ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৮, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

২০০ বছরের প্রাচীন কষ্টিপাথর সদৃশ্য গো-মূর্তি উদ্ধার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৪০ ঘণ্টা, জুলাই ১০, ২০২১
২০০ বছরের প্রাচীন কষ্টিপাথর সদৃশ্য গো-মূর্তি উদ্ধার

কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার গোসাইর ভিটার প্রাচীন রাজবাড়ির ধ্বংসস্তূপ থেকে প্রায় ২০০ বছরের অতি প্রাচীন গো-মূতি উদ্ধার করেছে স্থানীয়রা।

শনিবার (১০ জুলাই) বিকেলে ২০ কেজি ৫শ গ্রাম ওজনের প্রাচীন গো-মূর্তিটি গোসাইয়ের ভিটার প্রভাষ চন্দ্রের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে নাগেশ্বরী থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (৯ জুলাই) দুপুরে নাগেশ্বরী উপজেলার নেওয়াশী ইউনিয়নের সুখাতী গোসাইর ভিটা গ্রামের প্রভাষ চন্দ্র, শ্রীধর, পরিমলসহ কয়েকজন গোসাইর ভিটার প্রাচীন রাজবাড়ির ধ্বংসস্তূপ থেকে পোড়া ইট ও পাথর সংগ্রহ করতে যায়। এ সময় ইট-পাথরের নিচে কষ্টিপাথর সদৃশ্য গো-মূর্তিটির সন্ধান পায়।  
পরে তারা ২০ কেজি ৫শ গ্রাম ওজনের গো-মূর্তিটির উদ্ধার করে সুখাতী গোসাইর ভিটা গ্রামের প্রভাষ চন্দ্রের বাড়িতে সংরক্ষণ করে। বিষয়টি লোকমুখে দ্রুত এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে কষ্টিপাথর সদৃশ্য গো-মূর্তিটি দেখতে শত শত মানুষ ভিড় জমায়।  

পরে খবর পেয়ে শনিবার বিকেলে মূর্তিটি প্রভাষ চন্দ্রের বাড়ি থেকে নাগেশ্বরী থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

নেওয়াশী ইউনিয়নের সুখাতী গোসাইর ভিটা গ্রামের বৃদ্ধা চঞ্চলা বালা জানান, আমরা শুনেছি প্রায় ২০০ বছর আগে গোসাইর ভিটায় গোসাই নামে একজন জমিদারের বাড়ি ছিল। তারই নামে ওই গ্রামের নামকরণ করা হয় গোসাইর ভিটা। এটি ওই পুরনো বাড়ির মূতি বলেও জানান তিনি।

নাগেশ্বরী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শহিদুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করে বাংলানিউজকে জানান, প্রভাষ চন্দ্রের বাড়ি থেকে মূর্তিটি থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। মূর্তিটি অতি প্রাচীন বিধায় এই মূর্তিটি সংরক্ষণের জন্য সরকারি আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২০৩৭ ঘণ্টা, জুলাই ১০, ২০২১
এফইএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa