হতে হবে। আর মহাসড়কে অবৈধ কোনো চেকপোস্ট থাকবে না। তবে আমাদের কোনো শ্রমিকদের সঙ্গে অন্যায় হলে আর তার বিচার না পেলে আমরা আবারও রাস্তায় নামবো।

এদিকে ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান-ইজিবাইক চালক সংগ্রাম পরিষদ বরিশাল জেলা শাখার সদস্য শহিদুল ইসলাম জানান, ইজিবাইক চালক-শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ করে প্রতিবাদ শুরু করলে বরিশাল জেলা বাস মালিক সমিতির সহ-সম্পাদক মো. আলামিন দোষী বাস শ্রমিকদের নিয়ে প্রশাসনের কাছে আশ্রয় নেয়। যদিও পরে বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান ও বিএমপির ট্রাফিক বিভাগের পরিদর্শক মো. সোহেলের মধ্যস্থতায় বাস মালিক সমিতির দোষী কর্মচারীরা ইজিবাইক শ্রমিকদের কাছে নিঃশর্তভাবে ক্ষমা চান। সেইসঙ্গে প্রশাসনের উপস্থিতিতে বাস মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আলামিন প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেন, বাস মালিক সমিতি এখন থেকে তাদের নিজস্ব বাস গাড়ি ব্যতীত ভিন্ন কোনো ইজিবাইককে সিগনাল দেবে না এবং শ্রমিকদের হয়রানি করবে না।

এরপর প্রশাসনের অনুরোধে শ্রমিকরা সড়ক অবরোধসহ পরবর্তী কর্মসূচি থেকে সরে আসেন বলে জানান শ্রমিক নেতা শহিদুল ইসলাম।

তবে মহাসড়কে ইজিবাইকসহ সব ধরনের থ্রি-হুইলার বন্ধের নির্দেশনা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাস্তবায়ন না করায় বাস মালিকরা লোকসানের মুখে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন। সেইসঙ্গে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে অবাধে থ্রি-হুইলার চলায় সড়ক দুর্ঘটনাও বাড়ছে বলে জানান তারা।

যদিও এসব বিষয়ে কিছু না বললেও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান জানান, বর্তমানে সড়কটিতে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৮২৮ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০২২
এমএস/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa