ঢাকা, বুধবার, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

নড়াইলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩ শিক্ষক করোনা আক্রান্ত

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯২৪ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১
নড়াইলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩ শিক্ষক করোনা আক্রান্ত

নড়াইল: নড়াইলের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩ জন শিক্ষক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন শিক্ষক হাসপাতালে এবং অন্যরা সবাই বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

 

আক্রান্তরা হলেন- লোহাগড়া উপজেলার নোয়াগ্রাম ইউনিয়নের ৩৩ নম্বর হান্দলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

করোনায় আক্রান্তের খবর ছড়িয়ে পড়লে বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্র শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

হান্দলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের করোনা আক্রান্ত সহকারী শিক্ষক নাঈম পারভেজ মনি বাংলানিউজকে বলেন, আমার জ্বরসহ করোনা উপসর্গ দেখা দিলে গত ১৮ সেপ্টেম্বর লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দেওয়া হয়। চারদিন পর গত ২২ সেপ্টেম্বর মোবাইলে মেসেজ আসে যে আমার করোনা পজিটিভ। এরপর শারীরিক অবস্থা খারাপের দিকে গেলে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছি।

এছাড়া আমাদের বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জান্নাত আরা যুথী ও স্বপ্না রানী পালের শরীরে করোনা উপসর্গ দেখা দিলে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে নমুনা দেন। তাদেরও পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। বর্তমানে ওই দুই শিক্ষিকা বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফাতেমা জোহরা বাংলানিউজকে বলেন, আমাদের ৩৩ নম্বর হান্দলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩ জন শিক্ষক করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়া মিথিলা ফারজানা নামে আরো একজন সহকারী শিক্ষিকা জ্বরসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে বাড়িতে অবস্থান করছেন। আমরা আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি এবং শিক্ষার্থীদেরও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান চালিয়ে যাচ্ছি।

লোহাগড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, হান্দলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তিন জন শিক্ষক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। প্রতিদিন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করেই পাঠদান চালানো হচ্ছে। কেউ অসুস্থ্ হলে তাকে স্কুলে না আসার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।  

এদিকে গত ১৪ সেপ্টম্বর থেকে নড়াইল দক্ষিণপূর্ব মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা সালমা ইয়াসমিন ও একই বিদ্যালয়ে অধ্যায়ণরত ওই শিক্ষিকার ছেলে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র তাহমিদ আহমেদ করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. হুমায়ুন কবীর বাংলানিউজকে জানান, দুটি স্কুলে আরো সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান চালু রাখা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯১৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১
এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa