ঢাকা, শনিবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ আগস্ট ২০২২, ১৪ মহররম ১৪৪৪

জাতীয়

নবীনগরে নদী ভাঙনে বিলীন হয়েছে ২৫ বসতভিটা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭১৬ ঘণ্টা, জুলাই ৪, ২০২২
নবীনগরে নদী ভাঙনে বিলীন হয়েছে ২৫ বসতভিটা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া: মেঘনা নদীর তীরবর্তী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে গ্রামগুলোতে ধীরে ধীরে নদী ভাঙন শুরু হয়েছে। গত কয়েকদিনে অন্তত ২৫টি বসত ভিটা বিলীন হয়েছে।

ভাঙন ঝুঁকিতে আছে আরও অর্ধশত পরিবার। ভাঙন ঠেকানোর জন্য দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের।

জানা গেছে, প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলেই নবীনগর উপজেলার নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়নের মেঘনা নদীর তীরবর্তী এলাকায় ভাঙন দেখা দেয়। গত কয়েকদিনে ওই ইউনিয়নের চিত্রী, চরলাপাং ও দড়িলাপাং গ্রামের অন্তত ২৫টি ঘর-বাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

নদীতে ভিটে-মাটি হারিয়ে মানবেতর অবস্থায় আছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। নদীর অব্যাহত ভাঙনের কারণে ঝুঁকিতে আছে নদী তীরবর্তী আরও অন্তত অর্ধশত ঘর-বাড়ি। ভয়ে অনেকেই ঘরের আসবাবপত্র সরিয়ে নিয়েছেন। কেউ আবার আস্ত টিনের ঘরই সরিয়ে নিচ্ছেন অন্যত্র।

চিত্রী গ্রামের বাসিন্দারা জানান, দিন দিন বাড়ি ঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। কোনো রকম প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন। ঘরের আসবাবপত্র-গবাদি পশু কিছুই রক্ষা করতে পারেননি। মাত্র কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে অনেক ঘর বিলীন হয়েছে নদীগর্ভে। এখন মানবেতর অবস্থায় আছেন। এ অবস্থায় সরকারের সহযোগিতা চেয়েছেন পরিবারগুলো।

নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) একরামুল সিদ্দিক বলেন, ভাঙন ঠেকাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে নগদ অর্থ সহায়তা ও শুকনো খাবার দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৭১৫ ঘণ্টা, জুলাই ০৪, ২০২২
কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa