ঢাকা, সোমবার, ২ কার্তিক ১৪২৮, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

নদীর একদিকে উন্নয়ন, অন্যদিকে নির্যাতন 

বদরুল আলম, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯১৭ ঘণ্টা, জুলাই ১৬, ২০২১
নদীর একদিকে উন্নয়ন, অন্যদিকে নির্যাতন  নদীর একদিকে উন্নয়ন, অন্যদিকে নির্যাতন 

হবিগঞ্জ: কুশিয়ারা নদীর ভাঙনের কবল থেকে হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলার সৌলরী গ্রাম রক্ষায় জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। অন্যদিকে, নদীটির বদলপুর গ্রামের অংশ থেকে প্রতিদিন বালু উত্তোলন করে ভাঙনের পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে।

কুশিয়ারা নদীর ওপর এমন নির্যাতনে উৎকণ্ঠায় স্থানীয় বাসিন্দারা।  

সরেজমিনে দেখা যায়, এলাকার প্রভাবশালী কয়েকজন কুশিয়ারা নদীর আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বদলপুর অংশ থেকে ড্রেজার বসিয়ে দিনে ও রাতে বালু উত্তোলন করছেন। এতে নদীর ভাঙন বেড়ে নদী তীরের ফসলি জমি ও বসতবাড়িগুলো বিলীন হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে। ফসল রক্ষার বেরিবাঁধটিও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে প্রতিদিন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার কয়েকজন বাংলানিউজকে জানান, বদলপুর ইউনিয়নের পিঠুয়ারকান্দি ফেরিঘাট সংলগ্ন এলাকায় নদীর তীর থেকে এক সপ্তাহ ধরে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। আইন অমান্য করে দিনে ও রাতে প্রভাবশালীরা প্রকাশ্যে ড্রেজার দিয়ে বালু তুলছেন। কিন্তু স্থানীয় বাসিন্দারা ভয়ে প্রতিবাদ করেন না।  

এ বছর আজমিরীগঞ্জের বেশ কয়েকটি গ্রাম কুশিয়ারা নদী ভাঙনের কবলে পড়েছে। শুধু সৌলরী গ্রামের ৯০০ মিটার জায়গা রক্ষায় প্রয়োজন ৫০ কোটি টাকা। আপাতত ৮৯ লাখ টাকা খরচে ২০ হাজার জিও ব্যাগ (বালু ভর্তি বস্তা) ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।  

অন্যদিকে, বদলপুরে নদীর ভালো অংশ থেকে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন ওই অংশটিতেও ভাঙনের সৃষ্টি করা হচ্ছে। এনিয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি বলে মনে করছেন এলাকাবাসী।  

বদলপুর গ্রামের এক ব্যবসায়ী বাংলানিউজকে বলেন, একদিকে সরকারের কোটি টাকা ব্যয়ে নদী রক্ষার কাজ শুরু হচ্ছে। অন্যদিকে নদীর ভালো অংশ থেকে রাজস্ব না দিয়ে বালু উত্তোলন করে ভাঙন সৃষ্টি করা হচ্ছে। নদীর ওপর এভাবে নির্যাতন চলতে থাকলে আরও বাড়িঘর এবং ফসলি জমি বিলীন হয়ে যাবে।  

এ বিষয়ে পাউবো হবিগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহ নেওয়াজ তালুকদার বাংলানিউজকে বলেন, সৌলরী গ্রামে শিগগির জিও ব্যাগ ফেলার কাজ শুরু হবে। কিন্তু বদলপুর এলাকায় বালু উত্তোলন রোধ করা আমাদের কাজ না। এ বিষয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনারের (ভূমি) উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন।  

বাংলাদেশ সময়: ০৯০৮ ঘণ্টা, জুলাই ১৬, ২০২১
এসআরএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa