ঢাকা, সোমবার, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮, ০২ আগস্ট ২০২১, ২২ জিলহজ ১৪৪২

জাতীয়

পরিবেশ সুরক্ষায় দুই ভাই!

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৩২ ঘণ্টা, জুলাই ২১, ২০২১
পরিবেশ সুরক্ষায় দুই ভাই! পরিবেশ সুরক্ষায় দুই ভাই। ছবি: বাংলানিউজ

বরগুনা: সকাল থেকেই ঈদুল আযহার উপলক্ষে সকলের মধ্যে ব্যস্ততা। কেউ নামাজ পড়ছেন কেউ পশু জবাই করছেন।

ঈদুল আযহার নামাজ শেষে প্রতিটি ঘরে ঘরেই পশু কোরবানি দেওয়ার কর্মযজ্ঞ। কারো যেন কথা বলার সময় নেই। ঠিক এমন সময় দুই ভাইয়ের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ দেখা গেছে।

পাড়া মহল্লায় কোরবানির পশু জবাই করায় বর্জ্য এবং রক্তের কারণে যাতে পরিবেশ দূষিত না হয় এবং দুর্গন্ধ না ছড়ায় তার জন্য ব্লিচিং পাউডার ও বর্জ্য অপসারণের জন্য পাথরঘাটা পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম কাকন ও তার ভাই পরিবেশ কর্মী সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম খোকন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন এবং পরিবেশ সুরক্ষায় কাজ করছেন। নিজেদের বাড়ির কোরবানির কাজ ফেলে সকাল থেকে কোরবানির পশুর বর্জ্য সরানো এবং পাড়া মহল্লায় দুর্গন্ধ থেকে মুক্তির জন্য ব্লিচিং পাউডার দিচ্ছেন। এমন কাজকে ভালোভাবেই দেখছেন এলাকার সচেতন মহল।

পাথরঘাটা কলেজের শিক্ষক মো. হাবিবুর রহমান ও জাইদুর রহমান বলেন, কোরবানির পশুর বর্জ্যের কারণে এবং দুর্গন্ধে পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। আমাদের সমাজে এখনও পশু জবাই করে বর্জ্য না সরিয়ে ফেলে রেখে যায়, যার কারণে দুর্গন্ধে এলাকার মানুষের চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। কাউন্সিলের এমন উদ্যোগ প্রশংসনীয়। বিগত দিনে এমন কাজ দেখা যায়নি। তারা আঙুল দিয়ে আমাদের দেখিয়ে দিয়েছেন এসব কাজ নিজেদের করা উচিত।  

স্থানীয় বাসিন্দা এম.এ সালাম আজাদি ও কাশেম রাসেল বলেন, আমরাও তাদের সঙ্গে থেকে সহযোগিতা করেছি। আসলেই দুই ভাইয়ের কাজগুলো আমাদের মুগ্ধ করেছে। কোরবানির দিন নিজেদের কাজ ফেলে রেখে মানুষের কাজ করছেন।

পাথরঘাটা পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম কাঁকন বলেন, এটা আমাদের কাজের ধারাবাহিক অংশের। পরিবেশ যাতে দূষিত না হয় সেজন্য আমি আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে ইতোমধ্যে যেসব জায়গায় গরু জবাই দেওয়া হয়েছে ওইসব জায়গায় ব্লিচিং পাউডার দেওয়া শুরু করেছি। এছাড়াও মানুষকে সচেতন করছি যারা কোরবানি দিয়েছেন নিজের উদ্যোগে গরু জবাই করার জায়গায় পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলার জন্য।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) পাথরঘাটা উপজেলার সমন্বয়ক সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম খোকন বলেন, বিগত দিনে আমরা পরিবেশ সুরক্ষার জন্য অনেক কাজ করেছি। ঈদুল আযহার দিনে পশুর বর্জ্যের কারণে সপ্তাহ খানিক দুর্গন্ধে এলাকার মানুষ চলাচল করতে পারে না। এ কথা বিবেচনা করে আমরা সকাল থেকেই বর্জ্য অপসারণের কাজ করেছি। এটি মানুষ ভালোভাবে দেখলো না খারাপ ভাবে দেখলাম সেটাই দেখার বিষয় নয় কিন্তু দুর্গন্ধ যাতে না আসে সেজন্য কাজ করেছি।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৩২ ঘণ্টা, জুলাই ২১, ২০২১
কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa