ঢাকা, বুধবার, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০ সফর ১৪৪৩

জাতীয়

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তের মাদক কারবারীদের ধরতে পুরস্কার ঘোষণা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯ ঘণ্টা, জুলাই ২৯, ২০২১
চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তের মাদক কারবারীদের ধরতে পুরস্কার ঘোষণা ...

চাঁপাইনবাবগঞ্জ: এবার চোরাকারবারীদের সন্ধান বা ধরিয়ে দিতে পারলেই মিলবে ১৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা পুরষ্কার। চাঁপাইনবাবগঞ্জ একটি সীমান্তবর্তী জেলা।

এখানে প্রায় ৪৫ ভাগ নদী পথ এবং বাকি অংশটুকু কাঁটাতারের বেড়া বেষ্টিত। তার পরেও বন্ধ হচ্ছে না অবৈধ যাতায়াত এবং মাদক ব্যবসা।

চোরাকারবারীরা প্রতিনিয়তই তাদের কৌশল পরিবর্তন করে মাদকের কারবার চালিয়ে যাচ্ছে। তাই তাদের কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে এবার ভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি সদস্যরা। অপরাধীদের ছবি টাঙিয়ে ধরিয়ে দিতে পুরষ্কার ঘোষণা করেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৫৯ বিজিবি ব্যাটালিয়ন।

বুধবার (২৮ জুলাই) ভোরে জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার সীমান্ত এলাকার হাট বাজারে ছবিসহ এমন কয়েকটি ডিজিটাল সাইনবোর্ড দেখা গেছে। সাইনবোর্ডে অপরাধীদের নাম এবং ছবি জুড়ে দেওয়া হয়েছে। এতে লেখা রয়েছে মাদক কে না বলুন, নেশামুক্ত সমাজ গড়ুন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী মাদকমুক্ত দেশ গঠনের লক্ষে চোরাচালান বন্ধে বিজিবিকে সহায়তা করুন। এতে অস্ত্রসহ চোরাকারবারীদের ধরিয়ে দিতে পারলে ৩০ হাজার টাকা, মাদকসহ ধরিয়ে দিতে পারলে ১৫ হাজার টাকা পুরষ্কার ঘোষণা করা হয়।

সীমান্তবর্তী শিবগঞ্জ উপজেলার শাজবাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হক জানান, সীমান্ত অপরাধ বন্ধে জনপ্রতিনিধিসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কাজ করলেও কোনো ক্রমেই বন্ধ হচ্ছেনা মাদক বিক্রি বা পাচার। প্রতিদিন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালাচ্ছে। তাতে অনেকে মাদক এবং অস্ত্রসহ আটকও হচ্ছেন। তার পরেও বন্ধ হচ্ছে না মাদক এবং অবৈধ অস্ত্রের কারবার। সম্প্রতি সময়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে একাধিক চোরকারবারি অস্ত্র এবং বিভিন্ন মাদক নিয়ে আটকও হয়েছেন। কিন্তু জামিনে ছাড়া পেয়ে আবারও জড়িয়ে পড়ছেন অবৈধ কর্মকাণ্ডে। ফলে সমাজে যেন চোরাকারবারীরা অন্তত হেয় প্রতিপন্ন হয় বিজিবি সেই ব্যবস্থাই করেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ৫৯ বিজিবি’র অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো. আমীর হোসেন মোল্লা জানান, যাদের ছবি টাঙানো আছে, তাঁরা সবাই সীমান্ত অপরাধী। এদের মধ্যে অনেকে আটক হয়ে কারাগারে আছেন। আবার অনেকে পলাতক রয়েছেন। যারা পলাতক রয়েছে তাঁদের আটক করার চেষ্টা চলছে। এছাড়া আগের তুলনায় এখন অনেকাংশে কমে এসেছে সীমান্ত অপরাধ। বর্তমানে করোনাকালীন সময়ে আরো নজরদারি বাড়ানো হয়েছে এবং জিরো টলারেন্স নীতিতে কাজ করছে বিজিবি। মাদকসহ অবৈধ সীমান্তকারবার বন্ধে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান ৫৯ বিজিবি’র এ অধিনায়ক।

বাংলাদেশ সময়: ২০১৯ ঘণ্টা, জুলাই ২৯, ২০২১
কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa