ঢাকা, শনিবার, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ জুলাই ২০২২, ০১ জিলহজ ১৪৪৩

জাতীয়

নারীর ক্ষমতায়নে দক্ষতা-সক্ষমতা বাড়ানোর আহ্বান 

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০০৩ ঘণ্টা, মে ২৫, ২০২২
নারীর ক্ষমতায়নে দক্ষতা-সক্ষমতা বাড়ানোর আহ্বান 

ঢাকা: অরগানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন (ওআইসি) ভুক্ত দেশে নারীর ক্ষমতায়ন ও জেন্ডার সমতা অর্জনে শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, দক্ষতা ও সক্ষমতা বাড়ানো এবং কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা।

বুধবার (২৫ মে) মিসরের কায়রোতে অনুষ্ঠিত এবং অরগানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন (ওআইসি) এর উইমেন ডেভেলপমেন্ট অরগানাইজেশন আয়োজিত ‘পরিবারের মধ্যে নারী ও মেয়েদের ক্ষমতায়নে পরিবার-ভিত্তিক নীতির ভূমিকা’ শীর্ষক অনলাইন সিম্পোজিয়ামে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি থেকে ভার্চ্যুয়ালি অংশ নিয়ে তিনি আহ্বান জানান।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভীন, অতিরিক্ত সচিব মো. মুহিবুজ্জামান ও শিশু একাডেমির মহাপরিচালক মো. শরিফুল ইসলাম।  

প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বলেন, নারীর উন্নয়ন ও ক্ষমতায়ন ব্যক্তি এবং পরিবারের সদস্যদের উপলব্ধি, স্বামী-স্ত্রীর ইতিবাচক ভূমিকা, গৃহস্থালির কাজ ভাগাভাগি, সামাজিক রীতি-নীতি, ধর্মীয় বিশ্বাস, মূল্যবোধ এবং পুরুষের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের সঙ্গে জড়িত। এজন্য নারীদের প্রশিক্ষণ, উপযুক্ত শিক্ষা, টেকনিক্যাল সাপোর্ট, আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে। নারীর প্রতি ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি সৃষ্টি করতে সচেতনতামূলক কার্যক্রম জোরদার করতে হবে। পরিবার থেকেই নারীর ক্ষমতায়ন ও সমতা অর্জনের প্রাথমিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।  

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি, শিশু নীতি, শিক্ষা নীতি, স্বাস্থ্য নীতি, অ্যাডোলেসেন্ট হেলথ স্ট্রাটেজি, বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন, যৌতুক নিরোধ আইন, পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধ আইন এবং নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। যা পরিবার থেকেই নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করছে। এসব নীতি, কৌশল, কর্মপরিকল্পনা ও আইন প্রণয়ন করেছেন এবং তা বাস্তবায়নের ফলে বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নে বিশ্বে রোল মডেল সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশে আজ প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, বিরোধী দলীয় নেতা ও সংসদ উপনেতা নারী যা বিশ্বে অনন্য উদাহরণ সৃষ্টি করেছে।

এ সিম্পোজিয়ামে অরগানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশন (ওআইসি) ভুক্ত দেশের নারী ও জেন্ডার সমতা বিষয়ক মন্ত্রী এবং প্রতিনিধিরা নারীর উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়নে নিজ নিজ দেশের কার্যক্রম তুলে ধরেন। একই সঙ্গে নারীর ক্ষমতায়নে ওআইসি ভুক্ত দেশের জন্য বিভিন্ন সুপারিশ তুলে ধরেন তারা।

মিসরের ন্যাশনাল উইমেন কাউন্সিল এর প্রেসিডেন্ট মিজ ড. মায়া মুরসী এর সভাপতিত্বে ওআইসির ডিজি ড. আমিনা আল হাজরিসহ মালদ্বীপ, গাম্বিয়া, তুরস্ক, পাকিস্তান, মিসর, ওমান, প্যালেস্টাইন, ইরাক, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সৌদি আরবসহ ওআইসিভুক্ত বিভিন্ন দেশের নারী উন্নয়ন ও জেন্ডার সমতা বিষয়ক মন্ত্রী বক্তব্য দেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০০৩ ঘণ্টা, মে ২৫, ২০২২
জিসিজি/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa