ঢাকা, সোমবার, ৯ কার্তিক ১৪২৮, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় প্রধান আসামি গ্রেফতার

ডিস্ট্রিক্ট করসেপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২০৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১
ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় প্রধান আসামি গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় এক ব্যাংক কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় প্রধান আসামি সজিবুল ইসলাম সজিবকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।


 
জানা যায়, ঋণের টাকা ফেরত চাওয়ায় মারধরের শিকার হয়ে গত ১৬ সেপ্টেম্বর চারজনের নামোল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় আরও সাত থেকে আটজনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন এনআরবিসি ব্যাংকের আড়াইহাজার শাখার ডেপুটি ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম।

সজিব এ মামলার মূল আসামি। তিনি আড়াইহাজার থানার খাগকান্দা ইউনিয়ের সাবেক চেয়ারম্যান মৃত শহিদুল ইসলাম ওরফে নুরু মোক্তারের ছেলে। এ মামলার অপর আসামিরা হলেন- জাকির খান সাগর, তাছলিমা আক্তার ও মুজাহিদ।

এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিসুর রহমান মোল্লা ও শামীম আল মামুন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, দুবাই প্লাজার জাকির খান কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারের মালিক জাকির খান গত এক বছর আগে এনআরবিসি ব্যাংকের আড়াইহাজার শাখা থেকে তিন লাখ টাকা ঋণ নেন। তার ঋণের জামিনদার ছিলেন খাগকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফুলের মা তাছলিমা আক্তার ও ভাই সজিব। প্রাথমিকভাবে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করে আসছিলেন তাছলিমা আক্তার ও সজিব। কিন্তু হঠাৎ তারা কিস্তি দেওয়া বন্ধ করে দেন। কিস্তি পরিশোধের কথা বলা হলে তারা টালবাহানা শুরু করেন। একপর্যায়ে চার-পাঁচ মাসের কিস্তি বাকি থাকায় বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) দুবাই প্লাজায় জাকিরের কাছে যান এনআরবিসি ব্যাংকের ম্যানেজার কচি শিকদার, ক্রেডিট অফিসার আজহারুল হক ও মনিরুল ইসলাম।
এ সময় জাকির খানের কাছে কয়েক মাসের বকেয়া ও চলতি কিস্তি চাইলে তিনি উত্তেজিত হন। পরে জাকিরের পক্ষ নিয়ে তাছলিমা ব্যাংক কর্মকর্তাদের গালিগালাজ করেন এবং মারতে উদ্যত হন। পরে ব্যাংকে ফিরে যান কর্মকর্তারা। এর জেরে বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ব্যাংক কর্মকর্তা মনিরুলকে বাসা থেকে ডেকে বের করেন সজিব। পরে সজিবের নেতৃত্বে সাত-আটজন হকিস্টিক ও রড দিয়ে তাকে মারধর করেন। এ সময় তার সঙ্গে থাকা ৫৫ হাজার টাকা মূল্যের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেন তারা। মনিরুলকে মারধরের সময় তার স্ত্রী আয়েশা বানু এগিয়ে এলে তাকেও পিটিয়ে আহত করা হয়। পরে তাদের হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায় হামলাকারীরা। মারধরে মনিরুলের এক চোখ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ২২০৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১
আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa