ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ কার্তিক ১৪২৮, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

খাবার পেয়ে স্বস্তিতে রাণীশংকৈলের ৩০০ হতদরিদ্র

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৩ ঘণ্টা, জুলাই ৮, ২০২১
খাবার পেয়ে স্বস্তিতে রাণীশংকৈলের ৩০০ হতদরিদ্র

ঠাকুরগাঁও: বৃদ্ধ বয়সে স্ত্রীকে নিয়ে একা থাকেন হাজারু মোহাম্মদ। বয়স ৮৫ পেরিয়েছে।

বার্ধক্যজনিত কারণে কাজ করার সামর্থ্য হারিয়েছেন। সংসারে আর কেউ নেই। স্ত্রী কোহিনূর গতরখেটে যা রোজগার করেন তা দিয়েই চলে মানবেতর জীবনযাপন। হাজারু মোহাম্মদ তার কষ্টে জর্জরিত জীবনের গল্প বলতে বলতে কেঁদে ফেললেন। জানালেন, করোনার সময়ে বৃদ্ধ বয়সে এসে তাদের নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থার কথা। বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ পেয়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে তিনি বলেন, হামার বউ মাইনষের বাড়িত কাজ করে যেইডা পাও তা দিয়ে কোনোমতে সংসার চলিছিল। এই লোকডাউনে ওইডাও বন্ধ, কাহারো বাড়িত যাওয়া যায় না। লোকডাউনে লাজ কামও নাই। ঘরের বাহিরত যাবা পারেনা। হামার দিন খুব কষ্ট লা যাছে। এলা বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ পায় খুব উপকার হইল। এইলা দে কিছু দিন খাওয়া যাবে।

শুধু হাজারু মোহাম্মদ নয় ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার এমন ৩০০ হতদরিদ্ররা কালের কণ্ঠ শুভসংঘের ত্রাণ পেয়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন।

বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) উপজেলার রাণীশংকৈল ডিগ্রি কলেজ মাঠে ও মীরডাঙ্গী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় এই ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করে শুভসংঘের সদস্যরা।

ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে উপস্থিত হয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান শাহরিয়ার আজম মুন্না বলেন, আমাদের ঠাকুরগাঁওয়ে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে। এই সময় আপনারা অবাধ চলাফেরা করলে করোনা মোকাবেলা সম্ভব হবে না। আপনাদের ত্রাণ দেওয়ার একমাত্র উদ্দেশ্য আপনারা যেন ঘরে থাকেন। আমি বসুন্ধরা গ্রুপকে ও শুভসংঘকে ধন্যবাদ জানাই আমাদের জেলায় ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করার জন্য।

ত্রাণ সহায়তা নিতে আসা উপকারভোগী আনোয়ারা বেগম বলেন, হামি বুড়া হইয়া গেছি বা, স্বামী নাই। ছেলে আছে, মোরে দেখে না। হামি মাইষের বাড়ি গতরখাটি, করম করি খাই। খুব কষ্ট হয়। কেউ সাহায্য দেয় না বা। বসুন্ধরার জন্য দোয়া করি।  

এছাড়া ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে আরো উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) প্রীতম শাহা, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও রাণীশংকৈল ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সইদুল হক, উপাধ্যক্ষ মো. জামাল উদ্দিন, পৌর মেয়র মুস্তাফিজুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল রানা, রাণীশংকৈল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসএম জাহিদ ইকবাল, কালের কণ্ঠ শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শামীম আল মামুন, সদস্য শরীফ মাহ্দী আশরাফ জীবন, রাণীশংকৈল উপজেলা শুভসংঘের প্রধান উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট মোস্তাক আলম টুলু, সভাপতি মহাদেব বসাব, রাণীশংকৈল প্রেসক্লাব প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও ইত্তেফাক প্রতিনিধি অধ্যাপক আনোয়ার ইসলাম, কালের কণ্ঠের উপজেলার প্রতিনিধি সফিকুল ইসলাম শিল্পী, ডেইলি সানের প্রতিনিধি হুমায়ুন কবির, ঠাকুরগাঁও জেলার শুভসংঘের সহসভাপতি তাপস দেবনাথ, সাংস্কৃতিক বিষয়ক  সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী, সদস্য আমিনুল ইসলামসহ আসাদুজ্জামান, মালিহা মনজুর, তাম্মী শাহরিন দিশা, সোহানি ইসলাম সমাপ্তিসহ শুভসংঘের ঠাকুরগাঁও জেলা ও কলেজ কমিটির অন্যান্য সদস্যরা।

বাংলাদেশ সময়: ২০১১ ঘণ্টা, জুলাই ০৮, ২০২১
এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa