ঢাকা, বুধবার, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

‘অক্সিজেট’ অনুমোদনে আবেদনই করেনি বুয়েট: ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৩৩৮ ঘণ্টা, জুলাই ৭, ২০২১
‘অক্সিজেট’ অনুমোদনে আবেদনই করেনি বুয়েট: ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর

ঢাকা: করোনা ভাইরাস সংক্রমিতদের জন্য প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের চাহিদা পূরণে ‘অক্সিজেট’ নামে স্বল্পমূল্যের সি-প্যাপ ভেন্টিলেটর ডিভাইস উদ্ভাবনের দাবি জানায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ। তাদের উদ্ভাবিত ডিভাইসটি বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করতে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের অনুমোদন মিলছে না বলে অভিযোগ জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

তবে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর বলছে, বুয়েট উদ্ভাবিত ‘অক্সিজেট’ নামে স্বল্পমূল্যের সি-প্যাপ ভেন্টিলেটর ডিভাইস অনুমোদনের জন্য কোনো আবেদনই করেনি।

মঙ্গলবার (৬ জুলাই) ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের প্রশাসন বিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ নাঈম গোলদার স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বুয়েটের বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে উদ্ভাবিত ‘অক্সিজেট’ নামে মেডিক্যাল ডিভাইসটির পারফরমেন্স ট্রায়াল অনুমোদনের জন্য এখনও ঔষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরে কোনো আবেদন দাখিল করা হয়নি।

এতে বলা হয়, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে যে, বুয়েটের উদ্ভাবিত ’অক্সিজেট’ নামে সি-প্যাপ ভেন্টিলেটর ডিভাইস বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করতে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের অনুমতি মিলছে না বলে বিষয়টি হাইকোর্টের নজরে আনা হয়েছে।

তবে এখন পর্যন্ত ওই ডিভাইসটির পারফরম্যান্স ট্রায়ালের অনুমোদনের জন্য ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে কোনো আবেদন করা হয়নি বলে উল্লেখ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

এতে বলা হয়, নব-উদ্ভাবিত কোনো মেডিক্যাল ডিভাইস মানুষের শরীরের জন্য কতটুকু নিরাপদ ও কার্যকর তা পারফরম্যান্স স্টাডির মাধ্যমে যাচাই করে এবং মেডিক্যাল ডিভাইসটির উৎপাদন ও মাননিয়ন্ত্রণ সুযোগ-সুবিধাদি মূল্যায়নের পর রেজিস্ট্রেশন ও বিপণনের করার অনুমোদন দেওয়া হয়।

এতে আরও বলা হয়, যেহেতু ‘অক্সিজেট’ নামে মেডিক্যাল ডিভাইসটি মানবদেহে চিকিৎসায় ব্যবহৃত হবে এ কারণে মেডিক্যাল ডিভাইসটির ক্লিনিক্যাল পারফরমেন্স ট্রয়াল প্রটোকল অনুমোদনের জন্য বাংলাদেশ চিকিৎসা গবেষণা পরিষদের (বিএমআরসি) ইথিক্যাল ক্লিয়ারেন্সসহ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে বুয়েটের বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের আবেদন করা প্রয়োজন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সন্তোষজনক পারফরমেন্স ট্রায়াল রিপোর্টপ্রাপ্তি এবং মেডিক্যাল ডিভাইসটি আইএসও: ১৩৪৮৫ কমপ্লায়েন্স কারখানায় উৎপাদন ও যথাযথ মাননিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা নিশ্চিত সাপেক্ষে বিপণন করার জন্য রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হবে। জনস্বাস্থ্যের নিরাপত্তার জন্য রেজিস্ট্রেশনের পাথওয়ে (যথাযথ বিধি) অনুসরণ করা হয়। ঔষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর এ ধরনের দেশীয় উদ্ভাবনকে সবসময় উৎসাহিত করে ও সুবিধা দিয়ে থাকে।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর দেশীয় উদ্ভাবনাকে সবসময় অনুপ্রেরণা দেয় উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ১২ জুন বুয়েটের বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. তৌফিক হাসান ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরকে বায়োমেডিক্যাল ‘অক্সিজেট’ নামে মেডিক্যাল ডিভাইসটির বিষয়ে মৌখিকভাবে অবহিত করলে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর থেকে ডিভাইসটি বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনের জন্য দেশের মেডিক্যাল ডিভাইস উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান জেএমআই, এএনসি, গেটওয়েল, ইনসেন্টা মেডিক্যাল ডিভাইসের শীর্ষ পর্যায়ের টেকনিক্যাল কর্মকর্তাদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়। একইসঙ্গে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনের পথকে সুগম করে দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ সময়: ০৩৩৩ ঘণ্টা, জুলাই ০৭, ২০২১
পিএস/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa