ঢাকা, শনিবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ আগস্ট ২০২২, ১৪ মহররম ১৪৪৪

জাতীয়

গণমাধ্যমকর্মীর ছবি তুলে নিজ দায়িত্বে পৌঁছে দিলেন প্রধানমন্ত্রী কন্যা!

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০১১ ঘণ্টা, জুন ২৯, ২০২২
গণমাধ্যমকর্মীর ছবি তুলে নিজ দায়িত্বে পৌঁছে দিলেন প্রধানমন্ত্রী কন্যা!

ঢাকা: সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধনে গিয়ে তার মেয়েকে ক্লিপ এগিয়ে দিচ্ছেন- এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। সে সময় ছবি তুলছিলেন তার কন্যা।

সে মুহূর্তে বিটিভির কর্তব্যরত দুই ক্যামেরাপারসনের ছবিও তোলেন তিনি। পরে প্রধানমন্ত্রীর এডিসির মাধ্যমে সেই ছবি তাদের কাছে পৌঁছানোর নির্দেশ দেন তিনি।

বাংলাদেশে অটিজম আন্দোলনের পথিকৃৎ বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্রী, প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের একজন সাধারণ ক্যামেরা পারসনের প্রতি এমন মনোযোগ নিয়ে প্রশংসা করেছেন নেটিজেনরা।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব এম এম ইমরুল কায়েস ফেসবুকে নিজের ভেরিফাইড পেইজে ঘটনার বিবরণ দিয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন। বাংলানিউজের পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরা হল—

মানুষের জন্য বঙ্গবন্ধু দৌহিত্রীর অনুভব-মমত্ববোধ:

গত ২৫ জুন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী হিসেবে স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যোগদানের সৌভাগ্য হয়েছিল আমার। মাওয়া প্রান্তের সুধী সমাবেশে বক্তব্য, টোলপ্লাজায় টোল দেওয়া এবং উদ্বোধন ফলক উন্মোচন শেষে প্রধানমন্ত্রী তাঁর গাড়িবহর নিয়ে পদ্মা সেতুতে ওঠেন। পরে সেতুর মাঝ বরাবর একটি স্থানে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর মনোজ্ঞ ফ্লাইপাস্ট উপভোগের জন্য শেখ হাসিনা অল্প সময়ের জন্য যাত্রা বিরতি করেন। এ সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী তাঁর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল একটি ক্যামেরায় বিভিন্ন ছবি তুলতে থাকেন।

পদ্মা সেতুতে দায়িত্বপালনরত বিটিভির দু'জন ক্যামেরা পারসনের একটি ছবি পাঠিয়ে গত পরশু সন্ধ্যায় আমার হোয়াটসঅ্যাপে প্রধানমন্ত্রীর এডিসি টেক্সট করেন যে- ছবিটি আমি যেন ওই দুই ক্যামেরাম্যানকে পৌঁছে দেই। বিষয়টি ভালোভাবে বোঝার জন্য এডিসিকে ফোন দিলে উনি জানান, প্রধানমন্ত্রীর কন্যা পুতুল তাঁর নিজ ক্যামেরায় ওই ছবিটি তুলেছেন এবং তাঁর কাছে যেহেতু ওই ক্যামেরাপারসনদের কন্টাক্ট নম্বর নেই, তাই তিনি এটা তাদের কাছে পৌঁছে দিতে বলেছেন।

কিছুক্ষণ আমি স্থবির হয়ে পড়ি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুরের দোহিত্রীর মানুষের প্রতি প্রগাঢ় অনুভব আমাকে অভিভূত করে! ঐতিহাসিক ওই মুহূর্তে অচেনা-অজানা বিটিভির দু'জন ক্যামেরাম্যানের ছবি তিনি না-ই তুলতে পারতেন; আর তুলেই যখন ফেলেছেন, পরে অপ্রয়োজনীয় ছবি হিসেবে তিনি এটি ডিলিট করে দিতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা করেননি! এটিই জাতির পিতার পরিবারের সদস্যদের গণমানুষের প্রতি নিখাদ ভালোবাসা ও মমত্ববোধ।

বাংলা জয়, জয় বঙ্গবন্ধু।

বাংলাদেশ সময়: ০০০৫ ঘণ্টা, জুন ২৯, ২০২২
এমকে/এসআরএস
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa