ঢাকা, মঙ্গলবার, ১০ কার্তিক ১৪২৮, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

ঋণের কিস্তি নিয়ে বিরোধ, প্রতিপক্ষের তামাক ঘরে নারীর মরদেহ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৭ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১
ঋণের কিস্তি নিয়ে বিরোধ, প্রতিপক্ষের তামাক ঘরে নারীর মরদেহ

নাটোর: নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় জাম্বিয়া বেওয়া (৫০) নামে এক নারীর মরদেহ পাওয়া গেছে তার সুদের কারবারের অংশীদার নইমউদ্দিন মোল্লার তামাক ঘরে। দু’জনের মধ্যে টাকা লেনদেন ও ঋণের কিস্তি পরিশোধ না করা নিয়ে বিরোধ চলছিল বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার গড়মাটি মোল্লাপাড়ায় নইমউদ্দিনের বাড়ির তামাক ঘর থেকে ওই নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

জাম্বিয়া বেওয়া উপজেলার জোনাইল হরিপুর এলাকার মৃত আফসার আলীর স্ত্রী।  

তিনি ঘটনাস্থলের পার্শ্ববর্তী গড়মাটি উত্তর পাড়ায় বাবার বাড়িতে থাকতেন। পুলিশ মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) আব্দুর রহিম বাংলানিউজকে জানান, স্বামীর মৃত্যুর পর জাম্বিয়া বেওয়া বাবার বাড়িতে চলে আসেন। এরপর তিনি মোল্লাপাড়ায় সাইফুল মোল্লার ধানের চাতালে কাজ করতেন। এরই মধ্যে স্থানীয় নইমউদ্দিন মোল্লার সঙ্গে তিনি সুদ ও জমি বন্ধকের কারবার শুরু করেন। গত মাসে দিশা সংস্থা থেকে ৫০ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে নইমুদ্দিনকে দেন তিনি। পরে সাপ্তাহিক কিস্তির টাকা পরিশোধ করার জন্য নইমউদ্দিনকে অনুরোধ করেন জাম্বিয়া। কিন্তু টাকা না দিয়ে নানা তাল-বাহানা করতে থাকেন নইমউদ্দিন। এছাড়া আরও প্রায় নগদ দুই লাখ টাকা ও জমি বন্ধক নিয়েও নইমউদ্দিনের সঙ্গে ওই নারীর বিরোধ চলছিল।  

ওসি আরও জানান, রোববার (১৯ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাত ৮টার দিকে নইমউদ্দিন টাকা নেওয়ার জন্য জাম্বিয়াকে তার বাড়িতে ডেকে নেন। পরে জাম্বিয়ার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। পরদিন সকালে নইম নিজেই স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুস সালামকে মোবাইল ফোনে জানান, জাম্বিয়া তার তামাক ঘরের বাঁশের আড়ার সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। ইউপি চেয়ারম্যান ঘটনাটি পুলিশকে জানালে পুলিশ সকাল ১০টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে ওই নারীর মরদেহ উদ্ধার করে। এটি হত্যা না আত্মহত্যা, তা তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। তবে এখনও থানায় কেউ কোনো অভিযোগ করেননি।

এদিকে খবর পেয়ে বড়াইগ্রাম সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খায়রুল আলম, ওসি নজরুল ইসলাম মৃধা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।  

স্থানীয়রা জানান, এ ঘটনার পর মোল্লাপাড়ার নইমউদ্দিন (৫৫) বাড়িতে তালা মেরে পরিবারের সবাইকে নিয়ে পালিয়ে গেছেন বলে জানা গেছে। এ নিয়ে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭২২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১
এসআই 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa