ঢাকা, বুধবার, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

প্রবাসীদের ভিসার মেয়াদ বাড়াতে কাজ করছে সরকার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৩১ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১
প্রবাসীদের ভিসার মেয়াদ বাড়াতে কাজ করছে সরকার

ঢাকা: প্রবাসীদের জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই) সরকার যাত্রা শুরুর ৬ ঘণ্টা আগে র‍্যাপিড পিসিআর টেস্ট করানোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। তবে দীর্ঘদিন ধরে ঢাকার হযরত শাহজালাল আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দরে এ ব্যবস্থা না থাকায় আমিরাতে ফিরতে পারছিলেন না প্রবাসীরা।

ফলে অনেকের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। এতে আরও জটিলতায় পড়েছেন তারা।

তবে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রবাসীদের ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়ে সরকারের পররাষ্ট্র, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন এবং প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়সহ সিভিল এভিয়েশন একযোগে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এরই মধ্যে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে র‍্যাপিড পিসিআর টেস্ট করানোর ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। পরীক্ষামূলক নমুনা সংগ্রহ করা হলে আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর তা চালু হবার কথা রয়েছে। এটি চালু হলে প্রবাসীদের গন্তব্যে যেতে আর বাধা থাকবে না।

রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বেসরকারি ছয়টি প্রতিষ্ঠানের স্থাপিত র‍্যাপিড পিসিআর টেস্ট করানোর ল্যাব পরিদর্শন শেষে এসব তথ্য জানান বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান।

বিমানবন্দরের প্রবাসীদের জন্য র‍্যাপিড পিসিআর টেস্ট করানোর ল্যাব না থাকার জটিলতায় যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, তাদের বিষয়ে কি ব্যবস্থা নেওয়া হবে- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিষয়টি সুরাহা করতে সরকারের পক্ষ থেকে চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রবাসী কল্যাণ, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন এবং  পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ আমরা বিষয়টি নিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের এখানে করোনার টেস্ট যদি সংযুক্ত আরব আমিরাতে গ্রহণযোগ্যতা পায় তারপর আমরা আবারও আলোচনা করবো।

তিনি আরও বলেন, যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে, তাদের বিষয়ে এই মন্ত্রণালয়গুলো থেকে কাজ করা হচ্ছে। আর সিভিল এভিয়েশনের পক্ষ থেকে এই কাজগুলো যাতে দ্রুত ত্বরান্বিত করা যায় সে বিষয়ে চেষ্টা চলছে।

বিমানবন্দরে বেসরকারি যে ৬টি প্রতিষ্ঠান ল্যাব স্থাপন করেছে, তাদের এসপিওগুলো আমরা সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাঠিয়েছি। সেখানে এরই মধ্যে তাদের বেটিং শেষ, আমরা আশাবাদী রোববারের মধ্যেই অনুমোদন চলে আসতে পারে।   পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মাধ্যমে আমরা কথা বলেছি। আশাকরি ৬টি প্রতিষ্ঠানই করোনা টেস্টের অনুমোদন পাবে।

মো. মফিদুর রহমান বলেন, আপাতত র‍্যাপিড পিসিআর টেস্ট করানোর ল্যাব স্থাপনের কাজ শেষ হয়ে গেছে। ‘টেস্ট রান’ চলছে। এটা সফল হলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে কী পরিমাণ যাত্রী বিমানবন্দরে টেস্ট করাতে পারবেন, সেই সংখ্যাও আমাদেরকে তারা জানিয়ে দেবে। সে অনুযায়ী আমরা এয়ারলাইন্সগুলোকে অবহিত করব। তারা যাতে সমসংখ্যক টিকেট বিক্রি শুরু করে। এর জন্য ৪৮ ঘণ্টা সময় দিতে হবে।

তিনি বলেন, রোববারের মধ্যেই স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে আমাদেরকে রেজাল্ট জানিয়ে দেওয়া হলে আশা করছি, যে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই আমরা করোনা পরীক্ষা শুরু করতে পারব।

ঢাকা বিভাগের সিভিল সার্জন আবু হোসেন মো. মঈনুল আহসান বলেন, শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) আমরা টেস্ট করেছিলাম। তবে আমাদের সেফটি লেভেলে কিছুটা সমস্যা ছিল। সে সমস্যা আমরা শুক্রবার রাতের মধ্যেই কাটিয়ে উঠেছি।

করোনা টেস্ট ফি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা রোবারে মধ্যেই আমরা জানিয়ে দেওয়া হবে।

অনুমোদন পাওয়া ৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২টির বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ থাকার পরও তাদের কেনো বিমানবন্দরে টেস্টিং ল্যাব বসানোর অনুমোদন দেয়া হলো- জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ মুহূর্তে এখানে নিষিদ্ধ কোনো ল্যাবকে অনুমোদন দেওয়া হয়নি। যাদের কথা বলছেন আগে তাদের সমস্যা ছিল, এখন সেই সমস্যা তারা কাটিয়ে উঠেছেন। তাদের ল্যাবগুলো আমরা পরীক্ষা করে অনুমোদন দিয়েছি।

এ সময় বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেন, যদি সবকিছু ঠিক থাকে তবে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই আমরা যাত্রী ও প্রবাসীদের করণা টেস্টিং শুরু করতে পারব। আশা করছি ইনশাল্লাহ সবাই ভালোভাবে যেতে পারবেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯২৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১
এসজেএ/এমএমজেড

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa