ঢাকা, সোমবার, ১১ আশ্বিন ১৪২৯, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৮ সফর ১৪৪৪

জাতীয়

ভোটের জন্য নয়, মানুষের জন্য কাজ করার আহ্বান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৩৬ ঘণ্টা, জুলাই ২৮, ২০২২
ভোটের জন্য নয়, মানুষের জন্য কাজ করার আহ্বান ‘কার্যকর ও জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার (ইএএলজি)’ প্রকল্প এবং ইউএনডিপি আয়োজিত সম্মেলনে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম | ছবি: জিএম মুজিবুর

ঢাকা: স্থানীয় পর্যায়ে সুশাসন কায়েম করতে ভোটের জন্য নয়, মানুষের জন্য কাজ করতে জনপ্রতিনিধিদের আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘কার্যকর ও জবাবদিহিমূলক স্থানীয় সরকার (ইএএলজি)’ প্রকল্প এবং ইউএনডিপি কর্তৃক আয়োজিত ‘স্টেকহোল্ডার কনফারেন্স অন লোকাল গভর্ন্যান্স: প্রগ্রেস, লার্নিং এবং ভবিষ্যৎ কর্মসূচি’ শীর্ষক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।

জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশ্য করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, দুঃশাসন কায়েম করলে বা সুশাসনের জন্য কাজ না করলে বার বার মানুষের সামনে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে। আমরা ভোটের জন্য কাজ করবো কেন? মানুষের জন্য কাজ করব। জনপ্রতিনিধিদের মর্যাদার জায়গায় যেতে হবে। সেখানে যেতে না পারলে জোর করে হয়তো টাইটেল পাবেন, কিন্তু কোনো লাভ নেই। তাই আমাদের জনগণের জন্য কাজ করতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, ১৯৯৬ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় আসার পর উন্নয়নের মোমেন্টামের পরিবর্তন হয়েছে। কারণ বঙ্গবন্ধুর যে দর্শন ছিল, সেই দর্শন নিয়ে কাজ শুরু করেছেন তিনি। মাথাপিছু আয় ৩০০ ডলার থেকে উন্নীত হয়ে এখন ২৮২৪ ডলার। আমাদের লক্ষ্যমাত্রা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়া।

১৯৭২ সালের বঙ্গবন্ধুর সংবিবিধানে বলা আছে, জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে সরকারি কর্মকর্তা এবং জনগণ একসঙ্গে কাজ করবে। বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে সুশাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আর এটা করতে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, সবাই মিলে যৌথভাবে কাজ করে বাংলাদেশকে একটা পরিবর্তনের জায়গায় নিয়ে আসবো। সম্পদ সৃষ্টি করে অন্যকে ভোগ করার সুযোগ করে দিতে হবে। কোথায় কী করণীয় আছে, শনাক্ত করে সমাধান করতে হবে।

স্থানীয় সরকারকে আয় করতে হবে উল্লেখ করে তাজুল ইসলাম বলেন, আমরা পৌরসভায় টাকা দেওয়া সংকুচিত করে দিয়েছি। পৃথিবীর অনেক দেশের এয়ারপোর্ট, সাবওয়ে লোকাল সিটি করপোরেশন করেছে। টেকসই উন্নয়ন করতে হলে আয় করতে হবে। স্থানীয় যে কৃষক রয়েছে, যাকে আপনি সহায়তা করবেন, বিনিময়ে তার কাছ থেকে ট্যাক্স নির্ধারণ করবেন। সেন্ট্রাল গভর্নমেন্টের ওপর থেকে ভার কমানোর জন্য ইউনিয়ন পরিষদের আয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। আপনি যদি সার্ভিস দেন, তাহলে মানুষ কেন টাকা দেবে না?

এ সময় ইএএলজি প্রকল্পের প্রকল্প সমন্বয়কারী মো. শরিফুল হক, সুইজারল্যান্ড দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত জনাব নাটালি শুয়ার্ড, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মোহাম্মেদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জিসহ আরো অনেকে বক্তব্য দেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৩২ ঘণ্টা, জুলাই ২৮, ২০২২
পিএম/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa