ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৮, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

৫ মাস বেতন বন্ধ থাকায় কেসিসির পরিচ্ছন্নকর্মীদের বিক্ষোভ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২২৭ ঘণ্টা, জুলাই ১৪, ২০২১
৫ মাস বেতন বন্ধ থাকায় কেসিসির পরিচ্ছন্নকর্মীদের বিক্ষোভ

খুলনা: ‌‘আমাদের দাবি না মানলে পরিচ্ছন্ন কাজ বন্ধ থাকবে, আমাদের দাবি মেনে নিন পাঁচ মাসের বেতন দিন। ’ লেখা প্ল্যাকার্ড হাতে বিক্ষোভ করেছেন খুলনা সিটি করপোরেশনের (কেসিসি) বহিরাগত পরিচ্ছন্নকর্মীরা।

বুধবার (১৪ জুলাই) সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত খুলনা প্রেসক্লাবের সামনে প্রায় শতাধিক পরিচ্ছন্নকর্মী এ বিক্ষোভ করেন। এর আগে তারা সংস্থার পাওয়ার হাউস মোড়ে জড়ো হয়ে এ বিক্ষোভ শুরু করেন।

বিক্ষোভকারী পরিচ্ছন্নকর্মীরা জানান, ১২০ জন বহিরাগত পরিচ্ছন্নকর্মী গত পাঁচ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। দীর্ঘ পাঁচ মাস বেতন না পেয়ে ক্ষুব্দ এসব কর্মীরা কেসিসির তেলের ট্যাংক গ্যারেজের সামনে মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) বিক্ষোভ করেন। সেই ধারাবাহিকতায় বুধবারও তারা বিক্ষোভ করেছেন।

বহিরাগত পরিচ্ছন্নকর্মী রাকিব বলেন, করোনার মধ্যেও স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে সিটি করপোরেশনের বর্জ্য পরিষ্কার করছি। অথচ গত পাঁচ মাস বেতন পাচ্ছি না। বর্জ্য অপসারণের সময় গ্লাভস, মাস্ক, জুতা, হেলমেট ব্যবহার করার কথা থাকলেও আমাদের কিছুই নেই। শুনেছি আমাদের জন্য এগুলো বরাদ্দ হয়েছিল কিন্তু আমরা পাইনি। বর্তমানে বেতন না পেয়ে আমরা মানবেতর জীবনযাপন করছি। মুদি দোকানীরা আর বাকি দিতে চান না। বাড়িওয়ালারাও বাসা থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছেন।  

আন্দোলনকারী পরিচ্ছন্নকর্মীরা জানান, ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে কেসিসির আউট সোর্সিং-এর চাকরিতে যোগদান করেন তারা। কয়েক মাস ঠিকভাবে বেতন পেলেও চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে জুলাই মাস (পাঁচ মাস) পর্যন্ত বেতন পাননি তারা। বার বার কর্মীদের সুপারভাইজার হাফিজুল ইসলামের কাছে বেতনের জন্য ধন্যা ধরেও বেতন পাইনি। পরিচ্ছন্নকর্মীরা খুব অসহায় অবস্থায় রয়েছেন। একে তো লকডাউন, সেই সঙ্গে সামনে ঈদুল আজহা। এ সময় টাকা না পেলে তারা না খেয়ে মরবে বলেও জানান পরিচ্ছন্নকর্মীরা।

পরিচ্ছন্নকর্মীদের সিদ্ধান্ত ছিল নগর ভবনের সামনে বিক্ষোভ করার। খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক চিকিৎসার জন্য ঢাকায় অবস্থান করায় তারা প্রেসক্লাবের সামনে এসে অবস্থান নেন।

বহিরাগত পরিচ্ছন্নকর্মীদের সুপারভাইজার হাফিজুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, বহিরাগত পরিচ্ছন্নকর্মীরা পাঁচ মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না। তাদের হাজিরা সংক্রান্ত একটি জটিলতার কারণে মেয়র তদন্ত কমিটি করেছিলেন। তদন্তের রিপোর্ট তৈরি করে মেয়রের কাছে দেওয়া পরের দিন তিনি অসুস্থ হয়ে ঢাকায় চলে যান। মেয়র খুলনায় এলে সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

হাজিরা সংক্রান্ত তদন্তে কেন এত দীর্ঘ সময় লাগলো এমন প্রশ্নের জবাবের সঠিক উত্তর দিতে পারেননি সুপারভাইজার হাফিজুল।

বাংলাদেশ সময়: ১২২৩ ঘণ্টা, জুলাই ১৪, ২০২১
এমআরএম/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa