ঢাকা, রবিবার, ১ কার্তিক ১৪২৮, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

গাছে বেঁধে শিশু নির্যাতন: খবর পেয়ে ব্যবস্থা নেয় পুলিশ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩৪৫ ঘণ্টা, জুলাই ১৪, ২০২১
গাছে বেঁধে শিশু নির্যাতন: খবর পেয়ে ব্যবস্থা নেয় পুলিশ

ঢাকা: ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলায় মাছ চুরির অপবাদে এক শিশুকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বর্বর কায়দায় নির্যাতন করা হয়। এমন নির্যাতনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক তৎপরতা শুরু করে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ। পরে একদিকে থানায় অভিযোগ দায়ের ব্যবস্থা নেওয়া হয়, আরেকদিকে ওই এলাকায় গিয়ে নির্যাতনকারী রমজান আলীকে (৪৮) গ্রেফতার করে পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ বলছে, চাঞ্চল্যকর এই ঘটনার পর যথাসময়ে পদক্ষেপ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয় পুলিশ। গ্রেফতার রমজান আলীকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, আলোচিত এই ঘটনার পর ভুক্তভোগী জুয়েল রানার (৯) পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে পুলিশ। তাদের আইনি সহায়তা দেওয়ার কথা বলা হয়। পরে শিশু জুয়েলের বাবা মনির উদ্দিন নির্যাতনকারী রমজান আলীর বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় রমজানকে গ্রেফতার করা হয়।

পীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার রায় বাংলানিউজকে বলেন, শিশু জুয়েলকে নির্যাতনের ঘটনায় দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ। এদিকে ওই শিশুর বাবার অভিযোগ দায়েরের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন ছিল, অপরদিকে একটি টিম পাঠিয়ে অভিযুক্ত রমজান আলীকে গ্রেফতার করা হয়।

মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) দিনগত রাতে পীরগঞ্জ উপজেলার মল্লিকপুর গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে রমজান আলীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এদিকে নির্যাতিত শিশু জুয়েল রানা দৌলতপুর ইউনিয়নের মল্লিকপুর গ্রামের মনির উদ্দিনের ছেলে। সে পূর্ব মল্লিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র।

মাছ চুরির অপবাদে জুয়েলকে একটি গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে নির্যাতন করেন একই গ্রামের রমজান আলী। এই নির্যাতনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

গত শুক্রবার (৯ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মল্লিকপুর তামলাই দীঘি পাড়ের পাশে জহিরুল ইসলামের বাড়ির পাশে শিশু জুয়েলকে নির্যাতন করা হয়।

নির্যাতিত শিশুর বাবা মনির উদ্দিন জানান, বিনা কারণে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে রমজান আলী আমার ছেলেকে গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে মারধর করেছেন। ছোট শিশুকে কেউ এভাবে মারতে পারে? আমি এর সঠিক বিচার চাই। আমার ছেলে মাছ চুরি করেনি, রমজান মিথ্যা অপবাদ দিয়েছেন।

গ্রেফতারের আগে অভিযোগের কথা স্বীকার করে রমজান আলী বলেন, আমি প্রায় প্রতিদিনই জাল দিয়ে মাছ ধরি। আর জুয়েল এসে আমার জাল থেকে না বলেই মাছ নিয়ে চলে যায়। আমি তাকে অনেকবার নিষেধ করেছি। সে শোনেনি। সেদিন তাকে ধরে ইয়ার্কি করে বেঁধে বলেছি, তোকে এভাবে বেঁধে মারবো। এ সময় তাকে দু-একটা বাড়ি দিয়ে ছেড়ে দিয়েছি। তাকে বেশি মারপিট করা হয়নি।

তিনি বলেন, হাসি তামাশা করে তাকে বেঁধে দুইটা বাড়ি দিয়েছি, নির্যাতন করিনি।

এর আগে পীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার রায় বলেন, জুয়েল বাসায় গিয়ে ভয়ে কাউকে বিষয়টি না জানিয়ে চুপ করে থাকে। রাতে পায়ের ব্যথায় ছটফট করলে তার বন্ধুদের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারে পরিবারের লোকজন। আহত জুয়েলকে বাবা-মা পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন।

আরো পুড়ন>>

>> ঠাকুরগাঁওয়ে শিশু নির্যাতনকারী রমজান গ্রেফতার

বাংলাদেশ সময়: ২৩৪৫ ঘণ্টা, জুলাই ১৪, ২০২১
পিএম/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa