ঢাকা, সোমবার, ২ কার্তিক ১৪২৮, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

চাঁপাইনবাবগঞ্জে খাদ্যে বিষক্রিয়ায় জমজ বোনের মৃত্যুর অভিযোগ 

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৪৫ ঘণ্টা, জুলাই ৬, ২০২১
চাঁপাইনবাবগঞ্জে খাদ্যে বিষক্রিয়ায় জমজ বোনের মৃত্যুর অভিযোগ  হাসপাতালে জমজের একজন স্বপ্না। ছবি: বাংলানিউজ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ: রেস্টুরেন্ট থেকে আনা মোগলাই পরোটা খেয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের কালীতলা মহল্লায় স্বর্ণা (১৭) ও স্বপ্না (১৭) নামে জমজ বোনের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তাদের মা ও এক আত্মীয়।

 

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ। মৃতরা একই এলাকার সাদিকুল ইসলাম রবির মেয়ে ও নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের প্রথম বর্ষের মানবিক বিভাগের ছাত্রী।  

মঙ্গলবার (৬ জুলাই) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে স্বর্ণা নিজ বাড়িতে এবং স্বপ্না দুপুর ২টার দিকে হাসপাতালে মারা যায়।  

মৃতদের বাবা সাদিকুল ইসলাম রবি জানান, গতকাল সোমবার বিকেলে শহরের পুরাতন বাজার এলাকার হোটেল শাহজাহান সুইটস থেকে মোগলাই পরোটা কিনে এনে তিনিসহ বাড়ির সবাই খান। এরপর রাতে তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন, মেয়ে স্বর্ণা ও স্বপ্না এবং আত্মীয় সিফাত (২০) অসুস্থ হয়ে পড়ে। একপর্যায়ে তাদের সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে স্বর্ণা ও তার মাকে চিকিৎসাসেবা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয় এবং স্বপ্না ও সিফাতকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে বাড়ি আসার পরেই মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে স্বর্ণা মারা যায়। অন্যদিকে স্বপ্নার অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে দুপুরে তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে নেওয়ার আগেই দুপুর ২টার দিকে হাসপাতালেই মারা যায় সে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসার ডা. নাদিম সরকার জানান, ফুড পয়জনিং থেকে স্বপ্না ও স্বর্ণার মৃত্যু হয়েছে।

অপরদিকে জেলা হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার মোসা. নুরুন্নাহার নাসু বলেন, সকাল ৯টায় স্বর্ণা মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আসে এবং স্বপ্না ফুড পয়জিনং নিয়ে ভর্তি হলে তার অবস্থা ধীরে ধীরে খারাপ হলে তাকে আমরা রাজশাহী মেডিক্যা্ল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করি। কিন্তু রাজশাহী নেওয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়।

এদিকে শাহজাহান হোটেলের মালিক জামাল উদ্দিন নাসের জানান, তার দোকানের মোগলাই পরোটা খেয়ে অন্য আর কেউ অসুস্থ হয়নি। তবে আসলেই তার দোকান থেকে মোগলাই নেওয়া হয়েছিল কিনা তা ভিডিও ফুটেজ দেখে জানা যাবে। হোটেলটির মালিক জামাল উদ্দিন নাসেরের দাবি তার দোকানের মোগলাই পরোটা খেয়ে অসুস্থ হওয়ার বিষয়টি অবান্তর। তার রেস্টুরেন্টে স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে সব খাবার তৈরি করা হয়।
 
এ ব্যাপারে সদর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মিন্টু রহমান জানান, এ ঘটনায় এখনও কেউ থানায় অভিযোগ করেনি। তবে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪৩ ঘণ্টা, জুলাই ০৬, ২০২১
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa