ঢাকা, শনিবার, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাতীয়

খুলনায় ‘উন্নয়নের সরণিতে পদ্মা সেতু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৫৮ ঘণ্টা, আগস্ট ১২, ২০২২
খুলনায় ‘উন্নয়নের সরণিতে পদ্মা সেতু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

খুলনা: খুলনায় ‘উন্নয়নের সরণিতে পদ্মা সেতু’ গ্রন্থের প্রকাশনা উৎসব সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার (১২ আগস্ট)  বেলা ১১টায়  খুলনা প্রেসক্লাবে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে গ্রন্থটির প্রকাশনা উৎসব হয়।

 

সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন এ অনুষ্ঠানের আয়োজক করে।  

ফাউন্ডেশনের নগর শাখার সভাপতি ও খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) উপ-পরিচালক গাজী আলাউদ্দিন আহমদ গ্রন্থটি সম্পাদনা করেছেন। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক।

প্রধান অতিথি তার বক্তৃতায় বলেন, পদ্মা সেতু দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের জন্য আশীর্বাদ, আত্মমর্যাদা ও অহংকারের প্রতীক। অনেক বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে আর ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে প্রমত্তা পদ্মার বুকে আজ বহু-কাঙ্খিত সেতু দাঁড়িয়ে আছে। এই অঞ্চলের মানুষ দীর্ঘদিন অবহেলিত ছিলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া এই সেতু নির্মাণ করার সাহস কারও ছিলো না।  

তিনি বলেন, পদ্মা সেতু নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ করে বিশ্বকে বাংলাদেশের সক্ষমতা দেখিয়ে দিয়েছেন শেখ হাসিনা। এই সেতু দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বড় ভূমিকা রাখবে। ইতোমধ্যে এসব জেলায় সেতু ঘিরে নানারকম অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড শুরু হয়েছে। পদ্মা সেতুর চালু হওয়ার পরে এ অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে এবং কর্মতৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে।

পরে মেয়র ‘উন্নয়নের সরণিতে পদ্মা সেতু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট পুলক কুমার মন্ডল, সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় মহাসচিব অধ্যাপক মাওলানা মোহাম্মদ আবেদ আলী ও পরিচালক ড. মুহাম্মদ মাসুম চৌধুরী। স্বাগত জানান সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, খুলনা মহানগর শাখার সহসভাপতি এসএম শাহনেওয়াজ আলী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন গ্রন্থের প্রকাশক ও সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, খুলনা মহানগর শাখার সভাপতি গাজী আলাউদ্দিন আহমদ।

গ্রন্থটির নানা বিষয় নিয়ে বক্তৃতা করেন খুলনা গেজেট-এর যুগ্ম সম্পাদক শেখ দিদারুল আলম৷

এসময় সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের নগর শাখার সাধারণ সম্পাদক এম এ মান্নান বাবলু’র সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আছাদুজ্জামান, ‘দেশ সংযোগ’ পত্রিকার সম্পাদক মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, ‘খুলনা গেজেট’ নির্বাহী সম্পাদক কাজী মোতাহার রহমান বাবু, আইনজীবী ফরিদ আহমেদ, যশোর এমএম কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ড. খ ম রেজাউল ক‌রিম, খুবির গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মামুন উর রশীদ প্রমুখ।  

উল্লেখ্য, উন্নয়নের সরণিতে পদ্মা সেতু’ গ্রন্থে তিন পর্বে ৫২টি প্রতিবেদন, নিবন্ধ ও সাক্ষাৎকার বা অভিমত প্রকাশিত হয়েছে। উল্লেখযোগ্য প্রবন্ধগুলো হচ্ছে : সম্ভাবনার নতুন অধ্যায়ে বাংলাদেশ, খুলে গেল দখিনের দুয়ার, বাঙালির অহঙ্কার পদ্মা সেতু : শুরু থেকে শেষ, পদ্মার আলোয় আলোকিত মাওয়া থেকে জাজিরা, পদ্মা সেতুতে গাড়ি চলাচলের গতিসীমা ৬০ কি.মি., নদীর নামেই পদ্মা সেতুর নামকরণ, উদ্বোধন ২৫ জুন, ভোমরা হবে আমদানী রফতানীর সিংহদ্বার, কলকাতা থেকে ঢাকা: কমেছে সময় ও দূরত্ব, দক্ষিণাঞ্চলের কৃষি উন্নয়নের সিড়ি পদ্মা সেতু, উন্নয়নের মাইলফলক পদ্মা সেতু, পদ্মা সেতু ও পর্যটন সম্ভাবনা: আমাদের সক্ষমতা, এবার স্বপ্ন পৌঁছে যাবে বাড়ি, পদ্মা সেতু বাংলাদেশের গর্ব, আমাদের অহংকার, যোগাযোগে পরিবর্তনের পাশাপাশি নিরসন হবে আঞ্চলিক বৈষম্য, রূপসা থেকে পদ্মা, স্বপ্নের পদ্মা সেতু আধুনিক বাংলাদেশের সক্ষমতার প্রতীক, পদ্মা সেতু ও দক্ষিণাঞ্চলের নারীজীবন, বঙ্গমাতা, রুবাইয়াতে পদ্মা সেতু ইত্যাদি।  

গ্রন্থটিতে যাদের প্রবন্ধ, সাক্ষাৎকার বা অভিমত প্রকাশিত হয়েছে তাদের মধ্যে রয়েছেন: প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, কেসিসি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, সংসদ সদস্য নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, আব্দুস সালাম মূর্শেদী ও মো. আক্তারুজ্জামান বাবু, খুবির সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. গোলাম রহমান, খুবি উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন, কুয়েট উপাচার্য প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন, খুলনা কৃষি বিশ্বিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. শহীদুর রহমান খান, নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. বজলার রহমান, মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা, খুবি প্রফেসর ড. মো. ওয়াসিউল ইসলাম, প্রফেসর ড. মো. নাসিফ আহসান, প্রফেসর ড. তুহিন রায় ও মামুন অর রশিদ, ড. খ. ম. রেজাউল করিম, অধ্যাপক জাফর ইমাম, অধ্যাপক ড. বামুদেব চন্দ্র ঘোষ, উপসচিব ও কনসালটেন্ট এটুআই জিয়াউর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু, খুলনা চেম্বার সভাপতি কাজী আমিনুল হক, সাংবাদিক কাজী মোতাহার রহমান, শেখ দিদারুল আলম, সানোয়ার পারভেজ ও মোহাম্মদ মিলন, খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. সাইফুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট ফরিদ আহমেদ, শিক্ষাবিদ গাজী আবদুল্লাহহেল বাকী, মিনু মমতাজ, এম এ মান্নান বাবলু, আসিফ আলতাফ প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৫ ঘণ্টা, আগস্ট ১২, ২০২২
এমআরএম/এসএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa