ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৮ মে ২০২৪, ১৯ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী কর্মীরা অনুগত  ও পরিশ্রমী

ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩৪০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২২
মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী কর্মীরা অনুগত  ও পরিশ্রমী

ঢাকা: মালয়েশিয়ার প্ল্যান্টেশন ইন্ডাস্ট্রি অ্যান্ড কমোডিটিজ মন্ত্রী দাতুক জুরাইদা কামারউদ্দিন জানিয়েছেন, ২০২১ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২২ সালের জানুয়ারিতে বাংলাদেশে মালয়েশিয়ার পাম তেলের আমদানি ১৩ গুণ বেড়েছে। শুক্রবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর হোটেল রেডিসনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

ঢাকা সফররত মালয়েশিয়ার প্ল্যান্টেশন ইন্ডাস্ট্রি অ্যান্ড কমোডিটিজ মন্ত্রী দাতুক জুরাইদা কামারউদ্দিন বলেন, মালয়েশিয়া পাম অয়েল, রাবার, কাঠসহ বিভিন্ন শিল্প পণ্য এখানে প্রক্রিয়াজাত করা যায় তার উপায় খুঁজছে। এ লক্ষ্যে মালয়েশিয়ার ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে যৌথ উদ্যোগে শিল্প স্থাপনের জন্য সক্রিয়ভাবে চিন্তাও করছেন বলে জানান তিনি।

মালয়েশিয়ার মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগের পরিবেশ অনেক উন্নত হচ্ছে। বাংলাদেশে ক্রমবর্ধমান আসবাবপত্র এবং পাদুকা শিল্পে মালয়েশিয়ার কাঠ ও রাবারের চাহিদা রয়েছে। এখানে এ সংশ্লিষ্ট কারখানাও থাকতে পারে, যা এই পণ্যগুলিকে প্রক্রিয়াজাত করবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশের টেক্সটাইল, ফুটওয়্যার এবং চামড়া শিল্প পণ্যের মালয়েশিয়ায় রপ্তানির বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। এর মধ্যে দিয়ে বিপুল বাণিজ্য ভারসাম্যহীনতা দূর হতে পারে।

তিনি সাম্প্রতিক পরিসংখ্যানের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশে রপ্তানি হয় ১.৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর মালয়েশিয়া বাংলাদেশ থেকে বছরে মাত্র ৮ লাখ ডলারের পণ্য আমদানি করে।

মন্ত্রী বলেন, মালয়েশিয়ায় বৃক্ষরোপণ খাতে প্রায় ৫ লাখ বিদেশি শ্রমিক রয়েছে এবং তাদের মধ্যে দুই লাখ বাংলাদেশি। বাংলাদেশী শ্রমিকদের অনুগত ও পরিশ্রমী উল্লেখ করে তিনি বলেন, তার মন্ত্রণালয় বিদেশী কর্মীদের সর্বোত্তম কর্ম পরিবেশ দেওয়ার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করে।

সংবাদ সম্মেলেন ঢাকায় নিযুক্ত মালয়েশিয়ার হাইকমিশনার হাজনাহ মো. হাশিম উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ২৩৪০ ঘন্টা, ফেব্রুয়ারি, ২৫ ২০২২
টিআর/আরইউ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।